ভাইরাস দমনে ‘আইভারমেকটিন’ সেবন ‘প্লাজমার’ চেয়ে বেশি কার্যকর

নিউজনাউ ডেস্ক: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার(ডব্লিউএইচও) এক গবেষণায় দেখা গিয়েছে, অ্যান্টি-প্যারাসাইটিক ওষুধ আইভারমেকটিন প্রয়োগে কোভিড আক্রান্তদের মৃত্যুহার ৭৫ শতাংশ পর্যন্ত কমানো সম্ভব।

আন্তর্জাতিক পর্যায়ের ২৯টি সংস্থার বিশেষজ্ঞরা এ গবেষণা চালিয়েছেন। এর মধ্যে বাংলাদেশের আইসিডিডিআর,বি, বারডেম ও ঢাকা মেডিকেল কলেজের বিশেষজ্ঞরাও ছিলেন। দৈবচয়নভিত্তিক পরীক্ষায় পাওয়া ফলাফল মেটা অ্যানালাইসিস বা সমন্বিত পর্যালোচনার ভিত্তিতে প্রকাশ হয়েছে।

গবেষণা প্রতিবেদন লিখেছেন যুক্তরাজ্যভিত্তিক ইউনিভার্সিটি অব লিভারপুলের ফার্মাকোলজি বিভাগের ড. অ্যান্ড্রু হিল। প্রতিবেদনের ভাষ্যমতে, আইভারমেকটিন প্রয়োগে কভিডে মারাত্মকভাবে আক্রান্ত রোগীর মৃত্যুঝুঁকি ৭৫ শতাংশ কমানো সম্ভব।

তাদের পর্যবেক্ষণে উঠে আসে, ভাইরাস দমনের ক্ষেত্রে আইভারমেকটিন সেবন প্লাজমার চেয়েও বেশি কার্যকর। এছাড়া এখনো এর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া চিহ্নিত হয়নি। প্রতিবেদনের ভাষ্যমতে, ২৭টি দেশের ২ হাজার ২৮২ জন কভিড-১৯ রোগীর ওপর এ গবেষণা পরিচালিত হয়। হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের ওপর চালানো গবেষণার ফলাফলে দেখা যায়, আইভারমেকটিন অবিশ্বাস্য দ্রুততম সময়ে করোনার আক্রমণ থেকে ফুসফুসকে রক্ষা করতে সক্ষম।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে এখনো অনেক ভ্যাকসিন নিয়ে গবেষণা হচ্ছে। এরই মধ্যে অনেক ভ্যাকসিন বাজারে এসেছে। এর অনেকগুলোই প্রয়োগ করা হচ্ছে মানবদেহে। আবার অনেক ভ্যাকসিন এখনো বাজারজাত করা হয়নি। সেগুলো পরীক্ষামূলক প্রয়োগের বিভিন্ন পর্যায়ে রয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনো ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা শতভাগ বলে প্রমাণিত হয়নি। এক্ষেত্রে আইভারমেকটিন পুরোপুরি ব্যতিক্রম। এমনকি টিকা নেয়া ব্যক্তিরাও ওষুধটি সেবন করতে পারেন। অর্থাৎ, টিকা গ্রহণ ও আইভারমেকটিন সেবন সাংঘর্ষিক নয়।

নিউজনাউ/টিএন/২০২১

 

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
মন্তব্য
Loading...
%d bloggers like this: