কেন্দ্রীয় চুক্তিতে না থাকা বিদায়ের লক্ষণ!

রায়হানউদ্দিন রাসেল: প্রকৃতির বড় নিষ্ঠুর নিয়ম ‘বিদায়’। মাত্র তিন অক্ষরের ছোট্ট একটি শব্দ। কিন্তু শব্দটির আপাদমস্তকে বিষাদে ভরা। কানে আসা মাত্রই কেন যেন বিষন্ন হয়ে ওঠে মানব হৃদয়। কারণ এই বিদায়ে মাধম্যে ঘটে বিচ্ছেদের। আর প্রতিটি বিচ্ছেদের মধ্যে নিহিত থাকে নীল কষ্ট। তেমনিই কষ্টের বিষে নীল হচ্ছে কোটি বাঙালির হৃদয়। ক্রিকেট থেকে বিদায়ের ঘণ্টা বেজে গেছে মাশরাফি বিন মর্তুজার। অন্তত ম্যাশ প্রেমিদের ধারণা কেন্দ্রীয় চুক্তিতে না থাকায় ক্রিকেট থেকে তার বিদায়ের লক্ষণ।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে একমাত্র ওয়ানডে সংস্করনে খেলেন মাশরাফি। কিন্তু গতবছর সেপ্টেম্বরে ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়েকে ডেকে এনে তাকে বিদায় জানাতে প্রস্তুতি নিয়েছিলো বিসিবি। তবে নড়াইল এক্সপ্রেসের অনুরোধে সেই পথ থেকে সরে আসে দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা।

আসছে ফেব্রুয়ারি ওয়ানডে খেলতে ঢাকায় আসবে জিম্বাবুয়ে। ফলে আবার শুরু হয়েছে ‘মাশরাফির অবসর’ গুঞ্জন। সেই পালে কিছুটা হাওয়া দিয়েছেন বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। রোববার সংবাদ সম্মেলনে বিসিবির প্রধান জানান, মাশরাফির অনুরোধেই নতুন কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে তাকে বাদ দিচ্ছেন তারা।

এতে অনেকে ধরে নিয়েছেন বিদায় নিতে প্রস্তুত বাংলাদেশ ওয়ানেড দলের অধিনায়ক। আর দেশের ক্রিকেটের বড় এই তারকাকে বর্ণাঢ্য আয়োজনে বিদায় জানাতে তৈরি বোর্ড। তবে সেক্ষেত্রে মাশরাফির সবুজ সংকেতের অপেক্ষায় রয়েছেন নাজমুল হাসান পাপন, ‘ওকে (মাশরাফি) একবার প্রস্তাব দিয়েছিলাম। বিশ্বকাপের পর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একটি ওয়ানডে খেলে শেষ করার কথা ছিল, এমনই কথা হয়েছিল ওর সঙ্গে আমার লন্ডনে। পরে তো বলল এই বিপিএল পর্যন্ত দেখতে চায়। তারপর সিদ্ধান্ত নেবে। এখন পত্রপত্রিকার মাধ্যমে যা জেনেছি, তার ঘটা করে অবসরের ইচ্ছেই নেই। আমরা তো চাইব তাকে ভালোভাবে, খুব ভালোভাবে বিদায় দিতে, যেটা বাংলাদেশে আর কেউ পায়নি। এটা আমাদের ইচ্ছা। ও যদি এটা চায় তো ভালো কথা, না চাইলে কিছু করার নেই।’

যদিও খেলে যাওয়ার কথা জানান মাশরাফি। গত শুক্রবার বিপিএলের ম্যাচ শেষে তিনি জানান অবসর নিয়ে ভাবছেন না, বরং উপভোগ করছেন খেলা,  ‘আমি নিজে যে জায়গায় অবস্থান করছি, সেটা উপভোগ করছি। বিপিএল খেলছি। আগামী মৌসুমের ঢাকা প্রিমিয়ার লিগও খেলতে চাই।’

এই প্রসঙ্গে বোর্ড সভাপতি বলেন, ‘সে যতদিন চাইবে খেলবে। এতে আমাদের বাধা নেই। বরং আমি মনে করি এটা আমাদের ক্রিকেটের জন্য ভালো’।

মাশরাফি, খেলতে চান। বোর্ড সভাপতির ইচ্ছেও তাই। এরপরও মানতে পারছেন না মাশরাফির প্রেমিরা। তাদের মতে বারবার অবসর প্রসঙ্গ ওঠা এবং কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে সরে যাওয়া, ক্রিকেট থেকে মাশরাফির বিদায়ের লক্ষণ।

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান