alo
ঢাকা, রবিবার, ফেব্রুয়ারী ৫, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ২৩ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চসিকের সার্ভারে ‘শক্তিশালী চক্রের’ হানা, ১৫ দিনে ইস্যু ৫৫০ জন্মনিবন্ধন সনদ

প্রকাশিত: ২৩ জানুয়ারী, ২০২৩, ০২:৫৯ পিএম

চসিকের সার্ভারে ‘শক্তিশালী চক্রের’ হানা, ১৫ দিনে ইস্যু ৫৫০ জন্মনিবন্ধন সনদ
alo

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) বিভিন্ন ওয়ার্ডের জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের সার্ভার হ্যাক করেছে একটি ‘শক্তিশালী চক্র’। গত ১৫ দিনে পাঁচ ওয়ার্ড থেকে ৫৫০টি সনদ ইস্যু করেছে হ্যাকাররা। তবে, এসব নিবন্ধনের বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও জন্মনিবন্ধন সহকারীরা। এ ব্যাপারে থানায় জিডি করা হয়েছে, অবহিত করা হয়েছে রেজিস্ট্রার জেনারেল কার্যালয়কে। 

ইতোমধ্যে হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে ইস্যুকৃত সনদগুলো বাতিলেরও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। স্পর্শকাতর হওয়ায় তদন্ত শুরু করেছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট।

সোমবার (২৩ জানুয়ারি) বিকেলে এ বিষয়ে কাউন্সিলরদের সাথে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে চসিক মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরীর।

হ্যাকিংয়ের শিকার ওয়ার্ডগুলো হলো— ১১ নম্বর দক্ষিণ কাট্টলী (৪১২), ১৩ নম্বর পাহাড়তলী (১০), ৩২ নম্বর আন্দরকিল্লা (৪), ৩৮ নম্বর দক্ষিণ মধ্যম হালিশহর (৪০), ও ৪০ নম্বর উত্তর পতেঙ্গা (৮৪)।

জানা যায়, গত ৮ জানুয়ারি ৩৮ নম্বর দক্ষিণ মধ্যম হালিশহর ওয়ার্ডে ৪০টি জন্মনিবন্ধন সনদ ইস্যু করে হ্যাকাররা। এ ব্যাপারে পরদিন বন্দর থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন জন্মনিবন্ধন সহকারী মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন অপু।

কাউন্সিলর গোলাম মোহাম্মদ চৌধুরী জানান, তাঁর ওয়ার্ডের আইডি থেকে ৪০টি জন্মনিবন্ধন সনদ ইস্যু করা হয়েছে। এগুলোর কোনো তথ্য তাদের কাছে নেই। সিটি করপোরেশন, জেলা প্রশাসক ও মন্ত্রণালয়ে জানিয়েছেন। সেখান থেকে যেই নির্দেশনা দেবে তা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবেন।

১১ নম্বর দক্ষিণ কাট্টলী ওয়ার্ডের জন্মনিবন্ধন সহকারী রহিম উল্ল্যাহ বলেন, আগে এভাবে ৭১টি জন্মনিবন্ধন সনদ বের করা হয়েছিল। গতকাল (রবিবার) সকালে সার্ভারে ঢুকে দেখি আমাদের আইডি থেকে ৩৪১টি সনদ করা হয়েছে। যেগুলোর কোনো ডকুমেন্ট আমাদের কাছে নেই।

ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ ইসমাইল বলেন, দুই দফায় হ্যাক করে জন্মনিবন্ধন সনদ বের করার ঘটনায় থানায় জিডি করা হয়েছে। সিটি করপোরেশনসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। এটি কীভাবে হচ্ছে বুঝতে পারছি না।

সিটি করপোরেশনের আইটি কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইকবাল হাসান জানান, সার্ভারের নিয়ন্ত্রণ রয়েছে রেজিস্ট্রার জেনারেলের কার্যালয়ে। তাদের লিখিতভাবে জানানো হয়েছে। তবে এখনও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। তাদের আর কিছু করার ক্ষমতা নেই। এরপরও ১১ নম্বর ওয়ার্ডের মৃত্যু ও জন্মনিবন্ধন সাময়িক স্থগিত রাখা হয়েছে।

বন্দর জোনের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (কাউন্টার টেররিজম) আসিফ মহিউদ্দীন বলেন, জন্মনিবন্ধন সনদ বের করে নেওয়ার বিষয়গুলো আমাদের নজরে রয়েছে। খুব সম্ভবত কেন্দ্রীয়ভাবে শক্তিশালী কোনো চক্র এর পেছনে কাজ করছে। কারা করছে সেটি বের করার চেষ্টা করছি।

চসিক সচিব খালেদ মাহমুদ বলেন, সার্ভার হ্যাক করে বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে জন্মনিবন্ধন সনদ বানিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পেয়েছি। জালিয়াতি করে তৈরি করা সনদগুলো বাতিলের জন্য রেজিস্ট্রার জেনারেলকে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, ‘হ্যাক করে যেসব জন্মনিবন্ধন সনদ ইস্যু করার কথা বলা হচ্ছে; সেগুলো বাতিল করা হবে। বিষয়টি নিয়ে পুলিশ কাজ করছে। হ্যাকারদের শনাক্ত করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

উল্লেখ্য, এর আগে ২০২১ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি চসিকের জন্মনিবন্ধন আইডি প্রথম হ্যাক করা হয়। ওইদিন দেশের জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের অফিসিয়াল সার্ভারের আপগ্রেডেশনের কাজ চলার সময় হ্যাক করে ৪০ নম্বর উত্তর পতেঙ্গা, ৬ নম্বর চকবাজার এবং ৪১ নম্বর দক্ষিণ পতেঙ্গা ওয়ার্ড কার্যালয়ের নাম ব্যবহার করে ১৮টি জন্মনিবন্ধন সনদ ইস্যু করা হয়। এর মধ্যে ১২টি ছিল রোহিঙ্গার নামে। এ ঘটনায় পতেঙ্গা ও চকবাজার থানায় পৃথক তিনটি মামলা করেন সংশ্লিষ্ট জন্মনিবন্ধন সহকারীরা। 

নিউজনাউ/আরএইচআর/পিপিএন/২০২৩

X