NewsNow24.Com
Leading Multimedia News Portal in Bangladesh

শ্রীলঙ্কা বাংলাদেশ সরকারের জন্য একটা আশীর্বাদ: আনু মুহাম্মদ

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

চট্টগ্রাম ব্যুরোঃ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, ‘বাংলাদেশ সরকার ভাগ্যবান যে শ্রীলঙ্কার মত ঘটনা তাদের একটা সিগন্যাল দিচ্ছে। নয়তো সরকার কোনো রকম বিচার বিবেচনা ছাড়া হাজার হাজার কোটি টাকা লোন নিচ্ছিল। এখন হঠাৎ করে হুঁশ হয়েছে। শ্রীলঙ্কা বাংলাদেশ সরকারের জন্য একটা আশীর্বাদ। কর্তৃত্ববাদী শাসন চালালে এবং ব্যয়বহুল প্রকল্প নিলে কী পরিণতি হয়, তার একটা দৃষ্টান্ত শ্রীলঙ্কা। এ সিগন্যাল গ্রহণ করতে হলে উন্নয়ন সম্পর্কে ধারণা বদলাতে হবে।’

শুক্রবার (১৩ মে) বিকেলে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (মার্কসবাদী) আয়োজিত ‘সর্বজনের অধিকার: পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত বেসরকারিকরণ’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘চায়না, বিশ্ব ব্যাংক, এডিবিসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক তহবিল থেকে সমানে লোন নিয়ে নেওয়া হচ্ছে। বাংলাদেশে আরেকটা লোন নেওয়ার চেষ্টা হচ্ছিল, সেটা হল সভরেইন লোন। যেটা শ্রীলঙ্কাকে বেশি মাত্রায় ডুবিয়েছে। যার সুদ খুব বেশি এবং দ্রুত পরিশোধ করতে হয়। শ্রীলঙ্কা এ ধরনের লোন বেশি নিয়েছিল বড় প্রজেক্ট করতে গিয়ে।”

দক্ষিণ এশিয়ার দেশটির দুর্দশা বাংলাদেশকে ‘থামার’ মত চাপ দিয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘এখন বলা হচ্ছে, অপ্রয়োজনীয় প্রকল্পে লোন নেওয়া হবে না। তার মানে এতদিন অপ্রয়োজনীয় প্রকল্পে ঋণ নিয়েছিল।’

আনু মুহাম্মদ বলেন, সর্বজনের উম্মুক্ত স্থান পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতের একাংশ উন্নয়নের নামে ইজারাদান ও টিকেট ধার্য করলে- সর্বজনের স্বীকৃত প্রবেশাধিকার হরণ হবে, প্রাকৃতিক সৈকতের বিকৃতি ঘটবে, একই সৈকতে দুই ধরণের বৈষম্যমূলক ব্যবস্থা সৃষ্টি হবে।

তিনি বলেন, আমার কাছে চট্টগ্রাম ছিল শ্বাস নেবার শহর, প্রাণবৈচিত্র, ভূমিবৈচিত্র্য আর পাহাড় সমতলের অপূর্ব সমন্বয়। গত কয় বছরে এই শহর ক্রমে বিভীষিকায় পরিণত হয়েছে। ঢাকার মতো এক অসুস্থ নগরে পরিণত হয়েছে। উন্নয়নের নামে চট্টগ্রামে একের পর এক প্রকল্প নেয়া হচ্ছে যাচাই বাছাই, পরিণতি বিবেচনা, পরীক্ষা নিরীক্ষা ছাড়াই। এধরণের সর্বনাশা উন্নয়ন প্রকল্পের একটি হলো সিআরবিতে বাণিজ্যিক হাসপাতাল নির্মাণ। আরেকটি হলো পতেঙ্গা সৈকত বেসরকারি কোম্পানিকে ইজারা। চট্টগ্রামবাসীকে অভিনন্দন আন্দোলনের মাধ্যমে সিআরবিতে প্রাইভেট হাসপাতাল নির্মাণের প্রচেষ্টা আপাতত ঠেকাতে পেরেছেন। কিন্তু তাদের এ অপচেষ্টা তারা নানাভাবে অব্যাহত রাখবে, সেজন্য সতর্ক থাকতে হবে। পতেঙ্গা সৈকত ইজারাদানের পেছনে শুধু ব্যবসায়ী গোষ্ঠীকে মুনাফার সুযোগ করে দেওয়া নয়, আরও সুদূরপ্রসারী অসৎ পরিকল্পনা থাকার সম্ভাবনা প্রবল।

তিনি বলেন, উন্নয়ন মানে আনন্দ, সর্বজনের সমৃদ্ধি, নিরাপত্তা, সুস্থতা।যা দেশকে, জনপদকে বিপন্ন করে মুষ্টিমেয় গোষ্ঠীর মুনাফা ও সমৃদ্ধি ঘটায় তাকে কখনোই উন্নয়ন বলা যায়না। সারাদেশে যেন আজ ‘উন্নয়নের তান্ডব’ চলছে। চট্টগ্রামের মতো সারাদেশেই আজ সর্বজনের সম্পদের উপর এ মুনাফালোভী গোষ্ঠীর আগ্রাসন চলছে। এ বিভীষিকার হাত থেকে চট্টগ্রামকে-দেশকে বাঁচাতে কন্ঠ সোচ্চার, কলম-তুলি সক্রিয় এবং সংগঠিত প্রতিরোধের বিকল্প নেই বলেও তিনি জানান।

বাসদ(মার্কসবাদী) চট্টগ্রাম জেলা আহবায়ক কমরেড মানস নন্দীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে আরো বক্তব্য রাখেন কবি ও সাংবাদিক আবুল মোমেন, মুক্তিযুদ্ধ গবেষক ও সিআরবি রক্ষা মঞ্চের সমন্বয়ক ডাঃ মাহফুজুর রহমান, পরিকল্পিত চট্টগ্রাম ফোরামের সহসভাপতি ও নগর পরিকল্পনাবিদ প্রকৌশলী সুভাষ বড়ুয়া।

সেমিনার সঞ্চালনা করেন দলের জেলা সদস্যসচিব শফি উদ্দিন কবির আবিদ। মূল আলোচকদের বক্তব্যের পর উম্মুক্ত আলোচনার পর্বে মতামত রাখেন গণমুক্তি ইউনিয়নের সভাপতি রাজা মিঞা, সিপিবি জেলা সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মোঃ জাহাঙ্গীর।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২২

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

আপনার মতামত জানান

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More