alo
ঢাকা, মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দেশের প্রথম ৬ লেনের মধুমতি সেতু উদ্বোধন কাল

প্রকাশিত: ০৯ অক্টোবর, ২০২২, ১১:৪২ এএম

দেশের প্রথম ৬ লেনের মধুমতি সেতু উদ্বোধন কাল
alo

 

নড়াইল প্রতিনিধি: গোপালগঞ্জের কালনা পয়েন্টে নির্মাণাধীন কালনা সেতুর (মধুমতি সেতু) নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। দৃষ্টিনন্দন এ সেতু বাংলাদেশের প্রথম ছয় লেনের এবং সবচেয়ে বড় ধনুকের মতো বাঁকা সেতু।


সোমবার (১০ অক্টোবর) সকালে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি মধুমতি সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেতুটি উদ্বোধন হলে দেশের ১০ জেলা তথা দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলবাসীর আরেকটি স্বপ্নপূরণ হবে।

সেতু কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নড়াইল জেলার সীমান্তবর্তী এলাকা লোহাগড়া উপজেলার কালনা। অপরপ্রান্তে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার শংকরপাশা। মাঝ দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে মধুমতি নদী। এ নদীর ওপরই নির্মিত হয়েছে দেশের প্রথম ছয় লেনের দৃষ্টিনন্দন মধুমতি সেতু। 

২০১৫ সালের ২৪ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মধুমতি সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। ২০১৮ সালের ৫ সেপ্টেম্বর নির্মাণ কাজ শুরু করে জাপান ইন্টারন্যাশনাল করপোরেশন এজেন্সির (জাইকা) সহযোগিতায় ও দেশীয় অর্থে সেতুটি নির্মাণ করছে জাপানের টেককেন করপোরেশন ওয়াইবিসি জেভি কোম্পানি ও বাংলাদেশের আব্দুল মোনেম লিমিটেড। মধুমতি সেতু উদ্বোধনের মাধ্যমে শেষ হবে কালনা ফেরি ঘাটের দীর্ঘদিনের জন দুর্ভোগ। 

পদ্মা সেতু চালু হলেও এ সেতুটি চালু না হওয়ায় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ পদ্মা সেতুর সুফল পুরোপুরি ভোগ করতে পারছিল না। এ সেতুটি চালুর মধ্য দিয়ে সমগ্র বাংলাদেশের সঙ্গে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যাতায়াতের আর কোনো প্রতিবন্ধকতা থাকবে না বলেই আশা স্থানীয়দের।

এ সেতুর কারণে ঢাকা-চট্টগ্রামসহ সারাদেশের সঙ্গে বেনাপোল বন্দরের যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হবে। এতে সমগ্র বাংলাদেশের সঙ্গে বাড়বে আর্ন্তজাতিক বাণিজ্যের প্রসার।

মধুমতী সেতু প্রকল্পের কর্মকর্তারা জানান, সেতুর মাঝখানে বসানো হয়েছে ১৫০ মিটার দীর্ঘ স্টিলের স্প্যান। নেলসন লোস আর্চ টাইপের (ধনুকের মতো বাঁকা) এ স্প্যানটি তৈরি হয়েছে ভিয়েতনামে। ওই স্প্যানের উভয় পাশের অন্য স্প্যানগুলো পিসি গার্ডারের (কংক্রিট)।

ছয় লেনের এ সেতু হবে এশিয়ান হাইওয়ের অংশ। চারটি মূল লেনে দ্রুতগতির ও দুটি লেনে কম গতির যানবাহন চলাচল করবে। সেতুর দৈর্ঘ্য ৬৯০ মিটার ও প্রস্থ ২৭ দশমিক ১০ মিটার। উভয় পাশে সংযোগ সড়ক ৪ দশমিক ২৭৩ কিলোমিটার, যার প্রস্থ ৩০ দশমিক ৫০ মিটার। সেতু নির্মাণে মোট ব্যয় হবে ৯৫৯ দশমিক ৮৫ কোটি টাকা।

সেতু কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সেতুটি উদ্বোধনের পর যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে। সেতুর টোল হার নির্ধারণ করা হয়েছে বড় ট্রেইলার ৫৬৫ টাকা, তিন বা ততোধিক এক্সসেল বিশিষ্ট ট্রাক ৪৫০ টাকা, দুই এক্সসেল বিশিষ্ট মিডিয়াম ট্রাক ২২৫ টাকা, ছোট ট্রাক ১৭০ টাকা, কৃষি কাজে ব্যবহৃত পাওয়ার ট্রিলার ও ট্রাক্টর ১৩৫ টাকা, বড় বাসের ক্ষেত্রে ২০৫ টাকা, মিনিবাস বা কোস্টার ১১৫ টাকা, মাইক্রোবাস, পিকআপ, কনভারশনকৃত জিপ ও রে-কার ৯০ টাকা, প্রাইভেটকার ৫৫ টাকা, অটো টেম্পু, সিএনজি অটোরিকশা, অটোভ্যান ও ব্যাটারিচালিত তিন চাকার যান ২৫ টাকা, মোটরসাইকেল ১০ টাকা এবং রিক্সা, ভ্যান ও বাইসাইকেল ৫ টাকা। 

নিউজনাউ/আরবি/২০২২
 

X