পাঞ্জশিরে বিজয় পতাকা ওড়ালো তালেবান

নিউজনাউ ডেস্ক: এবার পাঞ্জশিরে নিজেদের পতাকা ওড়ালো তালেবান। গত সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) উপত্যকা অঞ্চলটিতে সাদা-কালো রঙে কালেমা-খচিত পতাকা উত্তোলনের ভিডিও প্রকাশ করেছে আফগানিস্তানের নতুন শাসকরা।

এর আগেই অবশ্য আফগানিস্তানের বাকি অঞ্চলের মতো পাঞ্জশির প্রদেশেও ‘বিজয়ী’ হওয়ার ঘোষণা দেয় তালেবান। গোষ্ঠীটির প্রধান মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ কাবুলে এক সংবাদ সম্মেলনে গোটা দেশে তালেবানের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার কথা জানান। তিনি বলেন, এই বিজয়ের মাধ্যমে আমাদের দেশকে যুদ্ধ থেকে পুরোপুরি বের করে আনা হয়েছে। এবার একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠনই তালেবানের লক্ষ্য বলে জানান এ নেতা।

মুজাহিদ বলেন, আপাতত অন্তর্বর্তী সরকার হতে পারে। তাতে সংস্কার, পরিবর্তন ও অন্য মৌলিক পদক্ষেপের সুযোগ থাকবে। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে আমরা নতুন সরকারের ঘোষণা দেখতে পাবো। তবে নির্বাচন আপাতত দৃষ্টিসীমায় নেই। পরের প্রক্রিয়া কীভাবে চলবে তা পরবর্তী সরকারই সিদ্ধান্ত নেবে।

কাবুল থেকে ১২৫ কিলোমিটার উত্তরাঞ্চলীয় পাঞ্জশির উপত্যকায় কয়েকদিন ধরেই তালেবানের সঙ্গে ন্যাশনাল রেজিস্ট্যান্স ফ্রন্ট অব আফগানিস্তানের (এনআরএফ) সংঘর্ষের খবর শোনা যাচ্ছে। এটি ছাড়া দেশটির বাকি অঞ্চলগুলো তিন সপ্তাহ আগেই তালেবানের দখলে চলে যায়।

এদিকে, তালেবান পাঞ্জশিরের পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার কথা বললেও তাদের দাবি প্রত্যাখ্যান করেছে এনআরএফ। সংগঠনটির মুখপাত্র আলি মাইসাম বলেছেন, এটি সত্যি নয়। তালেবান পাঞ্জশিরের নিয়ন্ত্রণ নেয়নি। আমি তালেবানের এই দাবি প্রত্যাখ্যান করছি।

অবশ্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া বেশ কিছু ছবি ও ভিডিওতে পাঞ্জশিরের প্রাদেশিক গভর্নর ভবনের গেটের সামনে তালেবান যোদ্ধাদের দেখা গেছে।

তালেবানকে বৈধতা দেওয়া এবং তাদের সামরিক ও রাজনৈতিক আস্থা দেওয়ার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে দায়ী করেছেন এনআরএফ নেতা আহমদ মাসউদ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশিত এক অডিওবার্তায় তিনি তালেবানের বিরুদ্ধে ‘জাতীয় অভ্যুত্থান’-এর ডাক দিয়েছেন।

সূত্র: বিবিসি, রয়টার্স, আল জাজিরা

নিউজনাউ/আরবি/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: