প্রধানমন্ত্রীর কান্না ও মিষ্টি বিতরণ

আতিয়ার পারভেজ:
হুইসেল আর বাজবে না। সরকারি পাটকল শ্রমিকদের দরজা বন্ধ হয়ে গেল। নোটিশ দেয়া হয়েছে গোল্ডেন হ্যান্ডশেকের। চাপা কান্না বইছে শ্রমিক পরিবারগুলোতে। অনিশ্চিত ভবিষ্যতের কথা ভেবে অনেকে বেহুশ হন। এলাকা ছাড়ছেন অনেকে। গন্তব্য গ্রামের বাড়ি। শ্রমিকদের কষ্টের কথা জানেন প্রধানমন্ত্রী। তাই মিল বন্ধের ঘোষণায় তিনি কেঁদেছেন। শ্রম প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান জানান এ কান্নার কথা। প্রধানমন্ত্রী শ্রমিকদের আশ্বস্ত করেছেন। মিলগুলিকে আধুনিকায়নের কথা বলেছেন। আবার চালু হবে পিপিপির ভিত্তিতে। সেখানে কাজে ফিরবে তারা।

টানা লোকসান গুনেছে সরকারি পাটকল। যে কারণে বন্ধ করে দিয়েছে সরকার। বৃহস্পতিবার রাতে ঝুলানো হয় বন্ধের নোটিশ। তখন শ্রমিক উপস্থিতি ছিল নগণ্য। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অবস্থান ছিল লক্ষণীয়। মিল রক্ষার দাবিতে আন্দোলনরত শ্রমিকদের দেখা যায়নি। কারণ তারা আগেই জেনে গিয়েছিল খবর। এখনও তাদের আনুষ্ঠানিক বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এমন পরিস্থিতিতে আনন্দ মিছিল হয়েছে। হয়েছে মিষ্টি বিতরণ। যেখানে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী কাঁদলেন। শ্রমিক কষ্টের কথা ভেবে। সেখানে খুলনায় মিষ্টি খাওয়া খায়ি হলো। যার সাথে শ্রমিকদের মূল স্রোত নেই। কষ্টের খবরে মিষ্টিমুখ। তাও প্রশাসনের সামনে হল। এ খবর প্রধানমন্ত্রী কিভাবে নিয়েছেন? এমন প্রশ্ন কাজ হারানো শ্রমিকদের।

লেখক: গণমাধ্যমকর্মী

নিউজনাউ/এবি/২০২০

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: