মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণ করার উপায়

নিউজনাউ ডেস্ক: বিভিন্ন কারণে দৈনন্দিন জীবনে আমরা কম বেশি মানসিক চাপের মধ্যে থাকি। একটি পরিসংখ্যানে দেখা যায়, প্রায় ৮০ শতাংশ মানুষ তাদের কর্মক্ষেত্রে মানসিক চাপ অনুভব করে এবং প্রায় ৪০ শতাংশ মানুষ মনে করে তাদের এই মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণে চিকিৎসকের সুষ্ঠু পরামর্শের প্রয়োজন রয়েছে। মানসিক চাপের জন্য আমাদের শরীর রোগে আক্রান্ত হয়। এমনকি অত্যধিক মানসিক চাপ মানুষকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে পারে।মানসিক চাপের ফলে উচ্চ রক্তচাপ, হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে যাওয়া, মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণসহ নানা জীবনঘাতি রোগে আক্রান্ত হয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, খুব সহজ উপায়েই এই মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণ করা যায়। আজ জানিয়ে দিবো মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণ করার উপায়।

১/ মানসিক চাপ দূর করে মনকে শান্ত করার জন্য মেডিটেশন একটি অত্যন্ত কার্যকরী ব্যায়াম। কার্নেগী মেলন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় দেখা গিয়েছে ২৫ মিনিট করে টানা ৩ দিন মেডিটেশন করলে তা হতাশা এবং দুশ্চিন্তা অনেকখানিই দূর করতে সহায়তা করে।

২/ খারাপ চিন্তা হয়তো সবসময় এড়িয়ে যাওয়া যায় না। তবে চেষ্টা করুন ইতিবাচক চিন্তা করতে। ভাবুন যা চাইছেন তা ইতিবাচকভাবেই পাবেন। এটা আপনাকে মানসিক চাপ দূর করতে সাহায্য করবে।

৩/ আপনার দৈনন্দিন মানসিক চাপের কথা আপনার সহকর্মী, পরিবার অথবা বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। একটি পরিসংখ্যানে দেখা যায়, পারস্পরিক আলোচনার মাধ্যমে মানসিক চাপের আধিক্য অনেকাংশে হ্রাস করা যায়।

৪/ মানসিক চাপে থাকলে খাওয়ার প্রতি অনেকেরই অনীহা হতে পারে। কিন্তু তারপরও খেতে হবে, খাবার আপনার শরীরকে কর্মক্ষম রাখবে এবং চাপ দূর করার পদক্ষেপগুলো নিতে সাহায্য করবে। এ সময় পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করুন। ক্যাফেইন গ্রহণ কমিয়ে দিন। দিনে অন্তত ছয় বেলা খাবার খান। গমে রুটি, পাস্তা ইত্যাদি খান। ভিটামিন এ এবং ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খান। পাশাপাশি গ্রিন টি এবং অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ খাবার খান।

৫/ দুশ্চিন্তা কমাতে ঘরের বাইরে ঘুরতে যাওয়া একটি দারুণ কার্যকরী উপায়। আর এটা সবচেয়ে ভালো কাজ করে গাছ-গাছালি পূর্ণ কোন জায়গায় গেলে। গবেষণায় দেখা গেছে পাইন, সিডার আর ওকসহ কিছু গাছে “ফাইটনসাইড” নামক একটি উপাদান থাকে যা মানুষের উচ্চরক্তচাপ কমায় এবং মানসিক চাপ দূর করে।

৬/ মানসিক চাপ কমাতে ব্যায়াম অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। পরিসংখ্যানে দেখা যায়, মানসিক চাপসহ হতাশা,
বিষাদগ্রস্ততা, অবসাদ ইত্যাদি ব্যায়ামের মাধ্যমে রোধ করা সম্ভব। তাই প্রতিদিন নিয়ম করে ব্যায়াম করুন। অথবা প্রতিদিন সকাল কিংবা বিকালে একটি নির্দিষ্ট সময়ে হাঁটুন।

নিউজনাউ/শাজা/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: