হঠাৎ অস্থির পেঁয়াজের বাজার; সপ্তাহে দাম বেড়েছে ২০ টাকা

চট্টগ্রাম ব্যুরোঃ বন্দরনগরী চট্টগ্রামে গতসপ্তাহেও পেঁয়াজের দাম ছিল কেজিপ্রতি ৩৫ টাকা করে। দেশের ভোগ্যপণ্যের সবচেয়ে বড় পাইকারি বাজার চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে সোমবার ভারতীয় নাসিক জাতের পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৫৫ টাকা কেজি দরে। কিন্তু হঠাৎ করে পেঁয়াজের দাম বাড়ছে কেন?

ব্যবসায়ীরা বলেছেন, প্রতি বছর দেশে যে পরিমাণ পেঁয়াজ উৎপাদন হয় তা দিয়ে চাহিদা মেটে না। চাহিদার একটি বড় অংশ আমদানি করে মেটাতে হয়। ভারতে বিভিন্ন প্রদেশে অতিবৃষ্টির কারণে পেঁয়াজের উৎপাদন কম হয়েছে। এতে বুকিং রেট বাড়ায় দেশে আমদানিকৃত পেঁয়াজের দাম বেশি পড়ছে। ভারতীয় পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধির কারণে মিয়ানমার থেকে আমদানি হওয়া পেঁয়াজের কেজিপ্রতি দাম প্রায় ১০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৪৮ টাকায়। আমদানীকৃত পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ার প্রভাব পড়েছে দেশীয় পেঁয়াজের ওপরও। দেশীয় পেঁয়াজের দাম প্রায় সমপরিমাণ বেড়ে ৫২ থেকে ৫৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

কয়েক বছর ধরে রবি মৌসুমের আগেই ভারত থেকে পেঁয়াজের সরবরাহ সংকট তৈরি হয়ে আসছে, যার প্রভাবে অস্থির হয়ে ওঠে দেশে মসলা পণ্যটির বাজার। সরকার ও বেসরকারি পর্যায়ে বিকল্প উৎস থেকে আমদানির মাধ্যমে বাজার কিছুটা স্থিতিশীল করা হয়। পরিস্থিতি এবারো সেদিকেই যাচ্ছে বলে শঙ্কা ব্যবসায়ীদের। তাদের ভাষ্যমতে, সাউথ ইন্ডিয়ার বেঙ্গালুরুতে প্রবল বন্যায় ব্যাপক ফসলহানি হয়েছে, যার কারণে ভারতের সবচেয়ে বেশি উৎপাদনকারী নাসিক জেলার পেঁয়াজের দাম বেড়ে গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ভোগ্যপণ্যের বৃহত্তম বাজার চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের পাইকারী আড়তে মঙ্গলবার (৫ অক্টোবর) ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে কেজি ৫৩ থেকে ৫৫ টাকা, মিয়ানমারের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫২ টাকা আর দেশিয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫৫ টাকায়। তবে ব্যবসায়ীদের পেঁয়াজের দাম বাড়ানোর এই অজুহাত মানতে নারাজ সংশ্লিষ্টরা।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র বলেছে, প্রতি বছর দেশে পেঁয়াজের চাহিদা ২৮ লাখ টন। এরমধ্যে দেশে উৎপাদন হচ্ছে ৩৩ লাখ টন। সংরক্ষণের অভাবসহ বিভিন্ন কারণে ৩০ শতাংশ পেঁয়াজ নষ্ট হলেও বাকি থাকে ২৩ লাখ টন। আর প্রতি বছর ৮ থেকে ১০ লাখ টন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়। ফলে চাহিদার চেয়ে বেশি পরিমাণে পেঁয়াজ সবসময় উদ্বৃত্ত থাকে। তাই হঠাৎ করে পেঁয়াজের দাম বাড়ার কোনো কারণ নেই।

সূত্র বলেছে, ভারত, মিয়ানমারসহ অন্যান্য যেসব দেশ থেকে বাংলাদেশ পেঁয়াজ আমদানি করে থাকে, সেসব দেশ পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করেনি। এছাড়া বড় কোনো সমস্যাও নেই। তাহলে এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতি কেজি পেঁয়াজ কেন ১৫ থেকে ২০ টাকা বাড়বে? এটা সিন্ডিকেটের কারসাজি ছাড়া কিছুই না।

গতকাল নগরের রিয়াজুদ্দিন বাজার ও চকবাজারসহ বিভিন্ন খুচরা বাজারে খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ৬০ থেকে ৬৫ টাকা ও আমদানিকৃত পেঁয়াজ ৫৫ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। একদিন আগে রবিবার এই পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে যথাক্রমে ৫০ থেকে ৫৫ টাকা ও ৪৫ থেকে ৫০ টাকায়। আর এক সপ্তাহ আগে তা বিক্রি হয়েছে ৩৫ থেকে ৪৫ টাকায়।

সরকারের বিপণন সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) হিসাবে গত এক মাসের ব্যবধানে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ৪৩ দশমিক ৬৮ শতাংশ ও আমদানিকৃত পেঁয়াজ ২৩ দশমিক ৫৩ শতাংশ দাম বেড়েছে।

খবর নিয়ে জানা গেছে, হিলি বন্দরের পাইকারি বাজারে পাইকারিতে দুই দিন আগে যে পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৩০ থেকে ৩২ টাকা কেজি দরে সেই পেঁয়াজ এখন কেজিতে ১২ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৪২ টাকায়।

জানা গেছে, দেশে গত ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ২১ দশমিক ৩০ লাখ টন, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ২১ দশমিক ৫৩ লাখ টন, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ২৩ দশমিক ৩০ লাখ টন, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ২৩ দশমিক ৩০ লাখ টন, ২০১৯-২০ অর্থবছরে ২৫ দশমিক ৬০ লাখ টন ও ২০২০-২১ অর্থবছরে ৩৩ দশমিক ৬২ লাখ টন পেঁয়াজ উৎপাদন হয়েছে।

দেশে প্রতি বছর পেঁয়াজের মৌসুম শুরু হয় ডিসেম্বরে। ডিসেম্বরের মাঝামাঝিতে মুড়িকাটা (আগাম) পেঁয়াজ বাজারে উঠতে শুরু করে। আর মার্চে বীজ থেকে উৎপাদিত পেঁয়াজ বাজারে আসে। বলা যায়, এটাই পেঁয়াজের মূল মৌসুম। এ সময় পেঁয়াজের দাম অনেকটাই কমে যায়। কিন্তু অক্টোবর-নভেম্বরের দিকে দেশি পেঁয়াজের সরবরাহ কিছুটা কমে আসে বলে জানান পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা। এ সময় গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ চাষে জোর দিলে এ সমস্যা থাকবে না বলে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানিয়েছে।

খাতুনগঞ্জের পেঁয়াজের পাইকারী বাজার হামিদুল্লাহ মিয়া মার্কেটের সাধারণ সম্পাদক মো. ইদ্রিস বলেন, পেঁয়াজের দাম কিছুটা বেড়েছে। গতকালও কম ছিল। আজ দাম বেড়েছে আবারও। তিনি বলেন, আড়তে মঙ্গলবার (৫ অক্টোবর) ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে কেজি ৫৩ থেকে ৫৫ টাকা, মিয়ানমারের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫২ টাকা আর দেশিয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫৫ টাকায়।

দাম বাড়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ভারতে বন্যায় ফসল নষ্ট হওয়ায় ভারতে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। তাই দেশিয় পেঁয়াজের দামও বেড়েছে। তবে পেঁয়াজের পর্যাপ্ত মজুদ আছে বলেও জানান তিনি।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
1
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: