পথ চেনাবে বলে গণধর্ষণ, দায় স্বীকার করে ধর্ষকদের জবানবন্দি

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রামে পথহারা কিশোরীকে বাসায় পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে দলবেঁধে ধর্ষণের ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় গ্রেপ্তার তিন আসামি আদালতে দায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম মো. সফিউদ্দিন, মেহনাজ রহমান এবং হোসেন মো. রেজার আদালতে পৃথকভাবে আসামি ও ভিকটিমের জবানবন্দি নেওয়া হয়।

ঘটনার দায় স্বীকার করায় আদালত তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন। এছাড়া ঘটনার শিকার কিশোরীও ২২ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। এ তথ্য নিশ্চিত করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডবলমুরিং থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) অর্ণব বড়ুয়া।

বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) রাতে তাদের গ্রেপ্তার করে ডবলমুরিং থানা পুলিশ। এর আগে গত ৫ সেপ্টেম্বর ঘটনার শিকার হন প্রায় ১৪ বছর বয়সী ওই কিশোরী।

গ্রেপ্তার তিনজন হলো- মেহেদী হাসান মুন্না (১৯), মো. সাকিব (২১) এবং হাসান তারেক রনি (৪০)। পুলিশ জানিয়েছে মেহেদীর বাসা হালিশহরের বি-ব্লকে। পেশায় সে লরিচালকের সহকারী। সাকিবের বাড়ি সীতাকুণ্ডে। হাসান তারেকের বাসা চান্দগাঁও এলাকায়। সীতাকুণ্ডের কালু শাহ নগর এলাকার পশ্চিমে সাগরপাড়ে বেড়িবাঁধে সরকারি জায়গায় ঘর তুলে ভাড়া দিয়েছেন সাকিব ও হাসান। উভয়ে ওই এলাকায় নৈশপ্রহরী হিসেবেও কাজ করেন।

পুলিশ জানিয়েছে, আগ্রাবাদ এলাকায় পথহারা কিশোরীকে বাসায় পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে সীতাকুণ্ডের সাগরপাড়ের একটি ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করে তারা। পরদিন সকালে তাকে বাসায় পৌঁছে দেওয়া হয়। জরুরি সেবা নম্বর ট্রিপল নাইনে অভিযোগ পেয়ে পুলিশ তিন জনকে গ্রেপ্তার করে।

ধর্ষিত ওই কিশোরী নগরীর একটি স্কুলের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী ছিলেন বলে জানা গেছে। তবে করোনাকালে লেখাপড়া অনিয়মিত হয়ে পড়ায় ৫-৬ দিন আগে ওই কিশোরী পোশাক কারখানায় চাকরি নেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: