পানির নীচে আশ্চর্য জায়গা; এক নিস্তব্ধতার আকর্ষণ!

নিউজ ডেস্কঃ বিশ্বের আনাচে-কানাচে কত রকম অবিশ্বাস্য সৃষ্টি রয়েছে তার অনেকই আসলে অজানা। তাও যদি হয় পানির নিচে! সে এক আশ্চর্য জগৎ, পানির নীচের জগতের সৌন্দর্য ও আকর্ষণ সম্পূর্ণ আলাদা। এক কথায় নিস্তব্ধতার আকর্ষণ। কত রহস্য লুকিয়ে আছে পানির এই মায়াপুরীতে। মানুষের কৌতূহলের শেষ নেই এ জগৎকে জানার।আর সেই আকর্ষণ বহু মানুষকেই আকৃষ্ট করে।

দেখে নেন পানির নীচের তেমনই ৫টি ঠিকানাঃ
১) শি চেং, চুন আন কাউন্টি, চিজিয়াং, চিন –
পানির নিচে এ এক আশ্চর্য জগৎ। একটি গোটা শহর। এই শহর গড়ে উঠেছিল প্রায় ১৩০০ বছর আগে। এখন সেই শহরটি রয়েছে জলের ২৬ থেকে ৪০ মিটার নীচে। এই শহরটি ইচ্ছাকৃত ভাবে প্লাবিত করা হয়েছিল ১৯৫৯ সালে। উদ্দেশ্য ছিল কৃত্রিম হ্রদ ও জল বিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরি করা। এই কৃত্রিম কিয়ান্ডাও হ্রদটি ‘থাউজেন্ড আইল্যান্ড লেক’ নামেও পরিচিত।

২) জলের নীচের জলপ্রপাত, মরিশাস –
আফ্রিকা থেকে দুই হাজার কিলোমিটার দূরে ভারত মহাসাগরের দক্ষিণ-পশ্চিম তীরে অবস্থিত এই স্থানটি। এটি আসলে একটি জলপ্রপাত। কিন্তু পর্যটকদের চোখে একটি দৃষ্টিভ্রম সৃষ্টি করে। তার কারণ হল এই অঞ্চলের বালি ও ভূপ্রকৃতি। এই দ্বীপটি খুবই নবীন। এখনও এর গঠন প্রক্রিয়া অব্যাহত। তাই এর বাইরের দিকে জলের নীচের ভূমিরূপ ঢালু প্রকৃতির। সেখানে জলের তলাতেই জল ওপর থেকে নীচের দিকে পড়ে। তা খালি চোখে দেখা যায়। সেই দৃশ্যটিই জলের নীচে জলপ্রপাতের মতো মনে হয়।

৩) দ্য গ্রেট ব্লু হোল, বিজেল –
এটি প্রাকৃতিক কারণের ফলে সমুদ্রের মধ্যে সৃষ্ট বিশাল গর্ত। এটি অবস্থিত লাইট হাউজ রিফের পাশেই। এর আয়তন ৩০০ মিটার চওড়া ও ১২৪ মিটার অর্থাৎ ৯৮৪ ফুট গভীর। এই গর্তটি প্রাকৃতিক ভাবে তৈরি হয়েছিল হিমযুগে। তখন সমুদ্রপৃষ্ট অনেক নীচে ছিল। তারপর সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা ক্রমশ বেড়েছে। এই গর্তে জল ঢুকে গিয়েছে। তার পর এই দৃশ্যের সৃষ্টি হয়েছে।

৪) দ্য বেরিয়ার রিফ, কুইনসল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া –
বিশ্বের সবথেকে বড়ো প্রবাল প্রাচীর দ্য গ্রেট বেরিয়ার রিফ। বিশ্বের সাতটি প্রাকৃতিক আশ্চর্যের একটি এটি। এখানকার জলের রাজ্যে রয়েছে হাঙর, তারা মাছ, প্রবাল, মন্ট্রা রে, কচ্ছপ ইত্যাদি। সমুদ্রের কাচের মতো স্বচ্ছ জলে সবটাই দেখা যায় পরিষ্কার ভাবে।

৫) ইথা রেস্টুরান্ট, আলিফ ঢাল অ্যাটল, মালদ্বীপ –
ইথা মানে হল ‘মাদার অব পার্ল’। জলের নীচের এই রেস্তোরাঁটি পর্যটকদের কাছে দারুণ আকর্ষণীয় একটি স্থান। এটি মালদ্বীপের সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে জলের ৫ মিটার অর্থাৎ ১৬ ফুট নীচে অবস্থিত। এই রেস্তোরাঁতে ১৪ জনের আসন রয়েছে। এখানে পৌঁছতে হয় একটি ঘোরানো সিঁড়ির সাহায্যে। এই রেস্তোরাঁ হল কনরাড মালদ্বীপ রঙ্গোলি আইল্যান্ড রিসোর্টের একটি অঙ্গ। এর দেওয়ালের বাইরের দৃশ্য সামুদ্রিক জগৎ।

নিউজ নাউ/বান্না/২০২০

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান