করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১০৯ সাংসদ

নিউজনাউ ডেস্ক: রাজশাহী-২ আসনের সাংসদ ফজলে হোসেন বাদশা হঠাৎ জ্বর আসার কারণে করোনার নমুনা পরীক্ষা করান । ১৪ এপ্রিল নমুনা পরীক্ষার ফল পাওয়ার পর জানতে পারেন, তিনি করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন।

জাতীয় সংসদ সদস্যদের মধ্যে সর্বশেষ করোনায় আক্রান্ত হলেন ফজলে হোসেন বাদশা।

সংসদ সচিবালয় ও দলীয় সূত্রে জানা গেছে, এ পর্যন্ত অন্তত ১০৯ জন সাংসদ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে চারজন মারা গেছেন। আর মন্ত্রিসভার সদস্যদের মধ্যে আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ সদস্য, এর মধ্যে একজন মারা গেছেন। আক্রান্তদের মধ্যে সংরক্ষিত নারী আসনের সাংসদ ১২ জন।

উল্লেখ্য,সংরক্ষিত ৫০ জনসহ সংসদের সদস্য মোট ৩৫০ জন।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত বছরের ১৩ জুন মারা যান আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, সাবেক মন্ত্রী ও সিরাজগঞ্জ-১ আসনের সাংসদ মোহাম্মদ নাসিম। একইদিনে মারা যান টেকনোক্র্যাট কোটায় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহ। আর জুলাইয়ে মারা যান নওগাঁ-৬ আসনের সাংসদ ইসরাফিল আলম। সর্বশেষ ১৪ এপ্রিল মারা গেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কুমিল্লা-৫ আসনের সাংসদ আবদুল মতিন খসরু। এর আগে গত মাসে মারা যান সিলেট-৩ আসনের সাংসদ মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী।

সরকার দেশে গত বছরের ৮ মার্চ প্রথম করোনার সংক্রমণ শনাক্তের কথা জানায়। আর সাংসদদের মধ্যে প্রথম করোনায় সংক্রমিত হন নওগাঁ-২ আসনের সাংসদ ও সংসদের হুইপ শহীদুজ্জামান সরকার। গত বছরের ৩০ এপ্রিল তাঁর করোনা শনাক্ত হয়। এরপর গত নভেম্বরে তিনি দ্বিতীয়বার আক্রান্ত হন। তাঁর মতো আরও দুজন সাংসদ দুবার করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁরা হলেন টাঙ্গাইল-২ আসনের ছোট মনির ও সিরাজগঞ্জ-১ আসনের সাংসদ তানভীর শাকিল জয়।

গত বছরের ১২ নভেম্বর উপনির্বাচনে অংশ নিয়ে ঢাকায় ফেরার পর নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয় সাংসদ তানভীর শাকিলের। এরপর চলতি বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি তিনি করোনার প্রথম ডোজ টিকা নেন। দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার আগেই ৫ এপ্রিল তাঁর আবার করোনা শনাক্ত হয়।

সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র বলছে,” গত বছরের এপ্রিল ও মে মাসে একজন করে সাংসদের করোনা শনাক্ত হয়। এরপর জুনে এটি বেড়ে দাঁড়ায় ১৬ জনে। জুলাইয়ে ৬ ও আগস্টে ১১ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এরপর সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে ৫ জন করে শনাক্ত হলেও নভেম্বরে সর্বোচ্চ ২২ জনের করোনা শনাক্ত হয় ।এরপর টানা তিন মাস এটি কমতে থাকে। ডিসেম্বরে ৮ জন, জানুয়ারিতে ৩ ও ফেব্রুয়ারিতে ৬ জন সাংসদের করোনা শনাক্ত হয়। এ বছরের মার্চে দেশে করোনা সংক্রমণ বাড়তে শুরু করলে ১৪ জন সাংসদ আক্রান্ত হন এতে। আর চলতি মাসে ইতিমধ্যে আক্রান্ত হয়েছেন ১১ জন।”

সংসদ সচিবালয় সূত্র বলছে, “প্রতিটি সংসদ অধিবেশনের আগে সবার করোনা পরীক্ষা করাটা বাধ্যতামূলক। এতে দেখা গেছে, উপসর্গ ছাড়াও অনেকের করোনা শনাক্ত হয়েছে।গত ২৫ মার্চ নমুনা পরীক্ষা করার পর ২৬ মার্চ করোনা শনাক্তের তথ্য পান গাজীপুর-৪ আসনের সাংসদ সিমিন হোসেন রিমি। নির্বাচনী এলাকায় নিয়মিতভাবে করোনায় আক্রান্তদের পাশে থেকে এক বছর ধরে কাজ করেছেন তিনি।

নিউজনাউ/এসজেএম/২০২১

 

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
মন্তব্য
Loading...
%d bloggers like this: