নিরপেক্ষ সরকারেই সমাধান খুঁজছে বিএনপি

আজ থেকে সিরিজ বৈঠকে বসছে বিএনপি

নিউজনাউ ডেস্ক: আজ থেকে কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে সিরিজ বৈঠকে বসছেন বিএনপি। বৈঠকে আগামী নির্বাচন, দল পুনর্গঠন, খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ নানা ইস্যুতে আসবে পরামর্শ। তবে তাদের মূল টার্গেট নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে আগামী নির্বাচন।

দলটির বেশ কয়েকজন নীতিনির্ধারক প্রায় একই ধরনের তথ্য দিয়েছেন, আজকের বৈঠকের মূল এজেন্ডা আন্দোলন। এর পাশাপাশি আগামী নির্বাচন, দল পুনর্গঠন, আগামী জাতীয় কাউন্সিল, চেয়ারপারসনের মুক্তি, জোটের রাজনীতি, নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা-হামলাসহ সাম্প্রতিক নানা ইস্যুও উঠে আসবে বৈঠকে।

এরপর নির্বাহী কমিটির সদস্য, ৮১টি সাংগঠনিক জেলার শীর্ষ নেতাদের সঙ্গেও হবে বৈঠক। নেতাদের মতামত নিয়ে ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনার একটি খসড়া তৈরি করা হবে।

এছাড়া বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও নাগরিক সমাজের সঙ্গেও একই প্রক্রিয়ায় বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সবার মতামতের পরই চূড়ান্ত করা হবে আন্দোলনের কৌশল।

এদিকে নির্দলীয় সরকারের অধীনে আগামী নির্বাচনের দাবিতে এখন থেকেই সোচ্চার হচ্ছে বিএনপি। সভা-সমাবেশসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে সবাইকে একই সুরে কথা বলার জন্য ইতোমধ্যে নেতাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ কেন্দ্রীয় নেতারা সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে এ দাবিতে জোরালো বক্তব্য রাখছেন।

শনিবার জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে ধারাবাহিক বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়। আজ মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে তিনটায় বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে শুরু হবে এ সভা। চলবে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত।

দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন স্থায়ী কমিটির সদস্যরাও। তারেক রহমান লন্ডন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হবেন।

এদিকে আজকের সভা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে সোমবার বিকালে প্রাক-প্রস্তুতি বৈঠক করেছে বিএনপি। চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে এ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু, মুনির হোসেন ও বেলাল আহমেদ।

বিএনপি সূত্র জানায়, আজকের বৈঠককে কেন্দ্র করে শঙ্কায় রয়েছে দলটির নেতারা। শেষ পর্যন্ত সুষ্ঠুভাবে সভা করা যাবে কিনা-তা নিয়ে অনেকেই সন্দেহ প্রকাশ করছেন। এক ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, সরকার আজকের সভায় বাগড়া দিতে পারে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের দিয়ে সভা বানচালের উদ্দেশ্যে নেতাদের হয়রানি করা হতে পারে।

তবে দলের আরেক নেতা বলেন, এমন আশঙ্কা থেকেই আমরা কোনো হোটেল বা অন্য কোথাও এ সভার আয়োজন করিনি। চেয়ারপারসনের দলীয় কার্যালয়ে সভা করার সিদ্ধান্ত নিই।

স্থায়ী কমিটির গত কয়েকটি বৈঠকে সব নেতাই একমত হন, দেশে নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে হলে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের প্রয়োজন।

নিউজনাউ/আরবি/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান