নগরকান্দায় ডাকাত সর্দার আটক, স্বর্ণ উদ্ধার

নগরকান্দা ( ফরিদপুর) প্রতিনিধি: ফরিদপুরের নগরকান্দার গোড়াইল গ্রামে পুলিশ দম্পতির বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দার মো. মনজু মুন্সী (৩৫) ও ডাকাতির স্বর্ণালঙ্কার ক্রয়-বিক্রয়ের সাথে জড়িত স্বর্ণ ব্যবসায়ী ননী গোপাল বনিক (৪৮) কে আটক করেছে নগরকান্দা থানা পুলিশ।

শনিবার (১৭ জুলাই) দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ উপ-পরিদর্শক কালাম হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ভাঙ্গা ও ব্রাহ্মণকান্দায় পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে। আটকের পর মজনু ডাকাতিতে সরাসরি অংশগ্রহণ করেছে বলে স্বীকার করেছে।

পুলিশ জানায়, চুরি যাওয়া স্বর্ণালঙ্কার ডাকাত মজনু ভাঙ্গার স্বর্ণ ব্যবসায়ী ননী গোপাল বনিকের কাছে বিক্রয়ের কথা স্বীকার করে। পরে পুলিশ মজনুকে সাথে নিয়ে ডাকাতির স্বর্ণ ক্রেতার দোকানে অভিযান চালিয়ে স্বর্ণসহ ননী গোপাল বণিক (৪৮) নামের একজনকে আটক করে।

আটকের পর তাদের আদালতে পাঠানো হয়। আদালতে আসামিরা ডাকাতি ও স্বর্ণ ক্রয়ের কথা স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

মনজু দীর্ঘদিন ধরেই ডাকাতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন এবং ননী গোপাল বরাবরই তাদের কাছ থেকে ডাকাতির স্বর্ণ ক্রয় করে। এর আগে এই ডাকাতির ঘটনায় ইকরাম নামের আরও এক যুবককে আটক করে আদালতে প্রেরণ করে পুলিশ।

জানা গেছে, গোড়াইল গ্রামের আলাউদ্দিন মাতুব্বরের ছেলে পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) জাকির হোসেন ও তার স্ত্রী পুলিশ কনস্টেবল উম্মে সালমা বেগমের বাড়িতে গত ৭ জুন দিবাগত রাত পৌনে ২টার দিকে ৮-১০ জনের একটি ডাকাতদল ঘরের জানালার গ্রিল ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে। এসময় উম্মে সালমা বেগম এবং তার শ্বশুর আলাউদ্দিন মাতুব্বর ঘুমন্ত অবস্থায় ছিলেন। মুখোশধারী ডাকাতদলের সদস্যরা দেশীয় অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে এবং আলমারি ভেঙে স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ টাকা লুট করে নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে নগরকান্দা থানার ওসি (তদন্ত) জিয়ারুল ইসলাম বলেন, গোড়াইল গ্রামের পুলিশ দম্পতির বাড়িতে ডাকাতির ঘটনার রহস্য উদঘাটনে তৎপর ছিলো পুলিশ। জড়িতদের ধরতে অভিযানও চলমান ছিলো। ডাকাতির ক্লু নিয়ে অগ্রসর হয়ে সরাসরি অংশগ্রহণকারী চক্রের সর্দারকে আটক করতে সক্ষম হই।

নিউজনাউ/আরবি/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: