alo
ঢাকা, সোমবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আ.লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য হলেন হাছান মাহমুদ

প্রকাশিত: ০৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ০৯:৪৮ পিএম

আ.লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য হলেন হাছান মাহমুদ
alo

 

নিউজনাউ ডেস্ক: বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদকে দলটির স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য হিসেবে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।

রবিবার (৪ সেপ্টেম্ব) দলটির দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রের ২৮ (১) ধারা অনুযায়ী দলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদকে স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য পদে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।

এর আগে ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের ২১ তম সম্মেলনে ১৯ সদস্যের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের নাম ঘোষণা করা হয়। এ কমিটিতে ছিলেন—দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ, কাজী জাফরউল্লাহ, মোহাম্মদ নাসিম, আব্দুর রাজ্জাক, মুহাম্মদ ফারুক খান, ওবায়দুল কাদের, রশিদুল আলম, মাহবুবউল আলম হানিফ, দীপু মনি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, আব্দুস সোবহান গোলাপ। পরে সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য রমেশ চন্দ্র সেনকে যুক্ত করা হয়। তাঁদের মধ্যে মোহাম্মদ নাসিম মারা গেছেন।

১৯৮৭ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রসায়নে মাস্টার্স করা এই রাজনীতিক দেশে-বিদেশে মোট তিন বিষয়ে মাস্টার্স ডিগ্রী ও পরিবেশ রসায়নে পিএইচডি ইন সায়েন্স ডিগ্রী অর্জন করেন। ১৯৮৯ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রসায়ন বিষয়ে মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন করা হাছান মাহমুদ ১৯৯৬ সালে বেলজিয়ামের ভ্রীজে ইউনিভার্সিটি অব ব্র্যাসেলস থেকে হিউম্যান ইকোলজি (পরিবেশ বিজ্ঞান) বিষয়ে মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন করেন। একই সালে বেলজিয়ামের আরেক নামকরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ইউনিভার্সিটি অব লিবহা দু ব্রাসেলস থেকে ইন্টারন্যাশনাল পলিটিক্স বিষয়ে মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন করেন তিনি।

২০০১ সালে বেলজিয়ামের লিম্বুর্গ ইউনিভার্সিটি সেন্ট্রাম থেকে পরিবেশ রসায়ন বিষয়ে পিএইচডি ডিগ্রী অর্জন করেন দেশের বর্তমান সময়ের মেধাবী রাজনীতিক ড. হাছান মাহমুদ। ১৯৯৩ সালে ব্রিজে ইউনিভার্সিটির সমস্ত বিদেশী ছাত্রদের স্টুডেন্ট ফোরাম ইন্টারন্যাশনাল স্টুডেন্টস এসোসিয়েশন অব ভিইউবি’র প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। পাশাপশি নির্বাচিত হন বেলজিয়াম আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। এসময় ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ আন্তর্জাতিক রাজনীতির সঙ্গে তার সুসম্পর্ক গড়ে উঠে।

ছাত্রজীবনে তিনি প্রথমে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে ১৯৭৭ সালে চট্টগ্রাম শহরের জামালখান ওয়ার্ড ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। ১৯৭৮ সালের শেষার্ধে চট্টগ্রাম সরকারী ইন্টারমিডিয়েট কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং ১৯৭৯ সালে চট্টগ্রামের সরকারি হাজী মহসিন কলেজ ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

১৯৮১ সালে ভর্তি হন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে। ১৯৮৬ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ১৯৮৭ সালে সামরিক শাসক এরশাদবিরোধী আন্দোলনের সময়ে তিনি গ্রেফতার হন। পরে ১৯৮৮ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন তুখোর বক্তা হাছান মাহমুদ। তাঁর সুদক্ষ নেতৃত্বের মাধ্যমে নব্বই দশকের শুরুতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের নির্বাচনে সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্য বিপুল বিজয় লাভ করেন।

বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাশ করে বেরিয়ে যাওয়ার কারণে সেই নিবার্চনে প্রার্থী হতে না পারলেও তিনিই ছিলেন সমস্ত প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠন ও ছাত্রদলের সমন্বয়ে গঠিত সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান। আশির দশকের শুরুতে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের শিক্ষা ও পাঠচক্র সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেন হাছান মাহমুদ। ১৯৯২ সালের শুরুর দিকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ চট্টগ্রাম উত্তর জেলা শাখার সর্বকনিষ্ঠ সদস্য মনোনীত হন হাছান মাহমুদ।

