উদ্যানে বাণিজ্যিক পার্ক বানাচ্ছে চসিক!

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত নগরের উন্মুক্ত বিপ্লব উদ্যানে আধুনিকায়নের নামে দোকান বানাচ্ছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক)। আর এর পেছনে প্রত্যক্ষ মদদ রয়েছে চসিক মেয়র আজম নাসির উদ্দিনের। ইতিমধ্যে উদ্যানের পূর্ব পাশে এরই মধ্যে প্রায় ২৫টি দোকানের নির্মাণ কাজ শেষ করা হয়েছে। দোকান নির্মাণ কাজ নিয়ে ইতিমধ্যে নগরীতে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, বরাবরের মতোই এবারও সেই একই যুক্তি চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের। উদ্যানটিতে লোকজন আসলে সেখানে তাদের অধিকতর সুবিধা দিতে এসব দোকান নির্মাণ করা হচ্ছে। সেজন্যই নির্মিত হচ্ছে ফুডকোর্টসহ কিছু বাণিজ্যিক স্থাপনা।
১৯৭৯ সালে দুই একর জায়গার ওপর বিপ্লব উদ্যানটি চালু হয়। শুরুর পর সেখানে কোনো বাণিজ্যিক স্থাপনা ছিল না। কিন্তু হঠাৎ করে সিটি করপোরেশন সেখানে বাণিজ্যিক স্থাপনা নির্মাণ করছে। তবে, নগরের উন্মুক্ত উদ্যানটিতে বাণিজ্যিক স্থাপনা নির্মাণের সমালোচনা করেছেন নগর পরিকল্পনাবিদরা।

পরিকল্পিত চট্টগ্রাম’র সহ-সভাপতি ও নগর পরিকল্পনাবিদ সুভাষ চন্দ্র বড়ুয়া বলেন, ‘বিনোদনের জন্য ফুডকোর্ট, গেম জোন; এসব করতে হয় না। উন্মুক্ত মাঠ হচ্ছে আসল বিনোদনের জায়গা।’

গত ১৫ ডিসেম্বর দোকান নির্মাণের মাধ্যমে সৌন্দর্যবোধন প্রকল্পের উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

সুভাষ চন্দ্র বড়ুয়া বলেন, ‘চসিক নিজেদের স্বার্থ হাসিলের জন্য উদ্যানটিতে বাণিজ্যিক স্থাপনা তৈরি করছে। অথচ সেখানে কিছু গাছ লাগিয়ে, বসার জায়গাগুলো সংস্কার করে উদ্যানটির আধুনিকায়ন সম্ভব হতো। কিন্তু সংস্থাটি সেটি করেনি।’

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সামসুদ্দোহা জানান, উদ্যানটিতে ২৫টি দোকান, গেমজোন ও ফুডকোর্ট থাকবে।

তিনি বলেন, ‘দুটি প্রতিষ্ঠানকে এই উদ্যান রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তাদের সঙ্গে ২০ বছরের চুক্তি হয়েছে। প্রতিষ্ঠান দুটি আধুনিকায়নের কাজ করছে।

গত বছরের ২৮ নভেম্বর রিফর্ম লিমিটেড ও স্টাইল লিভিং আর্কিটেক্ট লিমিটেড নামে দুটি প্রতিষ্ঠানকে চসিক এ উদ্যান ২০ বছরের জন্য ইজারা দেয়। প্রতিষ্ঠান দুটি নিজেদের অর্থায়নে উদ্যানটি আধুনিকায়ন করছে। অর্থায়নের খরচ আদায় করতে দোকান নির্মাণ করে সেগুলো ইজারা দেওয়া হচ্ছে।

স্টাইল লিভিং আর্কিটেক্ট লিমিটেডের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বলেন, উদ্যানটির আধুনিকায়নে প্রায় আট কোটি টাকা খরচ হবে। দোকানগুলো ইজারা দিয়ে সেই টাকা আদায় করা হবে।

তিনি আরও বলেন, ভাষা আন্দোলন থেকে মুক্তিযুদ্ধ পর্যন্ত যেসব আন্দোলন-সংগ্রাম হয়েছে সেগুলো এই উদ্যানে ফুটিয়ে তোলা হবে। এর মাধ্যমে তরুন প্রজন্ম ইতিহাস সম্পর্কে জানবে। একটি ভ্রাম্যমাণ স্কুল থাকবে। সপ্তাহে একদিন অস্বচ্ছলদের জন্য গেমজোন উন্মুক্ত থাকবে। তবে উদ্যানে প্রবেশের জন্য কোনো টাকা লাগবে না।
এদিকে উদ্যানটিতে আগের মতো সময় কাটাতে পারবে কিনা সেটি নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন নগরবাসী।
২০১৬ সালে দায়িত্ব নেওয়ার পর বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন সৌন্দর্যবর্ধনের শ্লোগান দিয়ে চট্টগ্রাম নগরকে ‘আধুনিক’ হিসেবে গড়ে তোলার কাজ শুরু করেন।

প্রথমে নগরের যাত্রী ছাউনিগুলো আধুনিকায়নের কাজ শুরু করে চসিক। ছাউনিগুলো আধুনিকায়নের পাশাপাশি প্রত্যেকটাতে দোকান বরাদ্দ দেওয়া শুরু করে চসিক। এরপর থেকে যাত্রী ছাউনিগুলো চলে যায় দোকানদারের নিয়ন্ত্রণে। এখন অনেক ছাউনিতে যাত্রীর দেখা না মিললেও সেখানে ক্রেতাদের ভিড় চোখে পড়ে।

নিউজ নাউয়ের পক্ষ থেকে অনুসন্ধান করে জানা গেছে, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের অধীন একাধিক পার্কগুলোতে মেয়র আজম নাসির উদ্দিন বিশেষ সুবিধা নেবার উছিলায় সেখানে বানিজ্যিকভাবে দোকান-ঘরসহ বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ করছে। আর একাজে চট্টগ্রামের একটি বানিজ্যিক সিন্ডিকেট কাজ করছে বলে জানা গেছে। বিগত দিনে যখন ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন গৃহায়ন ও গণপুর্ত মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন তখন মেয়র আজম নাসিরউদ্দিন এর এসব কাজের সমালোচনা করেন মন্ত্রী। সৌন্দর্য্য বর্ধনের নামে পার্কের অবয়ব পাল্টানোরও বিরোধিতা করেন তিনি। সাবেক এ মন্ত্রী নিউজ নাউকে জানান, সৌন্দর্য্য বর্ধনের নপমে যা করা হচ্ছে তাতে করে আরো বেশি সৌন্দর্য্যহানী হচ্ছে। বিষয়গুলো নতুন কওে ভেবে দেখার আহ্বান জানান তিনি।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৮ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামের বৃহৎ বিনোদন কেন্দ্র জাম্বুরি পার্ক আধুনিকায়নের কাজ শেষ করে গণপূর্ত অধিদপ্তর। আট একর জায়গার ওপর উন্মুক্ত এই পার্কটিতে কোনো বাণিজ্যিক স্থাপনা করেনি গণপূর্ত অধিদপ্তর। পার্কটি এখন অন্যতম বিনোদন কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে।

সুত্রঃ চট্টগ্রাম প্রতিদিন

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান