কুড়িগ্রামে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

বাদশাহ্ সৈকত, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:
বৃষ্টি ও উজানের ঢলে কুড়িগ্রামে ব্রহ্মপুত্র, ধরলা, তিস্তা, দুধকুমরসহ ১৬টি নদ-নদীর পানি আবারো বৃদ্ধি পেয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সেতু পয়েন্টে ধরলার পানি ৩৮ সেন্টিমিটার, নুনখাওয়া পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি ১৪ সেন্টিমিটার এবং কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি ৬ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে যাত্রাপুর, নুনখাওয়া, নারায়ণপুর ও সাহেবের আলগা ইউনিয়নের অন্তত ৩০টি চরে পানি ঢুকে পড়েছে। তলিয়ে গেছে নিম্নাঞ্চলের উঠতি ফসল বাদাম, তিল, কাউন, পাটসহ বিভিন্ন ধরনের সবজি ক্ষেত। পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে দেখা দিয়েছে নদ-নদীর ভাঙ্গন।

সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. আইয়ুব আলী সরকার নিউজনাউকে জানান, ব্রহ্মপুত্রের পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় চরাঞ্চলগুলোতে পানি ঢুকে পড়ছে। ফলে পারবতীপুর চরের কিছু বাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে। এছাড়া অন্যান্য চরগুলোতেও পানি ঢুকে পড়ায় এসব চরের মানুষজন পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন।

উলিপুর উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বিএম আবুল হোসেন নিউজনাউকে জানান, ব্রহ্মপুত্রের অববাহিকায় হাতিয়া ইউনিয়নের প্রায় ২০টি চরে পানি ঢুকে পড়েছে।

এব্যাপারে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুল ইসলাম নিউজনাউকে বলেন, কুড়িগ্রামে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। চলতি মাসের ২৮ ও ২৯ তারিখ এবং জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে। তখন ব্রহ্মপুত্রের অববাহিকার চিলমারী, উলিপুর, রৌমারী, রাজিবপুর উপজেলা ও নাগেশ্বরীর কিছু অংশ বন্যা কবলিত হয়ে পড়তে পারে। আর পানি বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে নদী ভাঙ্গনের মাত্রা কিছুটা কমেছে। কিছু কিছু ভাঙ্গন কবলিত এলাকায় আমরা জরুরী ভিত্তিতে কাজ অব্যাহত রেখেছি।

নিউজনাউ/এবি/২০২০

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: