alo
ঢাকা, মঙ্গলবার, অক্টোবর ৪, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মেয়রকে নিয়ে ‘আপত্তিকর’ মন্তব্য, চট্টগ্রাম কর আন্দোলন সভাপতির বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত: ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ০৬:২৩ পিএম

মেয়রকে নিয়ে ‘আপত্তিকর’ মন্তব্য, চট্টগ্রাম কর আন্দোলন সভাপতির বিরুদ্ধে মামলা
alo

চট্টগ্রাম ব্যুরো:  চট্টগ্রামে বর্ধিত গৃহকর বাতিলের অনুষ্ঠানে সিটি মেয়রকে নিয়ে ‘আপত্তিকর মন্তব্য’ করায় মানহানির মামলা খেলেন চট্টগ্রাম করদাতা সুরক্ষা পরিষদের সভাপতি নুরুল আবছার চৌধুরী।

মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) চান্দগাঁও থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাটি করেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) মেয়রের ব্যক্তিগত সহকারী মো. মোস্তফা কামাল চৌধুরী দুলাল।

চান্দগাঁও থানার ওসি মঈনুর রহমান বলেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাটি রেকর্ড হয়েছে। পরবর্তী আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

করদাতা সুরক্ষা পরিষদের নেতারা বলছেন, আগামী ২৩ সেপ্টেম্বরের পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচিকে বানচাল করতে মামলা করা হয়েছে। 

মামলার বাদী মোস্তফা কামাল চৌধুরী দুলাল বলেন, ‘গত ১৮ সেপ্টেম্বর পশ্চিম মাদারবাড়িতে করদাতা সুরক্ষা পরিষদের ব্যানারে এক সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে নুরুল আবছার চৌধুরী মেয়র মহোদয়কে তুই-তোকারি করে অশোভন ভাষায় কথা বলেন। মেয়রকে চট্টগ্রাম ছেড়ে চলে যাবার জন্যও হুমকি দেন। নগরীর চান্দগাঁও থানার বহদ্দারহাটে বসে আমি একটি অনলাইন টেলিভিশনে এই বক্তব্য শুনি। মেয়রের বিরুদ্ধে মানহানিকর, উসকানিমূলক বক্তব্য দেওয়ায় আমি মামলা দায়ের করেছি।’

উল্লেখ্য, সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের আমলে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে পঞ্চবার্ষিকী কর পুনঃমূল্যায়ন করে বর্ধিত হারে গৃহকর আদায়ের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। ২০১৭ সালে এই প্রক্রিয়ার বিরুদ্ধে ‘চট্টগ্রাম করদাতা সুরক্ষা পরিষদ’ গঠন করে আন্দোলনে নামেন সাবেক মেয়র (বর্তমানে প্রয়াত) এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী। আন্দোলনের মুখে ২০১৭ সালের ১০ ডিসেম্বর পুনঃমূল্যায়নের ভিত্তিতে কর আদায় স্থগিত করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।
মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী দায়িত্ব নেওয়ার পর পুনঃমূল্যায়নের ভিত্তিতে গৃহকর আদায়ের ওপর স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের দেওয়া স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের অনুরোধ জানিয়ে দুই দফা চিঠি দেয় চসিক। এর ভিত্তিতে চলতি বছরের ১৮ জানুয়ারি স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে নেয় মন্ত্রণালয়। তখন মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছিলেন, ‘গণহারে গৃহকর বাড়ানো হবে না, শুধুমাত্র করের আওতা বাড়ানো হবে।’

কিন্তু সম্প্রতি পুনঃমূল্যায়নের ভিত্তিতে হোল্ডিং ট্যাক্স আদায় শুরু হলে নগরবাসীর মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। এর ফলে পাঁচ বছর পর একই দাবিতে আন্দোলনে নামে ‘চট্টগ্রাম করদাতা সুরক্ষা পরিষদ’। ‘গলাকাটা হোল্ডিং ট্যাক্স আইন বাতিল করো/দৈর্ঘ্য-প্রস্থ গুণ করো তার ওপর কর ধরো।’- এই স্লোগান নিয়ে সংগঠনটি গত একমাস ধরে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছে।

 

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২২

 

X