বিপদজনক হয়ে উঠছে রাইড শেয়ারিং

রাজধানীতে উবার, পাঠাও, ও ভাই, পিক মিসহ কয়েকটি কোম্পানির রাইড শেয়ার করছে। ব্যস্ত নগরীতে যানজটের দুর্ভোগ কিছুটা কমাতে অনেকের পছন্দ এখন বাইক বা কার। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে বাইকার বা গাড়ি চালকদের হাতে হত্যা, ছিনতাইয়ের মতো ঘটনা ঘটছে রাজধানীতে। অনেকেই বলছেন, দিন দিন অনিরাপদ হয়ে উঠছে রাইড শেয়ারিং।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চোখ রাখলেই যাত্রীদের নাজেহাল হওয়ার ঘটনার খবর পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু প্রতিকার মিলছে না বেশিরভাগ অভিযোগকারীর। নারীদের ক্ষেত্রে এই ঘটনা ঘটছে বেশি। বিশেষ করে রাতের বেলা রাইড শেয়ার করা বা রাইডের মাধ্যমে ঘরে ফেরা হয়ে উঠছে বিপদজনক!
২৪ তারিখের ঘটনা। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১ টা। ২৫ ঘণ্টার সংবাদভিত্তিক টেলিভিশন নিউজ টোয়েন্টিফোরের আইটি এক্সিকিউটিভ কে এম পল্লব মোটর সাইকেলের পাঠাও সার্ভিসে করে বাসায় ফিরছিলেন। বনানী ওভারপাসে ওঠার আগে নেভি সদর দপ্তর এলাকায় অন্ধকার এবং ফাঁকা স্থানে হঠাৎ বাইক বন্ধ করে একটু দূরে চলে যায়। সাথে সাথে ৩ জন এসে পল্লবকে রাস্তার পাশে নির্জন স্থানে নিয়ে সমানে ছুরিকাঘাত করে। ছিনিয়ে নেয় সব। পল্লব বেঁচে আছে। হাতের রগ কেটে গেছে। শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত রয়েছে।
এই ঘটনা ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ভাইরাল হয়েছে। এতে আতঙ্ক বাড়ছে সাধারণ মানুষের। পাঠাও-এর মতো রাইড শেয়ারিং কোম্পানিগুলো যাত্রী নিরাপত্তার বিষয়টিকে গুরুত্ব দিচ্ছে না বলেও অনেকে অভিযোগ করছেন। সচেতন যাত্রীরা বলছেন, যাত্রী নিরাপত্তাসহ সার্ভিসে বিশ্বস্ততা অর্জন বা ধরে রাখতে না পারলে মানুষ একসময় পাবলিক ট্রান্সপোর্টের দিকে ঝুঁকে পড়বে।
এ ব্যাপারে পাঠাও কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করা হলেও কথা বলতে রাজি হয়নি।

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান