পাঞ্জশিরে মরণপন লড়াই, ব্যাপক হতাহত

নিউজনাউ ডেস্ক: আফগানিস্তানের পাঞ্জশির উপত্যকায় স্থানীয় নেতা আহমদ মাসুদের অনুগত বাহিনীর সঙ্গে দেশটির নতুন শাসকগোষ্ঠী তালেবানের তুমুল লড়াই হয়েছে। তালেবানের শাসন প্রতিরোধে এখন পর্যন্ত সক্ষম আফগানিস্তানের এই উপত্যকার লড়াইয়ে ব্যাপক হতাহত হয়েছে বলে উভয় পক্ষই দাবি করেছে।

দেশটির সশস্ত্র ইসলামি গোষ্ঠী তালেবান সরকার হটিয়ে ক্ষমতায় এলেও ঐতিহ্যবাহী পাঞ্জশির উপত্যকায় নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে পারেনি।

গত ১৫ আগস্ট কাবুলের পতনের পর স্থানীয় কয়েক হাজার মিলিশিয়া যোদ্ধা এবং সেনা ও বিশেষ বাহিনীত্যাগীরা পাঞ্জশিরে পাড়ি জমিয়ে তালেবানবিরোধী প্রতিরোধ আন্দোলন গড়ে তোলেন। সাবেক মুজাহিদীন কমান্ডার আহমদ শাহ মাসুদের ছেলে আহমদ মাসুদের নেতৃত্বে তারা সেখানে ঘাঁটি গড়েন। দুর্গম এই উপত্যকায় বাইরে থেকে হামলা চালানো অত্যন্ত কঠিন।

পাঞ্জশিরের ইতিহাস বরাবরই দখলমুক্ত থাকার; ১৯৭৯ সালে সাবেক সোভিয়েত বাহিনী আফগানিস্তানে অভিযান চালালেও এই উপত্যকা দখল করতে পারেনি। ১৯৯৬ সালে দেশটিতে যখন তালেবান প্রথম সরকার গঠন করে, তখনও অপরাজিত ছিল পাঞ্জশির। এর মূল কৃতিত্ব অবশ্য নর্দার্ন অ্যালায়েন্সের সাবেক নেতা আহমদ শাহ মাসুদের সাহসী ও কৌশলী নেতৃত্বের। নিজের নেতৃত্বগুণ ও সাহসিকতার জন্য যিনি পরিচিতি পেয়েছিলেন ‘পাঞ্জশিরের সিংহ’ নামে।

২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে টুইন টাওয়ারে হামলার দুই দিন আগে, ৯ সেপ্টেম্বর মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী আল কায়েদা নেটওয়ার্কের হাতে গুপ্তহত্যার শিকার হন আহমদ শাহ মাসুদ। সেই আহমদ শাহ মাসুদের ছেলে পাঞ্জশিরের নিয়ন্ত্রণকারী রাজনৈতিক জোট নর্দার্ন অ্যালায়েন্সের প্রধান আহমাদ মাসুদ বলেছেন, তিনি প্রয়োজনে মৃত্যুকে বরণ করে নেবেন, তবুও আত্মসমর্পণ করবেন না।

নিউজনাউ/এসএ/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: