NewsNow24.Com
Leading Multimedia News Portal in Bangladesh

‘‘জিরো টলারেন্স’’  নীতিতে গণপুর্ত মন্ত্রী

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

বিশেষ প্রতিনিধি: নিজ মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতি ঠেকাতে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছেন গৃহায়ন ও গণপুর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। অতীতের সকল ব্যর্থতাকে ঢেকে দিয়ে আগামীতে নিজ মন্ত্রণালয়কে গতিশীল করার জন্য বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন।

নিউজ নাউকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে শ ম রেজাউল করিম বলেন, কাজ করলে সমালোচনা হবে, তবে সে সমালোচনা যাতে গঠনমূলক হয় সে প্রত্যাশাও করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন বাস্তবায়ন যে কোন ত্যাগ স্বীকারেও প্রস্তুত গৃহায়ন ও গণপুর্ত  মন্ত্রী।

আগামীতে রাজউক কিংবা গণপুর্ততে কোন সিন্ডিকেট প্রথা থাকবে না বলেও দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে শ ম রেজাউল করিম বলেন, এ মন্ত্রণালয়ে দুর্নীতি যেভাবে শেকড় গেড়ে বসেছিলো তা দায়িত্ব নেবার পর উপড়ে ফেলার চেষ্টা করেছি।

সবক্ষেত্রে সফল হয়েছি তা বলবো না, তবে দুর্নীতি বন্ধ করতে সব ধরনের সিষ্টেম বন্ধ করে দিয়েছি। বর্তমানে মানুষ যাতে এক ক্লিকেই সেবা হাতের মুঠোয় পায় সেজন্য অটোমোশন সিষ্টেম চালু করেছি। এখন যে কেউ চাইলেই রাজউকে তার কাজের অবস্থান নিমিষেই জানতে পারবে। রাজউজ যাতে জনবান্ধব হয় সেব্যাপারে আমার আন্তরিক প্রচেষ্টা রয়েছে। তিনি জানান, যত সময় না পর্যন্ত জনগণের সেবা নিশ্চিত হবে তত সময় পর্যন্ত আমার প্রচেষ্টা থাকবে।

শ ম রেজাউল করিম জানান, দুর্নীতি যারা করে তাদের জন্য ইতিমধ্যেই কিছু দৃষ্টান্ত সামনে এসেছে। বনানীর এফআর টাওয়ার অগ্নিকান্ডের পর বিষয়টি নিয়ে আমরা কাজ করেছি। ভবন নির্মানে যাদের গাফলতি ছিলো তাদের ব্যাপারে অনুকরনীয় শাস্তির ব্যবস্থা করা হয়েছে। ঐসব কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে দুনীতি দমন কমিশন ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। এফআর টাওয়ারের ঘটনায় ৬২ জন  কর্মকর্তাকে দুদকের মামলার আওতায় আনা হয়েছে। এছাড়া রূপপুর পরমানু কেন্দ্রের দুর্নীতির সাথে জড়িত ৩০ কর্মকর্তাকেও দুদকের মামলার আওতায় আনা হয়েছে। গৃহায়ন অধিদপ্তরের বেশ কিছু অনিয়ম নিয়ে তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে এদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে। 

এক প্রশ্নের জবাবে শ ম রেজউল করিম বলেন, একদিনে জঞ্জাল শেষ করা সম্ভব নয়, আগে জঞ্জাল চিহিত করার চেষ্টা করছি। পর্যায়ক্রমে সব জঞ্জাল দুর করতে সক্ষম হবো। দলীয় পদ হারানোর কোন বেদনা আছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে শ ম রেজউল করিম সোজা-সাফটা জবাবে বলেন, বঙ্গবন্ধুর আর্দশের সৈনিক এবং শেখ হাসিনার কর্মী হিসেবে কাজ করছি।

কোন কিছুর পাবার আশায় নয়, দেশ এবং জনগনকে যাতে কিছু দিতে পারি সেজন্য কাজ করি। সব সময়ই আমার চেষ্টা থাকবে জনকল্যানে কাজ করা। নিউজ নাউ/ডব্লিউ এম/২০১৯ 

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

আপনার মতামত জানান

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More