২০০৭ সালে ওয়ান-ইলেভেন পরবর্তী জরুরি অবস্থায় যখন আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনাকে সামরিক সমর্থিত সরকার গ্রেফতার করে তখন ড. হাছান মাহমুদ দলীয় সভাপতির মূখপাত্র হিসেবে অকুতোভয়ে কাজ করেন এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে দৃঢ় অবস্থান নেন। তিনি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কারারুদ্ধ শেখ হাসিনার পক্ষে গণমাধ্যমে সরব ভূমিকা পালন করে দেশজুড়ে পরিচিতি পান। তখন থেকেই তাঁর সাহসী ভুমিকা দলের সকল কর্মী ও সমর্থকদের কাছে প্রশংসিত হয়ে আসছে।

পরিবেশ সংরক্ষণ ও জলবায়ু পরিবর্তনজনিত ঝুঁকি মোকাবিলায় কাজ করে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে প্রশংসিত ড. হাছান মাহমুদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে খণ্ডকালীন শিক্ষকতা করছেন পরিবেশ বিজ্ঞান বিষয়ে। এর আগে পরিবেশ বিজ্ঞান ও বাংলাদেশ স্টাডিস বিষয়ে ইস্ট-ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি এবং নর্থ-সাউথ ইউনিভার্সিটিতে খণ্ডকালীন শিক্ষকতা করেন তিনি। ইউরোপীয়ান ইনস্টিটিউট ফর স্ট্রেটেজিক স্টাডিস, ব্রাসেলস, বেলজিয়ামে ভিজিটিং ফেলো এবং একাডেমিক বোর্ড মেম্বার হিসেবে কিছুদিন কাজ করেন হাছান মাহমুদ।

চট্টগ্রামের খ্যাতিমান আইনজীবী প্রয়াত নুরুচ্ছফা তালুকদারের জ্যেষ্ঠ সন্তান ড. হাছান মাহমুদের জন্ম ১৯৬২ সালের ৫ জুন চট্টগ্রামে। তার বাবা চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির সভাপতি এবং দুই মেয়াদে বৃহত্তর চট্টগ্রামের পাবলিক প্রচিকিউটর ছিলেন। ব্যক্তিগত জীবনে ড. হাছান মাহমুদ দুই কন্যা ও এক ছেলের জনক। রাজনীতি ও সামাজিক জীবনে অনেক বাধা-বিপত্তি মোকাবেলা করে আজকের অবস্থানে উঠে এসেছেন তিনি।

২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-৭ আসনে বিএনপির তৎকালীন হেভিওয়েট নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে প্রথমবার এমপি নির্বাচিত হন হাছান মাহমুদ। এরপর প্রথমে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এবং ৬ মাস পর পরিবেশ ও বন প্রতিমন্ত্রী এবং তিন বছরের মাথায় এই মন্ত্রণালয়ের পূর্ণমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন ড. হাছান মাহমুদ।

২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও তিনি এমপি নির্বাচিত হন এই আসন থেকে। গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-৭ সংসদীয় আসনে পুনরায় হ্যাট্রিক বিজয় অর্জন করেন হাছান মাহমুদ।

এরপর দ্বিতীয়বারের মতো গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্যমন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত হন ড. হাছান মাহমুদ। ২০১৪ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত বন পরিবেশ ও জলবায়ু বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপরিত দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

এর আগে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার ডাকে সাড়া দিয়ে দেশে ফিরে ২০০১ সালের জাতীয় নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সঙ্গে যুক্ত হন তিনি। এরপর ২০০১ সালের অক্টোবরে যোগ দেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর বিশেষ সহকারী হিসেবে। অল্পদিনের মধ্যেই ২০০২ সালে আওয়ামীলীগের সম্মেলনে তিনি দলের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পান। এক দশকেরও বেশি সময় ধরে সে দায়িত্ব পালন করেন ড. হাছান মাহমুদ। ২০০৮ সাল পর্যন্ত তিনি আওয়ামীলীগ সভানেত্রীর বিশেষ সহকারীর দায়িত্ব পালন করেন বিশ্বস্ততার সাথে। এরপর ড. হাছান মাহমুদ পরপর দুই কমিটিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন দক্ষতার সাথে। বর্তমানে যুগ্ম সম্পাদকের পাশাপাশি দলের অন্যতম মূখপাত্র হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

নিউজনাউ/আরবি/২০২২

X