করোনায় ধনী-গরিব সবার এখন দুবাইমুখী

নিউজনাউ ডেস্ক: অনেকদিন ধরেই দেশের উচ্চবিত্তদের অবকাশ যাপন ও চিকিৎসার উদ্দেশ্যে সবচেয়ে বড় গন্তব্য হিসেবে বিবেচিত ছিল সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশগুলো।

তবে করোনা সংক্রমণ প্রেক্ষাপটে বদলে গেছে সব হিসাব।ভিসা জটিলতায় প্রচলিত গন্তব্যগুলোয় যেতে পারছেন না উচ্চবিত্তরা।এ কারণে তারা বিকল্প হিসেবে বেছে নিয়েছেন দুবাইকে।এ প্রবণতা দেখা যাচ্ছে মধ্য ও নিম্নবিত্তদের মধ্যেও।

যদিও এক্ষেত্রে উদ্দেশ্য ভিন্ন। বিশেষ করে নিম্নবিত্তদের। কর্মহীন ও স্বল্প আয়ের মানুষগুলো ভ্রমণ ভিসা নিয়ে দুবাই পাড়ি দিচ্ছেন মূলত অবৈধভাবে অবস্থান করে কাজের উদ্দেশ্যে।

ভিসা প্রক্রিয়াকরণ সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দুবাইয়ে চিকিৎসা সেবাগ্রহীতাদের যাতায়াত শুরু হয় গত বছর আগস্টে। পরবর্তী সময়ে গত অক্টোবর থেকে ভিজিট ভিসা দেয়া শুরু করে দুবাই। সে সময় থেকেই উচ্চবিত্তরা অবকাশ যাপনের জন্য বেছে নিতে শুরু করেন দুবাইকে। তবে ভিজিট ভিসা প্রাপ্তি সহজ হওয়ার সুযোগে প্রতারণায় নেমে পড়ে একশ্রেণীর দালাল চক্র। সাধারণ মানুষকে উন্নত চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে বাংলাদেশ থেকে প্রতিদিনই ওয়ার্ক ভিসার পরিবর্তে ভিজিট ভিসার মাধ্যমে ইউএইতে পাঠানো হচ্ছে।

করোনার কারণে গত বছর মার্চের মাঝামাঝি থেকেই বন্ধ হয়ে গিয়েছিল আকাশপথে নিয়মিত যোগাযোগ। সেই সঙ্গে বন্ধ হয়ে যায় ট্যুরিজমও। তবে গত জুনে সংযুক্ত আরব আমিরাতের এয়ারলাইনস বাংলাদেশে বাণিজ্যিক ফ্লাইট শুরু করে। প্রথমদিকে ট্রানজিট যাত্রী পরিবহন করলেও পরবর্তী সময়ে ভ্রমণ ও চিকিৎসা ভিসায় বাংলাদেশীদের প্রবেশাধিকার দিতে শুরু করে দুবাই। এর পর থেকেই অবকাশ যাপন ও চিকিৎসা সেবা নিতে উচ্চবিত্তরা দেশটিতে যেতে শুরু করেন।

অভিযোগ রয়েছে, মূলত দালালদের প্রতারণার ফাঁদে পড়েই অবৈধ অভিবাসনের পথে পা বাড়াচ্ছেন তারা।

উল্লেখ্য, স্বাভাবিক সময়ে ভারত, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ায় প্রতি বছর প্রায় ১২ লাখ বাংলাদেশী রোগী চিকিৎসার জন্য যায়। ২০১৭ সালেই মেডিকেল ভিসায় ভারতে চিকিৎসা নিয়েছে ২ লাখ ২১ হাজার ৭৫১ জন বাংলাদেশী।

 

 

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
এছাড়া, আরও পড়ুনঃ
মন্তব্য
Loading...
%d bloggers like this: