তিনি বন্দর সচিব, তবে ভুয়া; হাতিয়ে নিয়েছেন ৩৫ লাখ টাকা

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম বন্দরের সচিব পরিচয় দিতেন নিজেকে। আর সেই পরিচয়ে বিভিন্নজনকে চাকরি দেয়ার নামে অন্তত ৩৫ লাখ টাকাও হাতিয়ে নিয়েছেন তিনি। অবশেষে সেই ভুয়া সচিব সেকান্দর আলী (৫৫) ধরা পড়লেন কোতোয়ালী থানা পুলিশের জালে।

বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) সকালে নগরের চান্দগাঁও থানার মৌলভীবাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। সেকান্দার আলী ওই এলাকার বাসিন্দা বলেই জানায় পুলিশ।

কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ নেজাম উদ্দীন বলেন, ‘মামলার বাদী রিয়াজউদ্দিন বাজারস্থ মুরগীহাটা লেইনে একটি চায়ের দোকানি। পেশাদার প্রতারক এ চক্রের ফাঁদে পরেন তিনি। পরে মামলা দায়ের করলে এই প্রতারককে গ্রেপ্তার করা হয়। চক্রটি সঙ্গবদ্ধভাবে বন্দর থেকে বিভিন্ন মালামাল নিলাম ও বিক্রির তথ্য সংগ্রহ করে বিভিন্ন লোকজনদের কাছে বন্দরের ওই নিলাম/বিক্রি যোগ্য পণ্য নিয়ে দেওয়ার কথা বলেও লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে আত্মগোপন করতো।’

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালে ২৫ ডিসেম্বর জনৈক আবুল কাশেমের ছেলেকে বন্দরে চাকরি দেয়ার কথা বলে ১৫ লাখ টাকা দাবি করে সেকান্দার। ছেলের উন্নত ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে তিনি রাজি হন। প্রতারক সেকান্দার নিজেকে বিশ্বাসযোগ্য করে তুলতে দুই কিস্তিতে টাকা পরিশোধের কথা বলেন। এর মধ্যে ছেলের নিয়োগ হয়ে যাবে বলে আশ্বস্ত করা হয়। পরে আবুল কাশেম প্রথম দফায় ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা সেকান্দার আলীর হাতে তুলে দেন। এর বিপরীতে জামানত হিসেবে তাকে রূপালী ব্যাংকের একটি খালি চেক প্রদান করা হয়। এর তিন মাস পরে তার ছেলের চাকরি হয়েছে বলে বাকি সাড়ে ১১ লাখ টাকা নিয়ে আসতে বলেন ওই ভুয়া সচিব। প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী আবুল কাশেম বাকি টাকা পরিশোধ করেন। এরপর ছেলে চাকরিতে যোগদান করতে গেলে দেখেন তার নিয়োগ হয়নি, পুরো বিষয়টি ভুয়া। তখন ভুয়া সচিবের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে তারা ব্যর্থ হন।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: