করোনার বিধিনিষেধ প্রত্যাহার করলো ইংল্যান্ড

নিউজনাউ ডেস্ক: করোনার অধিকাংশ বিধিনিষেধ তুলে নিয়েছে ইংল্যান্ডে। এ অবস্থায় সবাইকে সতর্ক থাকতে বলেছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। খবর বিবিসির। কতজন মানুষ একসঙ্গে দেখা করতে পারবেন বা কোনো অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পারবেন, সে-সংক্রান্ত বিধিনিষেধ এখন আর থাকছে না। নৈশ ক্লাব খুলতেও থাকছে না বাধা।

কিছু কিছু জায়গায় মাস্ক পরতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু সে ক্ষেত্রে আইনগত কোনো বাধ্যবাধকতা নেই।

সারা বিশ্বে করোনার ডেলটা ধরনের সংক্রমণ বাড়ছে। এমন প্রেক্ষাপটে যুক্তরাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্ত নিয়ে বিশেষজ্ঞরা সমালোচনা করছেন।

বর্তমানে যুক্তরাজ্যে দৈনিক প্রায় ৫০ হাজার মানুষ করোনায় সংক্রমিত হচ্ছেন। গ্রীষ্মের শেষ দিকে দৈনিক সংক্রমণ বেড়ে দুই লাখে পৌঁছাতে পারে বলে কিছু বিজ্ঞানী আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাজিদ জাভেদের করোনা শনাক্ত হয়েছে। তাঁর সংস্পর্শে আসায় স্বেচ্ছায় আইসোলেশনে গেছেন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও অর্থমন্ত্রী ঋষি সুনাক। যুক্তরাজ্যে করোনার সংক্রমণ বাড়তে পারে বলে সতর্ক করছেন বিশেষজ্ঞরা।

রবিবার বিকেলে বরিস জনসন সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম টুইটারে একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন। ভিডিওতে তিনি বলেন, বিধিনিষেধ থেকে বেরিয়ে আসার এখনই সঠিক সময়।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, করোনার বিধিনিষেধ তুলে নেওয়ার ফলে ঝুঁকি বাড়বে—বিশেষজ্ঞদের এমন সতর্কতার সঙ্গে একমত পোষণ করেছেন যুক্তরাজ্যের বিরোধী দল লেবার পার্টির স্বাস্থ্যবিষয়ক মুখপাত্র জোনাথন অ্যাশওর্থ। তিনি বলেন, সরকার এ বিষয়ে ‘বেপরোয়া’ আচরণ করেছে।

এদিকে করোনা টিকাদানের দিক দিয়ে যুক্তরাজ্য বেশ এগিয়ে রয়েছে। প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে প্রায় ৮৮ শতাংশ টিকার কমপক্ষে একটি ডোজ পেয়েছেন। আর দুটি ডোজই পেয়েছেন ৬৮ দশমিক ৩ শতাংশ, যাদের বয়স ১৮ বছরের নিচে, তাদের শিগগির টিকাদান শুরু হতে পারে।

নিউজনাউ/আরবি/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: