alo
ঢাকা, রবিবার, নভেম্বর ২৭, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গাজীপুরে চুরির অভিযোগে যুবককে পিটিয়ে হত্যা

প্রকাশিত: ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১২:৪৯ পিএম

গাজীপুরে চুরির অভিযোগে যুবককে পিটিয়ে হত্যা
alo

 

নিউজনাউ ডেস্ক: গাজীপুরের শ্রীপুরে এক যুবককে ডেকে নিয়ে রাতভর পিটিয়ে গুরুতর আহত করে, অতঃপর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। স্বজনরা বলছে নিহত যুবককে পরিকল্পিত ভাবে পাশবিক নির্যাতন ও পিটিয়ে গুরুতর আহত করে, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাতে নিহত যুবকের স্বজনরা এম্বুলেন্সে করে মরদেহ নিয়ে বিচারের দাবিতে থানায় এসেছে। 

এর আগে শুক্রবার সারারাত শারীরিক নির্যাতন করে গুরুতর আহত করে ঐ যুবককে। শনিবার সকালও সাতটার নিহত রানা মিয়ার বাবা আমিনুল ইসলাম উপজেলার মাওনা এলাকার বেদে পল্লীর পাশে একটি নির্জন স্থানে তাকে এলোপাতাড়ি মারধর করতে দেখে এগিয়ে যায়। এসময় অভিযুক্তরা নিহতের মা বাবাকেও মারধর করে। এরপর স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।

নিহত যুবক রানা মিয়া (৩০) উপজেলার মাওনা ইউনিয়নের মাওনা মাওনা গ্রামের মো. আমিরুল ইসলামের ছেলে। সে একজন রাজমিস্ত্রির সহকারী হিসেবে কাজ করতো। 

অভিযুক্তরা হলেন, স্থানীয় ভাঙ্গারী ব্যবসায়ী একই এলাকার আব্দুল করিমের ছেলে মো. শিপন মিয়া (২৫), আকাশ মিয়া (২২) উজ্জ্বল মিয়া (২৫) ও আবুল কাশেমের ছেলে ইমন(২৬)। 

ভুক্তভোগী নিহত যুবকের ভাই কবির হোসেন বলেন, শুক্রবার রাতে মাওনা পিয়ার আলী কলেজের পিছনে নিহত রানাকে ভাঙ্গারী দোকানের মালিক শিপন ডেকে নেয়। এরপর তাকে রাতভর এলাকার কিছু উশৃংখল যুবকদের সঙ্গে নিয়ে রাতভর নির্যাতন চালায় শিপন বাহিনী। এই নির্যাতন সকাল পর্যন্ত চালিয়ে যায়। এরপর নিহত যুবকের বাবা আমিরুল ইসলাম ও তার মা খবর পেয়ে এগিয়ে গেলে তাদের সামনেও রানাকে আঘাত করে। এতে বাঁধা দিলে ওঁরা তার মা বাবাকে মারধর করে। এরপর নিহতের স্বজনদের কাছ থেকে সাদা ষ্ট্যাম্পে সাক্ষর নিয়ে তাকে ছেড়ে। এরপর ময়মনসিংহ থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। 

নিহতের বাবা আমিরুল ইসলাম কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার ছেলেকে তুলে নিয়ে দফারফা নির্যাতন করে বুকের পাজর, দুই হাত, পা ভেঙে দেয়। আমার ছেলের শরীরের এক ইঞ্চি পরিমাণ জায়গা নেই যে ঐ স্থানে আঘাত করেনি ওঁরা।

অভিযুক্ত ভাঙ্গারী ব্যবসায়ী শিপনের বক্তব্য নিতে বাড়িতে গিয়ে তাদের পাওয়া যায়নি। এসময় শিপনের মা রোকেয়া আক্তার বলেন, রানাকে শিপনকে মারধর করেনি। তাহলে আপনার ছেলে পালিয়ে গেলো কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন সে পালায় নি। ব্যবসায়িক কাজে বাহিরে রয়েছে।  

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, এ বিষয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। অভিযুক্তদের গ্রেফতার করতে কাজ করছে পুলিশ।

নিউজনাউ/আরবি/২০২২

X