পুষ্টিগুণে ভরপুর ব্রাউন রাইস

নিউজনাউ ডেস্ক: ভাত ছাড়া আমাদের একদিনও চলে না। ধান থেকে চাল তারপর চাল থেকে ভাত রান্না করা হয়। ধান ও চালের অনেক প্রকারভেদ রয়েছে। ধান থেকে চাল বের করার পর তা মেশিনে পালিশ করে সাদা করা হয়। তবে পালিশ করার পর হারিয়ে যায় চালের অনেক পুষ্টিগুণ। সে তুলনায় পালিশ ছাড়া ব্রাউন রাইস হতে পারে সেলেনিয়াম সহ নানান পুষ্টি উপাদানের চমৎকার উৎস।

পুষ্টিবিদদের মতে, ব্রাউন রাইসে রয়েছে রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা-সহ নানান পুষ্টিগুণ। তাঁদের মতে, সাধারণ চালের চেয়ে ব্রাউন রাইসে ফাইবারের মাত্রা বেশি। ফলে দীর্ঘ সময় পেট ভরা থাকে আর ঘন ঘন ক্ষিদে পাওয়ার প্রবণতা কমায়। পাশাপাশি এনার্জি সরবারহ করে অনেকটা সময় অবধি। সাধারণ চালের মত ব্রাউন রাইস খাওয়ার প্রবণতা মানুষের মধ্যে অত্যন্ত কম। কিন্তু জানেন কি, ব্রাউন রাইসে থাকা ফাইবার ওজন কমাতেও সাহায্য করে। আবার রক্তে শর্করার পরিমান নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে ব্রাউন রাইস।

১/ কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ ব্রাউন রাইসে স্টার্চ ও ফাইবার রয়েছে। একদিকে যেমন ব্রাউন রাইস হজম হতে সময় লাগে বেশি, কিন্তু ধীরে ধীরে সারাদিনে অনেক এনার্জি সরবরাহ করে। ফলে অল্প পরিমাণে ব্রাউন রাইস থেকেই আপনি পেতে পারেন সারাদিন অ্যাক্টিভ থাকার শক্তি।

২/ ব্রাউন রাইসে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি এবং ভিটামিন ই। এছাড়া রয়েছে ম্যাঙ্গানিজ ও সেলেনিয়াম। তাছাড়া প্রতি ১০০গ্রাম ব্রাউন রাইসে রয়েছে ৪৩ মিলিগ্রাম ম্যাগনেসিয়াম, যা হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়।

৩/ ব্রাউন রাইসে এক ধরনের ইনসলিউবল ফাইবার রয়েছে, যা ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে। গবেষণায় জানা গেছে, ইনসলিউবল ফাইবার ক্যান্সারের কোষগুলো থেকে শরীরকে রক্ষা করতে ব্রাউন রাইস সাহায্য করে।

৪/ ব্রাউন রাইসে যথেষ্ট পরিমাণে নিউরোট্রান্সমিটার নিউট্রিয়েন্ট রয়েছে, যা অ্যালঝাইমার রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে।

৫/ ব্রাউন রাইস নার্ভাস সিস্টেম ভালো রাখতে ও সেক্স হরমোন তৈরি করতে সাহায্য করে। রিলাক্স থাকার জন্যে সাহায্য করে।

৬/ হোয়াইট রাইসের তুলনায় ব্রাউন রাইস বেশি উপকারী। কিন্তু ভাত আর ব্রাউন রাইসের স্বাদের মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। সে কারণে নিয়মিত ব্রাউন রাইস খাওয়ায় অভ্যস্ত হওয়া একটু মুশকিল।

৭/ এই বিশেষ ধরনের চাল দিয়ে তৈরি ভাত, শরীরে প্রবেশ করার পর আমাদের দেহের বিভিন্ন জয়গায় জমে থাকা অতিরিক্ত চর্বিকে ঝরিয়ে দেয়। সেই সঙ্গে ভাল কোলেস্টেরল বা এইচডিএল এর মাত্রা বাড়ায়। ফলে একদিকে যেমন ওজন কমতে থাকে, তেমনি অন্যদিকে হার্টের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কাও হ্রাস পায়।

নিউজনাউ/এসজিএম/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: