নেতাদের ভারে ভেঙে পড়ে খালেদা মুক্তির মঞ্চ, সভায় মারামারি

চট্টগ্রাম ব্যুরো: বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে চিকিৎসার দাবির সমাবেশের সভামঞ্চ দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর বক্তৃতা দেওয়ার সময় হঠাৎ ভেঙে পড়ে। তবে তিনি বক্তব্য দেওয়া বন্ধ করেননি। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ আবারও আগামী নির্বাচনে ‘ভোট চুরির’ ষড়যন্ত্র করছে। বাংলাদেশের মানুষ নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে; যারা ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত তাদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। যারা আমাদের সাংবিধানিক অধিকার কেড়ে নিয়ে সভা-সমাবেশে বাধা দিচ্ছে, তাদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

বুধবার দুপুরে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলার সিডিএ মাঠে দক্ষিণ জেলা বিএনপি আয়োজিত সমাবেশে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

সভার শুরু থেকেই ব্যাপক নেতাকর্মী সমাবেশের মঞ্চে উঠে পড়েন। একপর্যায়ে তা ভেঙে পড়ে। ভাঙা মঞ্চে দাঁড়িয়েই নেতারা বক্তব্য সারেন। বিষয়টি উল্লেখ করে আমীর খসরু বলেন, ‘জনগণের চাপে মঞ্চ ভেঙে যাবে, কিন্তু আন্দোলন বন্ধ হবে না। মঞ্চ তো ভাঙবেই, হাজার হাজার জনতার চাপ। এক মঞ্চ ভাঙবে, অনেক মঞ্চ ভাঙবে, কিন্তু আন্দোলন বন্ধ হবে না। ঘুঘু দেখেছো, ফাঁদ দেখনি। আজ দক্ষিণ জেলায় স্যাম্পল দেখিয়েছি। সামনে চট্টগ্রাম শহরে দেখাব, চট্টগ্রাম বিভাগে দেখাব, সারাদেশে দেখাব।’

এদিকে সমাবেশ শুরুর কিছুক্ষণের মধ্যে সেখানে উপস্থিত হন বিএনপি নেতা সাবেক সাংসদ সরওয়ার জামাল নিজাম। তিনি মঞ্চের দিকে যাবার সময় বিএনপির কিছু কর্মী কটূক্তি করে স্লোগান দেন। এ সময় দু’পক্ষে হাতাহাতি ও চেয়ার ছোঁড়াছুঁড়ি শুরু হয়। একদল কর্মী সরওয়ার জামাল নিজামকে লাঞ্ছিত করেন।

সমাবেশের প্রধান অতিথি আমীর খসরু বলেন, দক্ষিণ জেলার আজকের সমাবেশ বাঁধ ভেঙেছে সরকার পতন আন্দোলনের। কিছুতেই জনগণকে আটকে রাখা যাবে না। এত লোকের সমাবেশ মঞ্চ তো ভাঙবেই। আন্দোলন বন্ধ হবে না, চলতে থাকবে।১৪৪ ধারার দিন শেষ হয়ে গেছে‌‌। দফায় দফায় অনুমতি নিয়ে জনসভার দিন শেষ হয়ে গেছে। দেশের মানুষ আজ ঐক্যবদ্ধ।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সুফিয়ানের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব মোস্তাক আহমেদ খান ও সদস্য এস এম মামুন মিয়ার যৌথ পরিচালনায় সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নাল আবেদিন ফারুক, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম, কেন্দ্রীয় যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, দক্ষিণ জেলার সাবেক সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, কেন্দ্রীয় শ্রম সম্পাদক এ এম নাজিম উদ্দীন, নগর কমিটির সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্কর, কেন্দ্রীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক জালাল উদ্দিন মজুমদার, হারুনুর রশীদ।

এছাড়া সাবেক সাংসদ গাজী শাহজাহান জুয়েল, সরওয়ার জামাল নিজাম, দক্ষিণ জেলার নেতা এনামুল হক এনাম, মোশারফ হোসেন, ইফতেখার হোসেন চৌধুরী মহসিন, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াসিন আলী, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ সভাপতি আশরাফুল আলম লিংকন, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ সাব্বিরও বক্তব্য দেন।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান