ত্বক মসৃণ রাখার ঘরোয়া উপায়

নিউজনাউ ডেস্ক: যাদের ত্বক খুব শুস্ক হয়ে থাকে তাদের ত্বক সাধারণত খসখসে হয়ে যায়। তাই ত্বকের আদ্রতা বজায় রাখতে ত্বককে মসৃণ রাখতে ঘরোয়া কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করলেই সহজেই এর থেকে নিরাময় পাওয়া যায়। চলুন কিছু পদ্ধতি জেনে নেওয়া যাক তাহলে।

 

১.বেসন ,দুধ ও হলুদঃ
মসৃণ ও নরম ত্বকের রহস্য কিন্তু এই তিনটি উপাদানই। এর নিয়মিত ব্যবহার আপনার ত্বকের রুক্ষতা, শুষ্কতা দূর করে। আপনার মুখের সাথে সাথে শরীরের অন্যান্য অঙ্গের রুক্ষতা দূর করতে এই মিশ্রণ সমান ভাবে উপকারী।

উপকরণ:
হলুদ বাটা ১ চামচ ও বেসন ২ চামচ, দুধ পরিমাপ মতো।

পদ্ধতি:
কাঁচা হলুদবাটা ও বেসন সঠিক পরিমাপ অনুযায়ী দুধের সাথে মেশান যাতে পেস্ট মত তৈরী হয়। এবার এই পেস্টটি মুখে বা শরীরের অন্যান্য অঙ্গে মাখুন। ১৫-২০ মিনিট পরে হালকা গরম জল হাতে নিয়ে ভালো করে ম্যাসাজ করে ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই মিশ্রণটি সপ্তাহে ২ বার ব্যবহার করুন। আপনার ত্বকের মসৃণতা আপনি নিজেই ছুঁয়েই বুঝতে পারবেন।

২.পেঁপেঃ
আমাদের ত্বকের মসৃণতা বাড়িয়ে তুলতে পাকা পেঁপে অত্যন্ত বেশি মাত্রায় কার্যকরী।পেঁপেতে পেক্টিন থাকে যা আমাদের আমাদের রুক্ষ ও শুষ্ক ত্বককে খুব তাড়াতাড়ি হিল করে। হাত বা পায়ের রুক্ষতা দূর করে মসৃণ করে তুলতে পেঁপে ব্যবহার করুন।

উপকরণ:
৩ বা ৪ টুকরো পেঁপে, ১টি কলা, ২ চামচ মধু।

পদ্ধতি:
পেঁপে ভালো করে মিক্সিতে বেঁটে নিন। এবার তার সাথে মধু ও কলা মিশিয়ে মুখে ভালো করে ম্যাসাজ করুন ১৫ মিনিট ধরে। ১৫ মিনিট পর ঠান্ডা জলে মুখ ধুয়ে নিন। ভালো ফল পেতে প্রতি সপ্তাহে ২ দিন এই ভাবে ম্যাসাজ করুন।

৩.মধু ও ডিমঃ
মধু সম্পর্কে নতুন করে কিছু বলার নেই। ত্বক মসৃণ করার সবথেকে সহজ উপায় হলো মধু।

উপকরণ:
২-৩ চামচ মধু, ১ টি ডিমের সাদা অংশ।

পদ্ধতি:
মধু ও ডিমের সাদা অংশ ফেটিয়ে ভালো করে মেশান। ভালো করে মুখে মেখে ১৫-২০ মিনিট পর ঠান্ডা জলে মুখ ধুয়ে তারপর ফেস ওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ১ বার করে দেখুন, ১ মাসের মধ্যেই আপনি পার্থক্য বুঝতে পারবেন।

এই ঘরোয়া উপাদানগুলি ছাড়াও মসৃণ ত্বক পেতে বা মসৃণতা বজায় রাখতে কতগুলি বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দিতে হবে।
বেশি করে জল খেতে হবে, রাতে শোবার আগে ভালো করে মুখ পরিষ্কার করে মুখে ক্রিম ও বডি লোশন মাখতে হবে, ফল খেতে হবে বেশি করে। জাঙ্ক ফুড বর্জন করতে হবে।ঘরোয়া উপায়গুলি কিন্তু কাজের হওয়ার সাথে সাথে আপনার ত্বকের কোনোরকম ক্ষতি করে না। তাই আজকের বলা যেকোনো একটি বা দুটি উপায় আপনি আপনার মুখ ও শরীরের অন্যান্য অঙ্গের মসৃণতা বাড়ানোর জন্য ব্যবহার করে দেখতেই পারেন।

 

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: