alo
ঢাকা, সোমবার, ফেব্রুয়ারী ৬, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৩ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাকলিয়ার ‘নিরাপদ প্রসব সেন্টারে’ অপারেশন করতেন ধাত্রী!

প্রকাশিত: ২৫ জানুয়ারী, ২০২৩, ০৯:৪৯ পিএম

বাকলিয়ার ‘নিরাপদ প্রসব সেন্টারে’ অপারেশন করতেন ধাত্রী!
alo

 

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রামের বাকলিয়ার বউ বাজারের এলাকার সুবর্ণ আবাসিক এলাকায় রয়েছে একটি বেসরকারি ক্লিনিক। নাম ‘নিরাপদ প্রসব সেন্টার’। তবে ক্লিনিকের নামের সঙ্গে মিল নেই কাজের। অনিরাপদভাবেই সেখানে করানো হতো গর্ভবতী মায়েদের ডেলিভারি। কারণ, এই ক্লিনিকে ডাক্তার না থাকলে ধাত্রী নিজেই করতেন অপারেশন। সম্প্রতি এক প্রসূতি মায়ের মৃত্যুর ঘটনায় ওই ক্লিনিকে অভিযান চালায় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় ধাত্রী ফাহিমা শাহাদাতকে আটক করা হয়।

বুধবার (২৫ জানুয়ারি) দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত এ অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট প্রতীক দত্ত। অভিযানে ক্লিনিকের পরিচালক শাহাদাত হোসেনকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা ও ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। 

ম্যাজিস্ট্রেট প্রতীক দত্ত বলেন, ‘অভিযানে স্বাস্থ্য অধিদফতরের লাইসেন্স না থাকায় ক্লিনিকটির পরিচালক শাহাদাত হোসেনকে মেডিকেল প্র‍্যাকটিস এবং বেসরকারি ক্লিনিক ও ল্যাবরেটরি (নিয়ন্ত্রণ) অধ্যাদেশ ১৯৮২ অনুযায়ী ৫ হাজার টাকা জরিমানা এবং ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সেখানে ধাত্রী ফাহিমা শাহাদাতকে আটক করা হয়েছে। বিভিন্ন সময়ে তিনি ডাক্তারের উপস্থিতি ছাড়াই নিজে অপারেশন বা নরমাল ডেলিভারি করতেন।এ অপরাধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।’

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান বলেন, ‘আমরা শিশুমৃত্যু ও মাতৃমৃত্যু শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনতে কাজ করছি। চট্টগ্রামের কোনও জায়গায় এরকম অবৈধ হাসপাতাল বা ক্লিনিক গড়ে উঠতে দেওয়া হবে না। যেখানেই তথ্য পাওয়া যাবে সেখানেই অভিযান চালানো হবে।’

অভিযানে সহযোগিতা করেন চট্টগ্রামের ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মো. ওয়াজেদ চৌধুরী এবং বাকলিয়া থানা পুলিশের সদস্যরা।

প্রসঙ্গত, গত ১৩ জানুয়ারি ক্লিনিকটিতে নরমাল ডেলিভারি করানোর পর জান্নাতুল ফেরদৌস নিহা (২২) নামের একজন প্রসূতি মায়ের মৃত্যু ঘটে। এরপর নিহতের স্বজনদের অভিযোগের ভিত্তিতে ওই ক্লিনিকে অভিযান চালায় জেলা প্রশাসন।  

নিউজনাউ/আরএইচআর/২০২৩

X