৪ মার্চ টাকা দিবস

নিউজনাউ ডেস্ক: নিজস্ব নোট ও মুদ্রা একটি স্বাধীন দেশের সার্বভৌমের প্রতীক। ১৯৭২ সালের ৪ মার্চ স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম দুটি ব্যাংক নোট প্রকাশিত হয়, যার মূল্যমান ছিল ১ ও ১০০ টাকা।

এর আগে এদেশে পাকিস্তানের ব্যাংক নোট প্রচলিত ছিল এবং মুদ্রার নাম ছিল রুপি। স্বাধীন বাংলাদেশের মুদ্রার নাম রাখা হয় টাকা।

৪ মার্চ ১৯৭২ তারিখে প্রকাশিত দুটি ব্যাংকনোট ভারতের নাসিক প্রিন্টার্স থেকে ছাপানো হয়। ১ টাকার নকশায় বাংলাদেশের মানচিত্রের ছবি ও গণপ্রজাতন্ত্রী ‘বাংলাদেশ’ লেখা এবং অর্থ সচিব কে এ জামান স্বাক্ষরিত।

অন্যদিকে ১০০ টাকার নকশায় বাংলাদেশের মানচিত্র ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি এবং বাংলাদেশ ব্যাংক উল্লেখ করা হয়। ১০০ টাকার ব্যাংকনোটটি তত্কালীন বাংলাদেশ ব্যাংক গভর্নর এ. এন. হামিদ উল্ল্যাহ স্বাক্ষরিত।

এ বছর স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপিত হতে যাচ্ছে। স্বাধীনতার ৫০ বছরে আজকের এই বিশেষ দিনটি কেউ বিশেষভাবে উদযাপন করেনি। আর তাই বাংলাদেশের প্রথম ও একমাত্র ব্যাংকনোট এবং মুদ্রা বিষয়ক তথ্য ও গবেষণাধর্মী ত্রৈমাসিক মুখপাত্র ‘কালেক্টার’-এর পক্ষ থেকে দিনটিকে ‘টাকা দিবস’ হিসেবে উদযাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

কালেক্টার, বাংলাদেশের প্রথম ও একমাত্র ব্যাংকনোট এবং মুদ্রা বিষয়ক তথ্য ও গবেষণাধর্মী পত্রিকা। বাংলাদেশের প্রথম কাগজি টাকা প্রচলনের ঐতিহাসিক দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে কালেক্টার প্রথমবারের মতো ৪ মার্চকে ‘টাকা দিবস’ হিসেবে উদযাপন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এই বিশেষ দিনটি উপলক্ষে কালেক্টার পরিবার রাজধানীর ফার্মগেটে ৬৮ কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভিনিউতে আগামী ৪ ও ৫ মার্চ (বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার) দুই দিনব্যাপী বর্ণাঢ্য সংগ্রাহক মহাসমাবেশের আয়োজন করেছে।

নিউজনাউ/ টিপিএম/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
মন্তব্য
Loading...
%d bloggers like this: