প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের পরও বিমানবন্দরে ল্যাব স্থাপনে গড়িমসি

নিউজনাউ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনার পরও উপেক্ষিত হচ্ছে বিমানবন্দরে করোনা টেস্ট (আরটি-পিসিআর) ল্যাব স্থাপন। ল্যাব স্থাপন নিয়ে বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের নানামুখী ষড়যন্ত্রও চলছে। প্রধানমন্ত্রী র্নির্দেশনা দিয়েছিলেন, দ্রুত সময়ের মধ্যে বিমানবন্দরে পিসিআর ল্যাব স্থাপন করতে। এ অনুযায়ী প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় ৭টি প্রতিষ্ঠানকে ল্যাভ স্থাপনের অনুমতি দেয়।

কিন্তু বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের অসহযোগিতা ও গড়িমসির কারণে অনুমতিপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো ল্যাব স্থাপন করতে পারছে না।

সূত্র জানায়, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা একটি প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেওয়ার জন্যেই এই গড়িমসি করছে। শুধু তাই নয় বিমানবন্দরের গাড়ি পার্কিংয়ের ছাদের ওপরে ল্যাব স্থাপনের জন্য জায়গা বরাদ্দ দেওয়াতেই বেঁধেছে বিপত্তি। সেখানে না আছে লাইট, না আছে ঘর। অনুমোদন পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, ছাদের ওপরে ল্যাব স্থাপন করতে গেলে সেখানে রুম তৈরি করা, এসি লাগানো, ল্যাবের গুণগত মান বজায় রাখার জন্য ন্যূনতম বায়োসেফটি লেভেল ঠিক করা, কুল বক্স প্রতি বুথের জন্য, বায়োসেফটি কেবিনেট, পিসিআর কেবিনেট, চেঞ্জিং রুম, ওয়াশিং এবং হ্যান্ড ওয়াশিং সুবিধাসহ অনান্য কাজগুলো সম্পন্ন করতে সময়ের প্রয়োজন।

এদিকে গত ১৪ সেপ্টেম্বর আবুধাবি থেকে নতুন যে নির্দেশনা এসেছে তা নিয়েও চলছে ষড়যন্ত্র। তথ্য মতে, নির্দেশনার আসার বিষয়ে ‘একটি প্রতিষ্ঠানকে ছাড়া’ কাউকে কিছু জানায়নি বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ। নির্দেশনার বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বা স্বাস্থ্য অধিদফতর দূরে কথা এমনকি প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়েও কিছু জানে না। কিন্তু বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ হঠাৎ করে নতুন এই নির্দেশনার কথা জানায়।

অনুমোদন পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, নতুন এই নির্দেশনা ১৪ তারিখ আসলেও আমাদের ১৬ তারিখ জানানো হয়। নির্দেশনা কিছু মেশিন এবং একটি স্ট্যান্ডার্ড অপারেশন প্ল্যান বা এসওপি জমা দিতে বলা হয়েছে। অথচ আমাদের আজ জানানো হয়েছে আগামীকাল দুপুর ১২টার মধ্যে এসওপি জমা দিতে। যেটা এতো অল্প সময়ের মধ্যে দেয়া সম্ভব নয়। কারণ এ বিষয়ে আমাদের আগে জানানো হয়নি। ৭টা প্রতিষ্ঠান মধ্যে শুধুমাত্র ডিএমএফআর মলিকুলার ল্যাব অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক আগে থেকেই নির্দেশনায় উল্লেখিত মেশিন এবং এসওপি বিষয়ে জানতো এবং সেভাবেই প্রস্তুত ছিল। এভাবে আলাদা মেশিনের নাম বলাটা অন্যায় বলে মনে করছেন বাকী ছয় প্রতিষ্ঠান।

এসওপি জামা নেয়ার পর আবার আবুধাবি পাঠানো হবে। সেখান থেকে আবার আসবে দেশে থাকা সংযুক্ত আরব আমিরাতের দূতাবাসে। এরপরে সিদ্ধান্ত হবে কোন ল্যাব কাজ করবে সে বিষয়ে তারপরে নমুনা পরীক্ষার জন্য ল্যাব স্থাপনের অনুমতি দেওয়া হবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একটি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ডিএমএফআর প্রতিষ্ঠানকে ল্যাভ স্থাপনের কাজ দেয়ার জন্যই যেহেতু এতোকিছু, তাহলে আমাদের হয়রানি করার মানে কী?

নতুন নির্দেশনা কেনো ল্যাব অনুমোদনের আগে বিবেচনায় নেওয়া হলো না? জানতে চাইলে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (সিভিল অ্যাভিয়েশন) চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান প্রথমে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিষয় বলে দাবি করেন। চিঠিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কাউকে দেওয়া হয়নি জানালে তিনি বলেন, এটা পররাষ্ট্র বোধ হয় পেয়েছে। আমি আজই তাদের কাছ থেকে পেয়েছি। সেখানে দেখলাম নতুন নির্দেশনার কথা। তাই সবাইকে ডেকে আমি এটা জানিয়েছি।

অনেক প্রতিষ্ঠানের অভিযোগ শুধুমাত্র একটি ল্যাবকে কাজ দেওয়ার জন্য বিলম্ব করা হচ্ছে? এমন অভিযোগের বিষয়ে মফিদুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতর বলতে পারবে। কারিগরি কমিটির প্রথম বৈঠকে আমি ছিলাম। সেখানে তাদের প্রস্তাবনা দেখে মনে হয়েছে ল্যাবটির ক্যাপাসিটি আছে। তবে এটার দায়িত্ব আমার না।

অনুমোদন পাওয়া ল্যাবগুলো হলো- আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, স্টেমজ হেলথ কেয়ার (বিডি) লিমিটেড ঢাকা, সিএসবিএফ হেলথ সেন্টার, এএমজেড হাসপাতাল লিমিটেড, জয়নুল হক সিকদার ওমেন্স মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হসপিটাল, গুলশান ক্লিনিক লিমিটেড ও ডিএমএফআর মলিকুলার ল্যাব অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক।

প্রসঙ্গত, দেশের বিমানবন্দরে আরটি পিসিআর টেস্ট করানোর ব্যবস্থা না থাকায় আরব আমিরাতগামী প্রায় ৫০-৬০ হাজার প্রবাসী আটকে পড়েছেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে দ্রুত সময়ের মধ্যে আরটি পিসিআর ল্যাব স্থাপনের নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী।

নিউজনাউ/আরবি/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: