পেপ গার্দিওলার স্বস্তি মিলল শেষ পাঁচ মিনিটে

নিউজনাউ ডেস্ক: পেপ গার্দিওলার অধীনে গত চার মৌসুমে একটি বারের জন্যও কোয়ার্টার ফাইনালের মুখ দেখেনি ম্যাঞ্চেস্টার সিটি । সে বাঁধা এবার পেরোতে বদ্ধপরিকর হয়ে গাটছাট বেঁধে মাঠে নামালেন তার দলকে। যদিও প্রথমে জয়ের ছাপনা মিললেও শেষ সময়ের গোলে , বলের দখলে এগিয়ে থাকল দলটি।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এলেই যেন পথ হারিয়ে ফেলেছে তার সাবেক দল বার্সেলোনা, বায়ার্ন মিউনিখ কিংবা বর্তমান দল ম্যানচেস্টার সিটি। অবশেষে বরুশিয়া ডর্ট মুন্ডকে ২-১ গোলে হারিয়ে শেষ চারে উঠে আসলো ইংলিশ দলটি।

প্রথম সুযোগটা অবশ্য আসে ডর্টমুন্ডের সামনেই। দুরূহ কোণ থেকে করা জুড বেলিংহামের দারুণ শটটা ফিরিয়ে সিটিকে বিপদমুক্ত করেন গোলরক্ষক এডারসন। মাত্র এক গোলের ব্যবধান, তার ওপর হজম করে আছে মহামূল্য অ্যাওয়ে গোলও।

শট প্রথমে হজম করলেও প্রথম সাফল্যটা পেয়েছিল সিটিই। ১৯ মিনিটে আক্রমণের শুরুটা হয় কেভিন ডি ব্রুইনার সুবাদে। একটু এগিয়ে এসে বক্সে বল বাড়ান ফোডেনকে, সেখান থেকে বল যায় রিয়াদ মাহরেজের কাছে। তার কাটব্যাক থেকে গোলটা করেন সেই ডি ব্রুইনা।

৩০ মিনিটে একটা পেনাল্টি পেতে পেতেও পায়নি সিটি, এমরে কানের চ্যালেঞ্জে রদ্রি পড়ে যান বক্সে, প্রথমে পেনাল্টি দিলেও ভিএআর দেখে সিদ্ধান্ত বদলান রেফারি।

সম্পর্কিত পোস্ট

এরপর একটা সিদ্ধান্ত এসেছে সিটির পক্ষেও। জুড বেলিংহামের চেষ্টা জালে জড়ালেও ভিএআরে বাতিল হয় তা, গোলের আগে সিটি গোলরক্ষককে ফাউলের অপরাধে।

বিরতির পর যেন ক্রমেই ফিকে হচ্ছিল ডর্টমুন্ড। তবে ৮৪ মিনিটে এক ঝলকে প্রাণ ফেরে দলটিতে। আর্লিং হালান্ডের পাস থেকে ডর্টমুন্ডকে সমতায় ফেরান মার্কো রয়েস। সিটি কোচ পেপ গার্দিওলার তখন দিশেহারা।

ঠিক তখন, সিটি পুনরায় ফিরেছে পাঁচ মিনিটে (৮৪-৮৯)। এ গোলেও আছে অধিনায়ক ডি ব্রুইনার কারিশমা। তারই ক্রস বক্সে খুঁজে পায় ইলকায় গুন্দোয়ানকে। সহজ এক গোলে সিটিকে লড়াইয়ে আবারও এগিয়ে দেন ইংলিশ মিডফিল্ডার।

১৪ এপ্রিল ডর্টমুন্ডের সিগনাল ইদুনা পার্কের ফিরতি লেগটা নিয়ে চিন্তিত আপাতত সিটি বলে নিশ্চিত করেছেন দলটি।

নিউজনাউ/এসএইচ/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
মন্তব্য
Loading...
%d bloggers like this: