বিপৎসীমার উপরে যমুনার পানি, দুর্ভোগে মানুষ

হারুন অর রশিদ খান হাসান, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি:
গত দুইদিন ধরে সিরাজগঞ্জে যমুনা নদীর পানি ধীরগতিতে কমতে শুরু করেছে। পানি কিছুটা কমলেও টানা আটদিন ধরে বিপৎসীমার ওপর দিয়েই বইছে যমুনা নদীর পানি। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন জেলার পাঁচটি উপজেলা সিরাজগঞ্জ সদর, কাজিপুর, বেলকুচি, চৌহালী ও শাহজাদপুর উপজেলার বানভাসি পানিবন্দী লাখো মানুষ।

বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ, উঁচু স্থান ও স্কুল ঘরে আশ্রিত বানভাসি মানুষ এবং বন্যা কবলিত এলাকার বসতবাড়িতে থাকা পানিবন্দী মানুষদের শুকনো খাবার, বিশুদ্ধ পানি, পয়ঃনিস্কাশন সমস্যা ও গো-খাদ্যের সংকট দেখা দিয়েছে।

পানি কমার সাথে সাথে নানা দুর্ভোগের মধ্যেও আরও ভাঙন আতঙ্কে নির্ঘুম রাত পোহাচ্ছেন যমুনাপাড়ের মানুষেরা।

অন্যদিকে বন্যায় যমুনা নদী তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল ও চরাঞ্চলের কৃষকের পাট, তিল, আখ, বাদাম, ভুট্টা ও সবজি খেতের ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা করছেন কৃষকেরা। অনেকের ফসলের খেত পানিতে সম্পূর্ণ নিমজ্জিত হয়ে যাওয়ায় ফসলহানীর শঙ্কায় চিন্তিত কৃষকেরা।

সিরাজগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক ( ডিডি) মো. হাবিবুল হক নিউজনাউকে জানিয়েছেন, জেলার বন্যা কবলিত পাঁচটি উপজেলার ১১ হাজার ১৭ হেক্টর জমির পাট, তিল ও আখ পানিতে ডুবে ক্ষতি হয়েছে।

রবিবার (৫ জুলাই) সকালে সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী এ কে এম রফিকুল ইসলাম নিউজনাউকে জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় যমুনা নদীর পানি সিরাজগঞ্জের কাজিপুর পয়েন্টে ১৩ সেন্টিমিটার কমে রবিবার ( ৫ জুলাই) সকালে বিপৎসীমার ৪৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

একই সময় সিরাজগঞ্জ শহর রক্ষা বাঁধের হার্ডপয়েন্ট ১১ সেন্টিমিটার কমে বিপৎসীমার ২৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

ব্রহ্মপুত্র যমুনা নদী সমূহের পানি সমতল ধীরগতিতে হ্রাস পাচ্ছে যা আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে বলে জানিয়েছে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

নিউজনাউ/এফএফ/২০২০

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: