NewsNow24.Com
Leading Multimedia News Portal in Bangladesh

রাজধানীতে অবৈধ জ্যামার, রিপিটার-বুস্টার বিক্রির অভিযোগে গ্রেপ্তার ২

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

নিউজনাউ ডেস্ক: রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে বিপুল পরিমাণ অবৈধ জ্যামার, রিপিটার ও নেটওয়ার্ক বুস্টারসহ দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব-৩। গ্রেপ্তার দুজন হলেন মো. আবু নোমান (২৮) ও সোহেল রানা (৩৭)। গতকাল শনিবার দিবাগত রাতে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়।

রবিবার (১৫ মে) রাজধানীর কারওয়ান বাজারের র‍্যাব মিডিয়া সেন্টার আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান র‍্যাব-৩-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ।

গ্রেপ্তারের সময় দুজনের কাছ থেকে ৪টি মোবাইল নেটওয়ার্ক জ্যামার, ২৪টি জ্যামার অ্যান্টেনা, ৪টি এসি এডাপ্টার, ৩টি পাওয়ার কেব্‌ল, ৩টি মোবাইল নেটওয়ার্ক বুস্টার, ৯টি বুস্টারের আউটডোর অ্যান্টেনা, ২৬টি বুস্টারের ইনডোর অ্যান্টেনা, ৩৭টি বুস্টারের কেব্‌ল ও ১টি ল্যাপটপ উদ্ধার করা হয়েছে।

লে. কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন বলেন, একটি চক্রের কিছু সদস্য দীর্ঘদিন যাবৎ রাজধানীর মোহাম্মদপুর ও এর আশপাশের এলাকায় বিনা অনুমতিতে অবৈধ জ্যামার ও নেটওয়ার্ক বুস্টার বিক্রি করে আসছে। শনিবার দিবাগত রাত ১২টা ৪৫ মিনিটে র‍্যাব-৩-এর একটি দল এবং বিটিআরসির প্রতিনিধি মিলে মোহাম্মদপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে র‍্যাবের এই কর্মকর্তা জানান, দীর্ঘদিন ধরে তাঁরা অবৈধভাবে জ্যামার ও নেটওয়ার্ক বুস্টার বিক্রি করছে। গ্রেপ্তার নোমানের আইটি স্টল.কম.বিডি এবং তার সহযোগী সোহেল রানার সোআইএম বিডি নামে ই-কমার্স ওয়েবসাইট ও ফেসবুক পেইজ রয়েছে।

লে. কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন বলেন, এসব ই-কমার্স ওয়েবসাইট ও ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে তারা আইপি ক্যামেরা, ডিজিটাল ক্যামেরা ও ইলেকট্রনিক যন্ত্রাংশের পাশাপাশি উচ্চ মূল্যে বিভিন্ন ব্যক্তির নিকট জ্যামার ও নেটওয়ার্ক বুস্টারসহ এর যন্ত্রাংশ লাইসেন্স ছাড়াই অবৈধভাবে বিক্রি করে থাকে।

জ্যামার ও নেটওয়ার্ক বুস্টার টু-জি, থ্রি-জি এবং ফোর-জি মোবাইল নেটওয়ার্কের কার্যক্ষমতাকে প্রভাবিত করতে সক্ষম জানিয়ে আরিফ মহিউদ্দিন বলেন, তাদের ক্রেতা বিভিন্ন বহুতল ভবনের বাসিন্দা, মসজিদ কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়া বিভিন্ন অপরাধীরা অপরাধ করার উদ্দেশ্যে উচ্চমূল্যে এইসব অবৈধ ডিভাইস তাদের কাছ থেকে কিনে থাকে।

জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃতদের দাবি, বৈধ আমদানিকারকের মাধ্যমে অধিক পরিবহন মূল্য পরিশোধ করে বৈধ মালামালের আড়ালে তারা এসব যন্ত্র নিয়ে আসে। গত দুই বছরে তারা দুই শতাধিক জ্যামার ও নেটওয়ার্ক বুস্টার বিক্রি করেছে।

র‍্যাব-৩-এর অধিনায়ক জানান, বিটিআরসির অনুমোদন ব্যতীত এসব যন্ত্রাংশ ক্রয়-বিক্রয় আইন অনুযায়ী দণ্ডনীয় অপরাধ। কোনো অপরাধী জ্যামার ব্যবহার করে অপরাধ করলে ভুক্তভোগী কোনো সাহায্য নেওয়ার ক্ষেত্রে মোবাইল নেটওয়ার্ক পাবেন না। এ ছাড়া কোনো স্থানে জ্যামার থাকলে আশপাশের গ্রাহকেরা নেটওয়ার্ক সংযোগ পায় না। অবৈধ বুস্টার ও রিপিটারও একই ধরনের সমস্যা তৈরি করে।

নিউজনাউ/আরবি/২০২২

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

আপনার মতামত জানান

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More