আবারও পেঁয়াজের ‘ডাবল সেঞ্চুরি’

মাহমুদুল হাসান: পেঁয়াজের ভরা মৌসুম চলছে। দেশি-বিদেশি পেঁয়াজে ভরপুর পাইকারি বাজারের গুদাম। খুচরা বাজারেও সরবরাহ ব্যাপক বেড়েছে। এমনকি প্রতিদিনই এই নিত্যপণ্যটি বিক্রি হচ্ছে ভ্রাম্যমাণ ভ্যানেও। এমন অবস্থার মধ্যেও বৃষ্টির অজুহাত দেখিয়ে বাজারে পেঁয়াজের দাম হু হু করে বাড়তে শুরু করেছে।

নতুন বছরের চার দিন পেরুতেই পেঁয়াজ ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকালো। গত তিন দিনের ব্যবধানে এর দাম বেড়েছে কেজিতে ১০০ টাকার বেশি। রাজধানীর বাজারগুলোতে কেজি প্রতি দেশি পেঁয়াজ ২০০ থেকে ২১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে যা কয়েকদিন আগেও ছিল ১২০ থেকে ১৩০ টাকার মধ্যে। বসে নেই চীনা বা তুরস্কের পেঁয়াজও। কেজিতে ২০ থেকে ৩০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ৯০ টাকায়।

সরকারি সংস্থা টিসিবি বলছে, গত বছর এই সময় দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ২৫-৩৫ টাকা। যা বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ১৮০-২০০ টাকা। সে ক্ষেত্রে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৫৩৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ বেশি দরে পণ্যটি বিক্রি হচ্ছে।

রাজধানীর পেঁয়াজের পাইকারি আড়ত শ্যামবাজার ও কারওয়ান বাজার ঘুরে পেঁয়াজের কোনো সংকট দেখা যায়নি। বরং প্রতিটি গুদামে পেঁয়াজের বস্তা থরে থরে সাজিয়ে রাখতে দেখা গেছে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ট্রাকভরে পেঁয়াজ আসছে। সংশ্লিষ্টরা তা ট্রাক থেকে নামিয়ে গোডাউনে তুলছে।

সরকারের পক্ষ থেকে টিসিবির মাধ্যমে ৩৫ টাকা দরে পেঁয়াজ বিক্রি অব্যাহত আছে। বিভিন্ন দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি হচ্ছে। দেশের উৎপাদিত পেঁয়াজ বাজারে এসেছে। কিন্তু এর পরও দাম ভোক্তার নাগালে আসছে না।

নতুন পেঁয়াজ পুরোদমে যখন ওঠার কথা, তখন বাজার কেন অস্থির? ব্যবসায়ীরা বলছেন, বছরের এ সময়ে দেশি পেঁয়াজ উঠলেও ভারতীয় পেঁয়াজের প্রচুর সরবরাহ থাকতো। দু’য়ে মিলে পেঁয়াজের দাম কম থাকতো। তবে এবার ভারতীয় পেঁয়াজ না আসায় পেঁয়াজের বাজার সামাল দিতে হিমসিম খেতে হচ্ছে। তবে কিছু বিদেশি পেঁয়াজ থাকলেও তার পরিমাণ যথেষ্ট নয়। বাড়তি দামে চাষিরা অপুষ্ট দেশি পেঁয়াজ আগেই তুলে বিক্রি করেছেন। বৈরী আবহাওয়ার কারণে সরবরাহ কমে যাওয়া দাম বাড়ার অজুহাদ দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান