মাদারীপুরের ৯৪১ শিশু প্রতিবন্ধিতা থেকে মুক্তি পেয়েছে

নিউজনাউ ডেস্ক: ক্লাবফুট শিশু মানে বাঁকা পা নিয়ে জন্ম নেয়া শিশু। তাদের প্রতিবন্ধী হিসেবে বিবেচনা করা হতো এক সময়। তাদের জন্য ছিল না কোনো চিকিৎসা ব্যবস্থা। আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের কারণে এ সমস্যার সমাধান হয়েছে। এখন পুরোপুরি চিকিৎসা পেলে দ্রুত স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারে এসব শিশু।

আজ মঙ্গলবার মাদারীপুরের নুরজাহান সেলিম নিরাময় হাসপাতালের সম্মেলনকক্ষে বাঁকা পা নিয়ে জন্ম নেয়ার বিষয়ে সচেতনতামূলক একটি সেমিনার হয়েছে।

সেমিনারে বলে হয়, মাদারীপুরে গত দুই বছরে ৯৪১ জন শিশু প্রতিবন্ধিতা থেকে মুক্তি পেয়েছে। চিকিৎসার পর শিশুরা স্বাভাবিক জীবনযাপন করছে। দি গ্লেনকো ফাউন্ডেশনের ওয়াক ফর লাইফ প্রজেক্টের মাধ্যমে এসব শিশুকে স্বল্পমূল্যে এ চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। নুরজাহান সেলিম নিরাময় হাসপাতাল এ চিকিৎসায় সহযোগিতা করছে।

হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. সরোয়ার হোসেন জানান, প্রতি বছর দেশে হাজারে একজন শিশু ক্লাবফুট বা মুগুর পা নিয়ে জন্মায়। চিকিৎসা না করালে আজীবন বাঁকা পা নিয়েই থাকতে হয় তাদের। পনসেটি নামে এক অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক এ রোগের চিকিৎসা পদ্ধতি উদ্ভাবন করেন- যা পনসেটি মেথড নামে পরিচিত।

ডা. সরোয়ার হোসেন আরো জানান, ক্লাবফুট জন্মগত রোগ হলেও সময়মতো চিকিৎসার মাধ্যমে এ রোগ সারিয়ে তোলা যায়। এ রোগে আক্রান্ত প্রায় ৯৫ শতাংশ শিশু চিকিৎসার মাধ্যমে ভালো হয়েছে। জন্মের পর পরই চিকিৎসা করালে মাত্র তিন মাসেই রোগটি ভালো হয়। এরপরও পাঁচ বছর পর্যন্ত শিশুকে
পর্যবেক্ষণে রাখা হয়।

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: