বোয়ালখালীতে লাশ দিয়ে অন্যের জমি দখল, থানায় মুচলেকা

চট্টগ্রাম ব্যুরোঃ চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলায় জোরপূর্বক জমি দখল করে অন্য পরিবারের এক নারীকে কবর দেয়ায় স্থানীয় দুই ব্যক্তি ক্ষমা চেয়ে থানায় মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পেয়েছেন। পরে থানা পুলিশের পক্ষ থেকে তাদেরকে সতর্ক করা হয়।

রবিবার (২৯ আগস্ট) রাতে বোয়ালখালী থানায় তারা এই মুচলেকা দেন।

এই ঘটনায় অভিযুক্তরা হলেন বোয়ালখালী সারোয়াতলী ইউনিয়নের পূর্ব ধোরলা গ্রামের কবির আহমদের ছেলে মো. জসিম ও তার চাচাতো ভাই আবু তাহের।

জানা যায়, স্থানীয় বাসিন্দা খাদিজা বেগমের মা লাবিয়া খাতুন গত ১০ আগস্ট বার্ধক্যজনিত কারনে মৃত্যু বরন করেন। লাবিয়া খাতুনের পরিবারের নিষেধাজ্ঞা স্বত্তেও জসিম ও তার চাচাতো ভাই আবু তাহের জোরপূর্বক মুজিবুর রহমানের জমির উপর কবর দিয়ে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছেন। তাদের এমন কাজে স্থানীয়রা বাঁধা দিলেও তারা বাঁধা অমান্য করে লাবিয়া খাতুনকে ওই জায়গায় কবর দেয়। পরে এই ঘটনা মুস্তাফিজুর রহমান ও তার পরিবার জানতে পেরে অভিযুক্ত জসিম ও আবু তাহেরের কাছে এমন কাণ্ড ঘটানোর কারণ জানতে চাইলে তারা মুস্তফিজ ও তার পরিবারকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি ও প্রাণ নাশের হুমকি দেন।

এই ঘটনায় নিরাপত্তা ও প্রতিকার চেয়ে মুস্তাফিজুর রহমান বোয়ালখালী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে। থানায় অভিযোগ করা হলে বোয়ালখালী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রিজাউল জব্বার ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান। পরিদর্শন শেষে তিনি ঘটনার সত্যতা পেয়ে ঘটনার বিষয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল করিমকে জানান। পরে ওসি দুই পক্ষকে আপোষ মিমাংসার জন্য থানায় ডেকে পাঠান। পরে তারা থানায় গেলে ঘটনার দায়ভার স্বীকার করে মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পান অভিযুক্তরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বোয়ালখালী থানার এসআই রিজাউল জব্বার নিউজনাউকে বলেন, মুস্তাফিজের অভিযোগ পেয়ে ওসি স্যার আমাকে ঘটনাস্থলে পাঠান। পরে আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পাই। এবং সেখানে আশেপাশের লোকজন এবং মৃত লাবিয়া খাতুনের মেয়ে খাদিজা বেগমের সাথে কথা বলি। তারা আমাকে জানান, যে তাদের আপত্তি থাকা স্বত্তেও জসিম ও আবু তাহের জোরপূর্বক তাদের মায়ের লাশ মুস্তাফিজের বসতভিটার উপর দাফন করে। এ বিষয়ে থানায় বৈঠক করার জন্য দুই পক্ষকে নোটিশ করা হলে দুই দুই দফা সময় গড়িমসি করে শেষপর্যন্ত থানায় আসেন। এরপর তার কাছ থেকে মুচলেকা নেয়া হয়।

ভুক্তভোগী মুস্তাফিজের অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে তার এলাকার স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছ থেকে। তারাও অভিযোগের আঙ্গুল তুলেছেন জসিম ও আবু তাহেরের দিকে।

স্থানীয় আব্দুল কাদের বলেন, অভিযুক্ত জসিম ও তাহের আগে বিএনপির রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলো। এলাকায় তাদের বিরুদ্ধে শান্তি বিনষ্ট ও শৃঙ্খলা ভঙ্গের বিস্তর অভিযোগ। মুস্তফাজিদের জায়গায় লাবিয়া খাতুনের লাশ দফান করতে আসলে আমরা বাঁধা দেই। তবুও তারা বাঁধা উপেক্ষা করে লাশ দাফন করে।

এই বিষয়ে বোয়ালখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল করিম নিউজনাউকে বলেন, এই ঘটনায় অভিযোগ পাওয়ার পর দু’পক্ষকে থানায় ডাকা হয়েছে। অভিযুক্ত জসিম ও আবু তাহের অপরাধ স্বীকার করে থানায় মুচলেকা দিয়ে ক্ষমা চেয়েছে। পাশাপাশি কবরের জায়গায় মাটি ফেলে সমান করে দিতে বলা হয়েছে। তারপর সেখানে মুস্তাফিজের পরিবার গাছ রোপন করবেন। থানা থেকে দেয়া নির্দেশনা অমান্য করলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: