গানের পাখি ফেরদৌসী রহমানের জন্মদিন আজ

নিউজনাউ ডেস্ক:

স্বনামধন্য শিল্পী পরিবার, সেই পরিচয়ের বাইরেও নিজ স্বকীয়তায় উজ্জ্বল তিনি। তিনি পল্লীগীতি সম্রাট আব্বাস উদ্দিনের মেয়ে। পাঁচ দশক ধরে সংগীত জগতে পদচারণা। পল্লীগীতি, রবীন্দ্রসংগীত, নজরুল সংগীত, ইসলামিক গান-গজল, আধুনিক ও চলচ্চিত্রসহ সব ধরনের গানেই যার রয়েছে সমান দক্ষতা। তার কণ্ঠে অসংখ্য কালজয়ী গান পেয়েছে উপমহাদেশের সংগীতপ্রেমীরা। তিনি দেশের প্রথিতযশা সংগীতশিল্পী ফেরদৌসী রহমান। আজ তার ৭৯তম জন্মদিন। ১৯৪১ সালের এইদিনে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। জন্মদিনে অসংখ্য শুভেচ্ছা এবং শুভকামনা এই গুণী মানুষটিকে।

শরীরে চলছে বার্ধক্য, এখন বাসাতেই সময় কাটে তার। বিভিন্ন অনুষ্ঠানের দাওয়াত এলেও যেতে পারেন না। তবে জন্মদিনে তাকে শুভেচ্ছা জানাতে ভুলে যান না স্বজন ও সংগীতের মানুষেরা।

জন্মদিন প্রসঙ্গে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, পরিবারের সদস্যরা উইশ করে। এছাড়া কাছের আত্মীয়স্বজন ও গানের মানুষেরা খোঁজ নেন। অনেকের সঙ্গে কথা হয়। এজন্য ভালো লাগে। সবার কাছে দোয়া চাই।

ফেরদৌসী রহমানের এবারের জন্মদিন নিয়ে কোনো বাড়তি আয়োজন নেই। নেই বিশেষভাবে দিনটি উদযাপনেরও আগ্রহ নেই তার। কারণ দুই ছেলে রুবাইয়াত ও রাজিন আছেন দেশের বাইরে। এছাড়া করোনার কারণে ফেরদৌসী রহমান কিছু প্রিয় মানুষ হারিয়েছেন। তাদের জন্য মন ভীষণ খারাপ তার।

ফেরদৌসী রহমান বলেন, আমরা যারা বলা যায় একসঙ্গে কাজ শুরু করেছিলাম তাদের অনেকেই আজ নেই। সে কারণে মন খারাপই থাকে। আবার করোনার কারণে দীর্ঘদিন যাদের সঙ্গে একসঙ্গে কাজ করেছি সেইসব প্রিয়মুখও চলে গেলেন। দেশের সার্বিক পরিস্থিতে আমি চাই আল্লাহ যেন সবাইকে সুস্থ রাখেন, ভালো রাখেন। আবার যেন সবার সঙ্গে প্রাণ খুলে গল্প করতে পারি, সবার মুখে যেন হাসি দেখতে পারি। অন্যের হাসির মাঝেই নিজের সুখ না হয় খুঁজে নিবো।

১৯৪১ সালে ২৮ জুন কুচবিহারে জন্মগ্রহণ করেন ফেরদৌসী রহমান। বাবাই তার প্রথম সংগীতগুরু। পরবর্তীতে ওস্তাদ মোহাম্মদ হোসেন খসরু, ইউসুফ খান কোরেইশী, কাদের জামেরী, গুল মোহাম্মদ খান, নাজাকাত আলী খান ও সলামাত আলী খান প্রমুখ নামজাদা ওস্তাদদের কাছ থেকে গানের তালিম নেন তিনি।

জীবনের প্রথম রেডিওর ‘খেলাঘর’ অনুষ্ঠানে গান করেন ১৯৪৮ সালে। ‘আসিয়া’ সিনেমাতে তারই বাবা পল্লী সম্রাট আব্বাসউদ্দিনের সুরে আব্দুল করিমের লেখা ‘ও মোর কালারে’ গানে কণ্ঠ দেন। অবশ্য তার আগেই ‘এদেশ তোমার আমার’ সিনেমা মুক্তির মধ্য দিয়ে চলচ্চিত্রের গানে তার অভিষেক হয়। ১৯৫৭-৭০ সাল পর্যন্ত নিয়মিত সিনেমার গানে কণ্ঠ দিয়েছেন।

সংগীত জীবনের সাফল্যের স্বীকৃতিস্বরূপ রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ সম্মাননা একুশে পদক, জাতীয় চলচ্চিত্রের আজীবন সম্মাননা পুরস্কার, সংগীত পরিচালক হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারসহ দেশ-বিদেশের নানা পুরস্কারে সম্মানিত হয়েছেন ফেরদৌসী রহমান।

নিউজনাউ/এসএইচ/২০২০

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: