alo
ঢাকা, রবিবার, ফেব্রুয়ারী ৫, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৩ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

লো স্কোরিং ম্যাচে ঢাকার কাছে খুলনার হার

প্রকাশিত: ২৪ জানুয়ারী, ২০২৩, ১১:১১ পিএম

লো স্কোরিং ম্যাচে ঢাকার কাছে খুলনার হার
alo

নিউজনাউ ডেস্কঃ বিপিএলের এবারের আসরে সবচেয়ে কম স্কোর তাড়া করে হারার লজ্জাজনক রেকর্ড নিজেদের করে নিলো খুলনা টাইগার্স। লো স্কোরিং ম্যাচে খুলনা টাইগার্সের বিপক্ষে আজ ২৪ রানে জিতেছে ঢাকা।

আগে ব্যাটিং করে ১০৮ রান তুলেছিল ঢাকা। পরে দুর্দান্ত বোলিংয়ে খুলনাকে ৮৪ রানেই গুটিয়ে দিয়েছে তারা। অষ্টম ম্যাচ খেলতে নেমে আজ দ্বিতীয় জয়ের দেখা পেলো দলটি। টুর্নামেন্টে নিজেদের প্রথম ম্যাচ জিতে তারপর টানা ছয় ম্যাচ হেরেছিল নাসির হোসেনের দল। অপর দিকে ছয় ম্যাচ খেলতে নেমে চতুর্থ হারের তেঁতো স্বাদ পেলো খুলনা।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আজ দিনের দ্বিতীয় ম্যাচটা হলো বোলারদের। এবারের বিপিএলে উইকেট বেশ ভালো বলে ব্যাটারদের মুখে চওড়া হাসি। বোলারদের জন্য এবারের পিচ চ্যালেঞ্জিং। তবে আজ দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে দাপট দেখালেন বোলাররা। প্রথমে খুলনার দুই স্পিনার নাহিদুল ইসলাম ও নাসুম আহমেদ ঘুর্ণি জাদু দেখিয়েছেন। পরে পেস আগুন ঝড়ালেন তাসকিনসহ ঢাকার পেসাররা।

 

খুলনার ভোগান্তি শুরু তাসকিনেই। দলীয় ৯ রানের মাথায় তাসকিনের বলে ফেরেন খুলনার ক্যারিবিয়ান ওপেনার শেই হোপ। খানিক বাদে নাসির হোসেন পরপর মাহমুদুল হাসান জয় ও তামিম ইকবালকে ফিরিয়ে চাপ অব্যাহত রেখেছিলেন। তাসকিন ইনিংসের ১১তম ওভারে আজম খানকে ফিরিয়ে দিলে আরও বিপদে পরে খুলনা।

তবে স্কোরকার্ডে রান কম বলে দোদুল্যমান এগুচ্ছিল ম্যাচ। শেষ দিকে খুলনাকে রীতিমতো বিধ্বস্ত করেছেন তাসকিন। ১৬তম ওভারে তিন বলের ব্যবধানে দুর্দান্ত দুটি ডেলিভারিতে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও নাহিদ রানাকে ফিরিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেছেন তিনি।

 

১৫.৩ ওভারে ৮৪ রানে থেমেছে খুলনার ইনিংস। ২৩ বলে সর্বোচ্চ ৩০ রান করেছেন তামিম ইকবাল। অধিনায়ক ইয়াসির আলি রাব্বি ২৪ বলে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২১ রান করেন। তাসকিন ৩.৩ ওভার মাত্র ৯ রান খরচায় নিয়েছেন চার উইকেট। দুটি করে উইকেট নিয়েছেন নাসির হোসেন ও আল-আমিন হোসেন।

বিধ্বংসী তাসকিনে ছয় হারের পর জিতল ঢাকা

 

এর আগে ঢাকা কোনো মতে একশ পেরিয়েছে সৌম্য সরকারের ব্যাটে। খুলনার দুই স্পিনার নাহিদুল ইসলাম ও নাসুম আহমেদ দুর্দান্ত বোলিং করেছেন। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে মিজানুর রহমান ও উসমান গনিকে ফেরান নাহিদুল ইসলাম। নিজের পরের দুই ওভারে আরও দুই উইকেট তুলে নেন নাহিদুল। শুরুতেই কোমড় ভেঙে যাওয়া ঢাকা পরে আর দাঁড়াতে পারেনি। মাঝের ওভারগুলোতে দাপট দেখিয়েছেন অপর স্পিনার নাসুম।

অবশ্য অনেকদিন অফ ফর্মে থাকা সৌম্য সরকার অন্যদের আসা যাওয়ার মধ্যে অনেকক্ষণ ক্রিজে ছিলেন। ওপেনিং করতে নেমে ফিফটি করেছেন সৌম্য। ঢাকা শেষ পর্যন্ত একশ পেরুতে পেরেছে সৌম্যর ব্যাটেই। ৪৫ বলে ৬টি চার ২টি ছয়ে ৫৭ রান করেছেন বাঁহাতি ওপেনার।

 

১৯.৪ ওভারে ১০৮ রানে গুটিয়ে গেছে ঢাকা। ঢাকার পক্ষে ১০ বলে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১২ রান করেছেন তাসকিন আহমেদ। এছাড়া দুই অঙ্কের কোটা পেরুতে পেরেছেন কেবল অপর পেসার আল-আমিন হোসেন। ১১ বলে ১০ রান করেন আল-আমিন।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২৩

X