করোনা আইসোলেশন সেন্টার জনগণের আস্থায় পরিণত হয়েছে: নওফেল

চট্টগ্রাম ব্যুরো: শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেছেন, ‘করোনা আইসোলেশন সেন্টার জনগণের মনে আস্থা তৈরি করতে পেরেছে। চিকিৎসা পেতে সাধারণ মানুষ সেখানে যাচ্ছে। এই ধরনের উদ্যোগ আমাদের করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধে জয়ী করবে।’ ‘তবে এই যুদ্ধে সম্পূর্ণ জয়ী হতে হলে সবাইকে বিশ্ব স্বাস্থ্যসংস্থার নির্দেশনা ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে। নিরাপদ দূরত্ব মেনে এবং মাস্ক পরার কথা বলেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) নগরের চট্টগ্রাম করোনা আইসোলেশন সেন্টারে চিকিৎসা সরঞ্জাম প্রদান অনুষ্ঠানে এ মন্তব্য করেন নওফেল।

চট্টগ্রামের প্রেসিডেন্সি ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের উদ্যোগে নগরের হালিশহরে স্থাপিত করোনা আইসোলেশন সেন্টারের রোগীদের অত্যাধুনিক এক্স-রে মেশিন দেওয়া হয়।

প্রেসিডেন্সি ইন্টারন্যাশনাল স্কুল পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান আশরাফ এইচ খান স্বপনের সভাপতিত্বে এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মো. মিজানুর রহমান, জেলা সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি, চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আলতাফ হোসেন বাচ্চু, সিএমপির পাঁচলাইশ জোনের এসি দেবদূত মজুমদার।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন পাঁচলাইশ থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল কাসেম, প্রেসিডেন্সি ইন্টারন্যাশনাল স্কুল পরিচালনা পর্ষদের সম্মানিত ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. গোলজার আলম আলমগীর, পরিচালক প্রফেসর ড. আমির মুহাম্মদ নসরুল্লাহ বাহাদুর, স্কুল উপাধ্যক্ষ ই ইউ এম ইনতেখাব, ফিরোজ চৌধুরী, মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন, পাঁচলাইশ আবাসিক এলাকা কল্যাণ সমিতির সেক্রেটারি আবু সাঈদ সেলিম।

করোনা আইসোলেশান সেন্টারের পক্ষে এক্স-রে মেশিনটি গ্রহণ করেন মো. সাজ্জাদ হোসেন, অ্যাডভোকেট জিনাত সোহানা চৌধুরী, নুরুল আজিম রনি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপমন্ত্রী নওফেল বলেন, ‘করোনা সংকটের শুরু থেকেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্বাস্থ্যকর্মীদের মাঝে সাহস যুগিয়ে যাচ্ছেন। সবাইকে এই যুদ্ধে মাঠে থাকার প্রেরণা যুগিয়ে যাচ্ছেন। প্রশাসন, পুলিশ, সেনাবাহিনী থেকে শুরু করে সবাইকে এই সংকট মোকাবিলায় মাঠে নামিয়েছেন। ১৯৭১ সালে যেভাবে দেশবাসী ঐক্যবদ্ধ হয়ে মুক্তিযুদ্ধ করেছিল, আজ ঠিক তেমনিভাবে দেশের মানুষ এক হয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যার নেতৃত্বে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করছে।’

নিউজনাউ/পিপিএন

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: