NewsNow24.Com
Leading Multimedia News Portal in Bangladesh

২০২১ সালে ১০১ জন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

নিউজনাউ ডেস্ক: ২০২১ সালে দেশে ১০১ জন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন বলে এক প্রতিবেদনে তুলে ধরেছে বেসরকারি একটি সংস্থা। যা দেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার ঘটনায় এক বছরের ব্যবধানে দ্বিগুণ।

২০২০ সালে দেশে ৪২ জন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছিলেন বলে রেকর্ড করেছিল বেসরকারি সংস্থা আঁচল ফাউন্ডেশন।

যেসব কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আত্মহনন করছেন তার মধ্যে সম্পর্কের অবনতিকে প্রধান কারণ হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে। প্রতি চারজনে একজন এ কারণেই আত্মহনন করছেন বলে সম্প্রতি করা একটি সমীক্ষায় উঠে এসেছে।

বেসরকারি সংস্থা আঁচল ফাউন্ডেশন শনিবার সমীক্ষা প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে। ২০২১ সালের জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক, অনলাইন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের মাধ্যমে পাওয়া তথ্য সংগ্রহ করে প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে সংস্থাটি।

সমীক্ষায় দেখা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা যেসব কারণে আত্মহত্যা করছেন তার অন্যতম কারণ সম্পর্কের অবনতি। আত্মহত্যা করাদের মধ্যে ২৪ দশমিক ৭৫ শতাংশই বিভিন্ন ধরনের সম্পর্কের অবনতির কারণে করেছে।

এরপর রয়েছে পারিবারিক সমস্যার কারণে, যা ১৯ দশমিক ৮০ শতাংশ।

এ ছাড়া মানসিক যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে ১৫ দশমিক ৮৪ শতাংশ, পড়াশোনাসংক্রান্ত কারণে ১০ দশমিক ৮৯ শতাংশ, আর্থিক সমস্যায় ৪ দশমিক ৯৫ শতাংশ, মাদকাসক্ত হয়ে ১ দশমিক ৯৮ শতাংশ এবং অন্যান্য কারণে ২১ দশমিক ৭৮ শতাংশ বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন।

তবে গবেষকরা জানান, মূলত সম্পর্কের অবনতি, পারিবারিক জটিলতা, পড়াশোনা নিয়ে হতাশা, আর্থিক সংকট আত্মহত্যার মূল কারণ।

সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাই বেশি আত্মহত্যা করেছেন

দেশে গত বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০১ শিক্ষার্থীর আত্মহত্যার যে সংখ্যা জানিয়েছে আঁচল ফাউন্ডেশন তার মধ্যে ৬২ জনই সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

এ ছাড়া মেডিক্যাল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২ জন, প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪ জন এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৩ জন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন।

১০১ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৯ জনই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের, এরপরই আছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছয়জন, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচজন এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে চারজন।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেখানে তিনজন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন বলে উঠে এসেছে সমীক্ষা জরিপে।

সংস্থাটির হিসাবে, ২০১৮ সালে ১১ এবং ২০১৭ সালে ১৯ জন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছিলেন।

২০২০ সালের মার্চে দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শনাক্তের পর থেকে ১৫ মাস শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। সেই সময় মানসিক চাপে শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার প্রবণতা বেড়ে যায়। সে বছর দেশে ৫০ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছিল, যার ৪২ জন ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

শীতকালে আত্মহত্যার হার বেশি

সমীক্ষার জরিপের তথ্য তুলে ধরে আঁচল ফাউন্ডেশনের গবেষকরা জানান, গত এক বছরে যারা আত্মহত্যা করেছেন, তাদের মধ্যে ডিসেম্বরে সবচেয়ে বেশি ঘটনা ঘটেছে। এই মাসে গড়ে ১৪ দশমিক ৮৫ শতাংশ আত্মহত্যা করেছে, যা সংখ্যায় ১৫ জন। সবচেয়ে কম এপ্রিলে, যা ১ দশমিক ৯৮ শতাংশ বা ২ জন।

এতে দেখা গেছে, গ্রীষ্মকালের চেয়ে শীতকালে আত্মহত্যার হার বেশি। স্নাতক তৃতীয় ও চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের মধ্যে আত্মহত্যার হার তুলনামূলক বেশি, যা শতকরা হিসাবে ৩৬ দশমিক ৬৩ শতাংশ।

ছাত্রদের আত্মহত্যার সংখ্যা বেশি

গত বছর আত্মহত্যার শিকার শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছাত্রদের সংখ্যা বেশি। ১০১ জনের মধ্যে ৬৫ জনই ছাত্র, ৩৬ জন ছাত্রী।

বয়স বিবেচনায়, ২২-২৫ বছর বয়সীদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা বেশি। এ বয়সী শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৬০টি আত্মহত্যার ঘটনা দেখা গেছে, যা মোট ঘটনার ৫৯ দশমিক ৪১ শতাংশ।

অন্যদিকে ২১ বছর বয়সী ২৬ দশমিক ৭৩ শতাংশ বা ২৭ জন। ২৬-২৯ বছর ৯ দশমিক ৯০ শতাংশ বা ১০ জন এবং ২৯ বছরের ওপরে ৩ দশমিক ৯৬ শতাংশ বা চারজন।

২০১৯ সাল থেকে আঁচল ফাউন্ডেশন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্য সচেতনতা তৈরিতে কাজ করছে। এর আগে আলাদা করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার সংখ্যা নিয়ে কাজ করেনি সংগঠনটি।

বেরসকারি সংস্থাটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি তানসেন রোজ বলেন, ‘সম্পর্কের অবনতির কারণে আত্নহননের ঘটনা ঘটছে সবচেয়ে বেশি। নতুন পরিস্থিতির সঙ্গে খাপ খাওয়ানোর জন্য প্রয়োজনীয় শিক্ষার সুযোগ অপর্যাপ্ত হওয়ায় জীবনে অপ্রত্যাশিত কিছু ঘটলে শিক্ষার্থীরা সেটা সামলাতে পারেন না। প্রেমে বিচ্ছেদ হলে তারা যেমন ভেঙে পড়েন, তেমনি পরীক্ষায় খারাপ ফলাফলও তাদের আশাহত করে।’

তিনি বলেন, ‘ভালো-মন্দ যাই ঘটুক, সেটি জীবনেরই অংশ। আত্মবিশ্বাস না হারিয়ে ধৈর্যশীল হতে হবে। জীবনটা অনেক মূল্যবান।’

নিউজনাউ/এবি/২০২২

 

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

আপনার মতামত জানান

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More