নেতাদের দলীয় পদ ছেড়ে সিআরবি আন্দোলনে যেতে বললেন মাহতাব

চট্টগ্রাম ব্যুরো: সিআরবিতে হাসপাতাল নির্মানের বিপক্ষে অবস্থান নেয়া চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের নেতাদের সমালোচনা করেছেন দলটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদিত প্রকল্প সিআরবি হাসপাতালের বিরোধিতাকারী যেসব আওয়ামী লীগ নেতা আন্দোলনের নামে বাড়াবাড়ি করছেন, তারা অবশ্যই দলীয় পদবি ব্যবহার করতে পারবেন না।

একঘন্টাব্যাপী চলা এই সভায় সিআরবি আন্দোলনের পক্ষে বিপক্ষে বেশ সরগরম আলোচনা হয়। জনগনের আন্দোলন সম্পর্কে মাহতাবের এরকম বক্তব্যের নিন্দা জানান সিআরবি রক্ষা আন্দোলনে থাকা দলটির নেতারা।

বুধবার(৩১ আগস্ট) বিকাল সাড়ে ৩টা থেকে সাড়ে ৪টা পর্যন্ত চলে নগর আওয়ামী লীগের ওয়ার্কিং কমিটির সভা। সভা শেষে অনির্ধারিতভাবেই সিআরবি ইস্যুতে আন্দোলনে নগর আওয়ামী লীগের পদধারী নেতাদের সম্পৃক্ততা নিয়ে কথা বলেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব।

মূলত দলের বাইরে অবস্থান নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন প্লাটফর্মে আন্দোলন করাকে ঠিক মনে করছেন তিনি।এছাড়াও এই প্রকল্পে প্রধানমন্ত্রীর সায় আছে জানিয়ে তাদের দলের পদবি ব্যবহার না করে আন্দোলন করতে বলেন।

যদিও দলের ইউনিট পর্যায়ের সম্মেলন ও সদস্য সংগ্রহ বিষয়ে আলোচনা করতে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সেপ্টেম্বর মাস জুড়ে সদস্য সংগ্রহ অভিযান ও ইউনিট সম্মেলন করা সহ ডিসেম্বর পর্যন্ত ধাপে ধাপে নগর আওয়ামী লীগের সম্মেলনের প্রস্তুতির বিষয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়।

দলটির আইন বিষয়ক সম্পাদক ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী বলেন, ‘সাংগঠনিক বিষয় নিয়ে এই সভায় আলোচনা হয়। সেপ্টেম্বরে আমরা সদস্য সংগ্রহ ও ইউনিট পর্যায়ে সম্মেলন করবো। অক্টোবরে ওয়ার্ড পর্যায়ে সম্মেলন ও এর পর থানার সম্মেলন করা হবে। এসব শেষ হলে প্রধানমন্ত্রীর অনুমতি সাপেক্ষে নগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন করার বিষয়েও আলোচনা হয়েছে।’

সভা শেষে মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী সিআরবি ইস্যুতে আলোচনার সূত্রপাত করেন। এসময় দলের পদধারীদের আন্দোলনে সম্পৃক্ততার মাধ্যমে সংগঠনের নিয়ম নীতির প্রতি অসম্মান করা হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন।

সভায় উপস্থিত বেশ কয়েকজন নেতা নিউজনাউকে বলেন, সিআরবি নিয়ে আমাদের দলের যারা ভিন্ন প্লাটফর্ম গড়ে আন্দোলন করছেন তারা আওয়ামী লীগকে পাশ কাটিয়ে আন্দোলন করছেন এমন কথা বলেছেন মাহতাব। আসলে সিআরবিতে যদি অন্যায় কিছু হয় তাহলেতো নগর আওয়ামী লীগ থেকেই এই বিষয়ে কথা বলা যেতো। সেটা বরং অনেক বেশি কার্যকর হতো। কিন্তু দলের পদে থাকা গুরুত্বপূর্ণ নেতারা দলকে পাশ কাটিয়ে আন্দোলন করেছেন এটাই মূলত মাহতাব উদ্দিনের ক্ষোভ। এজন্য তিনি কিছু কথা বলেছেন। তবে সেগুলো সভা শেষে ব্যক্তিগত আলোচনা ছিল।

অন্য একটি সূত্রে জানা গেছে সভায় আন্দোলনকারীদের দলের পদ ছেড়ে দেয়ার পরামর্শও দিয়েছেন নগর আওয়ামী লিগের এই ভারপ্রাপ্ত সভাপতি। তিনি বলেছেন, ‘যারা নগর আওয়ামী লীগের পদ নিয়ে সিআরবিতে হাসপাতালের বিরোধিতা করছেন, তারা পদ ছেড়ে আন্দোলন করেন।’

এই বিষয়ে জানতে চাইলে ইফতেখার সাইমুল বলেন, বিষয়টা ঠিক ওরকমও না। সভা শেষে এমনে সবাই বসে থাকার সময়ে কিছু কথা বার্তা হয়েছে। এটা সভার অংশও না। পদ ছেড়ে দেয়ার কথা আসেনি। এমনে দলীয় শৃঙ্খলার প্রশ্নে কিছু আলোচনা হয়েছে।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: