এলজিইডির সড়কে খোয়ার বদলে পুরনো দেয়াল ভাঙা!

অভিযোগ উঠেছে অনিয়ম-দুর্নীতির

শাহরিয়ার আলাউদ্দিন, বান্দরবান প্রতিনিধি: লকডাউনের সুযোগে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ (এলজিইডি) বান্দরবানের আলীকদম উপজেলায় সাড়ে তিন কোটি টাকার সড়ক নির্মাণ কাজে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে।

অভ্যন্তরীণ সড়কটি নির্মাণে খোয়ার বদলে পুরনো দেয়ালের সিমেন্ট মিশ্রিত ভাঙাচোরা পরিত্যক্ত সরঞ্জাম ব্যবহার করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী এবং উপজেলা ইঞ্জিনিয়ারের যোগসাজশে লকডাউন পরিস্থিতিতে আওয়ামী লীগ বিএনপির ঠিকাদার সিন্ডিকেট অনিয়ম-দুর্নীতির মাধ্যমে নিয়মনীতি না মেনেই উন্নয়ন কাজটি বাস্তবায়ন করে চলেছে।

এলজিইডি সূত্রে জানা যায়, গ্রামীণ সড়ক মেরামত ও সংরক্ষণ প্রকল্পের আওতায় জেলার আলীকদম উপজেলায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ (এলজিইডি) অর্থায়নে তিন কোটি ৫৮ লাখ টাকা ব্যয়ে আলীকদম-পোয়ামুহুরী হয়ে জানালি পাড়া ৪.৯ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ কাজ ফেব্রুয়ারি মাস থেকে চলমান রয়েছে।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মি: অনন্ত বিকাশ ত্রিপুরার লাইসেন্সে উন্নয়ন কাজটি বাস্তবায়ন করছেন আলীকদম উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কফিল উদ্দিন, সহ-সভাপতি জামাল উদ্দিন এবং যুবদল নেতা আবু বক্কর। কাজের বিপরীতে ইতিমধ্যে এক কোটি ৬৩ লাখ টাকা বিল উত্তোলন করে নিয়েছেন ঠিকাদার।

স্থানীয়দের অভিযোগ, সড়কটি নির্মাণে সংশ্লিষ্ট বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী এবং উপজেলা ইঞ্জিনিয়ারের যোগসাজশে লকডাউন পরিস্থিতির সুযোগে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির আশ্রয় নেয়া হয়েছে।

সড়কটিতে প্যালাসাইডিং কাজে বড় অংকের বরাদ্দ ধরা থাকলেও আরসিসি কলামে নিম্নমানের রড, কংক্রিট ব্যবহার এবং ব্রিকসের দেয়ালের নিচে বালি দিয়ে কমপেক ও আরসিসি করার কথা থাকলেও মানা হয়নি নিয়ম। রাস্তাটি তিন ফুট পাশ প্রশস্থকরণে সাইডসোল্ডারে বড় সাইজের ইটের খোয়া এবং বালি দিয়ে তৈরি করার নিয়ম থাকলেও দেয়া হচ্ছে সিমেন্ট মিশ্রিত পুরনো দেয়ালের ভাঙাচোরা, ব্রিকফিল্ডের নিম্নমানের পরিত্যক্ত ইট ভাঙা । রাস্তাটির কাজ চলমান থাকলেও লকডাউনের অজুহাতে দু’মাসের মধ্যে এলজিইডি’র কোনো দায়িত্বশীল’কে সাইটে কাজের তদারকি করতে দেখা যায়নি।

স্থানীয় বাসিন্দার থোয়াই ম্রা, আলী আকবর’সহ অনেকে অভিযোগ করে বলেন, সড়কটির নির্মাণ কাজে লোহা, কংক্রিট সবগুলোয় নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করা হয়েছে। নির্মাণ কাজের কিছু অংশ ভেঙে যাচাই করলেই অনিয়ম-দুর্নীতির সত্যতা পাওয়া যাবে।

দুর্নীতির সঙ্গে প্রতিষ্ঠানের জেলা নির্বাহী প্রকৌশলী এবং উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার যোগসাজশে লকডাউনের সুযোগে অনিয়ম-দুর্নীতি গুলো করছেন। সড়কটি নির্মাণে দুর্নীতি বন্ধে এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী, মন্ত্রণালয়’সহ বিভিন্ন সংস্থায় লিখিত অভিযোগ পাঠানো হয়েছে।

এদিকে অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে রবিবার (২৮ জুন) সকালে নির্মাণাধীন সড়ক পরিদর্শনে যান এলজিউইডি নির্বাহী প্রকৌশলী জিল্লুর রহমান, উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার আসিফ আহসান স্থানীয় জনপ্রতিনিধি’সহ একটি প্রতিনিধি দল। পরিদর্শন কালে প্রতিনিধি দলটি অনিয়ম-দুর্নীতির সত্যতা পাওয়ায় দ্রুত ত্রুটিপূর্ণ কাজগুলো ঠিক করে উন্নয়ন কাজটি কার্যাদেশ মোতাবেক বাস্তবায়নের নির্দেশ দেন।

নির্মাণ কাজের ঠিকাদার আওয়ামী লীগ নেতা কফিল উদ্দিন ও জামাল উদ্দিন নিউজনাউকে বলেন, নির্মাণের সামগ্রী এবং দেয়াল ভাঙা ব্যবহারের যে ছবিগুলো ছড়িয়েছে, সেগুলো আমাদের কাজের নয়। ইতিমধ্যে নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করছেন নির্বাহী প্রকৌশলী, উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার’সহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। কমপক্ষে ২০টি স্থান ঘুরে দেখেছেন প্রতিনিধি দল। কোথাও তেমন কোনো ত্রটি তারা খোজে পায়নি। তবে কিছু ভুল ত্রুটি দেখিয়ে দিকনির্দেশনা এবং কার্যাদেশ মোতাবেক কাজ সম্পন্ন করার পরামর্শ দিয়েছেন।

তারা বলেন, লকডাউনের এই সুযোগে নির্মাণ কাজে কিছুটা অনিয়ম হয়েছে। নির্বাহী প্রকৌশলী স্যারসহ রবিবার (২৮ জুন) কাজটি পরিদর্শন কালে বিষয়টি আমাদের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। ত্রুটিপূর্ণ কাজগুলো পুনরায় ঠিক করে কার্যাদেশ মোতাবেক কাজটি বাস্তবায়নের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ঠিক না করলে পরবর্তীতে বিল দেয়া হবেনা। কাজের বিপরীতে এক কোটি ৬৩ লাখ টাকা বিল উত্তোলন করা হয়েছে। আগামী দু’মাসের মধ্যেই সবকিছুই ঠিকঠাক হয়ে যাবে আশা করছি।

নিউজনাউ/এফএফ/২০২০

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: