করোনাকালেও মালদ্বীপ শীর্ষ ট্যুরিস্ট স্পট

নিউজনাউ ডেস্ক: করোনায় যখন কোথাও স্বস্তির ছোঁয়া নেই, যখন ঘর থেকে বের হওয়াই ঝুঁকিপূর্ণ, যেখানে বিদেশ ভ্রমণে রয়েছে নিষেধাজ্ঞা ! ঠিক তখন মালদ্বীপ বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ট্যুরিস্ট স্পটে পরিণত হয়েছে। বেশ কয়েকদিন ধরেই মালদ্বীপ উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাংলাদেশি পর্যটক লক্ষ্য করা যাচ্ছে। হবে না কেন, ঢাকা থেকে মালদ্বীপে যায় প্রতিদিন তিনটি ফ্লাইট। করোনায় যখন তাহিতি, বালি, ফুকেটের মতো পর্যটন দ্বীপঅঞ্চলগুলো বন্ধ ছিলো, তখন সুযোগটা ভালোভাবে কাজে লাগিয়েছে মালদ্বীপ। এক্ষেত্রে আর্থিক বিষয়টা অনেকাংশেই গুরুত্বপূর্ণ ছিলো। মিশিগান স্টেট ইউনিভার্সিটির তথ্য মতে মালদ্বীপের জিডিপিতে ২৮ শতাংশ অবদান রাখে পর্যটন খাত, যা বিশ্বে খুব কম দেশেই দেখা যায়।

বিভিন্ন দেশে করোনায় সতর্কতা হিসেবে বেশ কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছিলো। যেমন- থাইল্যান্ড ও শ্রীলংকায় গেলে সেখানে হোটেলে দুই সপ্তাহ বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে থেকে এরপর দেশ দুটির অন্য স্থানে যাওয়ার সুযোগ দেওয়া হতো। এক্ষেত্রে মালদ্বীপ কোনও কড়া বিধিনিষেধ আরোপ করেনি। শুধুমাত্র পর্যটকদের কোভিড নেগেটিভ রিপোর্ট দেখালেই মিলেছে মালদ্বীপ ভ্রমণের সুযোগ।

ভ্রমণ পিয়াসী মানুষরা মালদ্বীপকে রোমান্টিক শহরে আক্ষ্যায়িত করে থাকেন। তাই বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নানা বয়সী মানুষ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে ছুটে যান সেখানে। প্রতি বছর মালদ্বীপে প্রায় ২০ লাখ পর্যটক সমাগম হয়। কোভিডের কারণে গত বছরে সেই সংখ্যা ৫ লাখে নেমে এলেও বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় পর্যটন স্পটের তালিকায় ঠিকই উপরের দিকে ছিলো মালদ্বীপ।

অনেক রিসোর্ট তুলনামূলক কম খরচে মাসব্যাপী পর্যটকদের থাকার সুযোগও করে দেয়। যেমন ২৮ দিনের জন্য চার সদস্যের পরিবারের কাছ থেকে খাবার, হাই স্পিড ইন্টারনেট ও বেশ কিছু সুবিধাসহ থাকার জন্য ৪২ হাজার ৬০০ ডলারের মতো নেওয়া হতো।

নিউজনাউ/এসএ/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
মন্তব্য
Loading...
%d bloggers like this: