৭৫ জনকে আসমি করে আরও ৩০ মামলা পিকের সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে

নিউজনাউ ডেস্ক: প্রশান্ত কুমার হালদার (পি কে) সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে আরও ৩০টি মামলা করবে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। শুধু একটি কম্পিউটার ব্যবহার করে কাগুজে প্রতিষ্ঠান বানিয়ে পিপলস লিজিং, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং ও এফএএস লিজিং থেকে বিপুল এই টাকা লুট করে পিকে হালদার সিন্ডিকেট। টাকা লুটের ঘটনায় মামলা গুলো করা হচ্ছে। প্রতিটি মামলায় পিকে হালদারসহ ৭৫ জনকে আসামি করা হচ্ছে।

পি কে হালদার ছাড়াও আসামির মধ্যে আছেন ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের ১০ পরিচালক, এফএএসের ১০ পরিচালক, পিকে হালদারের ঘনিষ্ঠ ৪ বান্ধবীসহ ১২ আত্মীয়। শিগগির মামলাগুলো করা হবে বলে দুদক কমিশন সূত্রে জানা গেছে।

দুদকের উপ-পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান এর নেতৃত্বে কমিশনের চার সদস্যের টিম দীর্ঘ তদন্তের পর একটি প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। সেখানে পিকে হালদারসহ ৭৫ জনের বিরুদ্ধে ৩০টি মামলার সুপারিশ করে কমিশনে অনুসন্ধান প্রতিবেদন দাখিল করেছেন।

তদন্ত প্রতিবেদন সূত্রে জানা গেছে, আসামির তালিকায় উল্লেখযোগ্য ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট নাহিদ রুনাই, ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাশেদুল হক, রাফসান চৌধুরী রিয়াজ, পরিচালক নুরুজ্জামান, নওশেরুল ইসলাম, বাসুদেব ব্যানার্জি, পাপিয়া ব্যানার্জি, নাসিম আনোয়ার, এমএ হাশেম।

এছাড়া তালিকায় নাম আছে এফএএসের চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান, ভাইস প্রেসিডেন্ট জাহাঙ্গীর আলম, মনিরুল ইসলাম, ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাসেল শাহরিয়ার, পরিচালক মো. আবু শাহাজাদা, সোমা ঘোষ, অরুন কুমার কুন্ডু, পওদীপ কুমার রায়, বিরেন্দ্র কুমার সোম ও আতারুল আলম এবং পিএনএল ইন্টারন্যাশনালের চেয়ারম্যান উদ্ভব মল্লিকের।

সূত্র জানায়, পিকে হালদার সিঙ্গাপুর, ভারত এবং কানাডায় প্রায় ছয়শ কোটি টাকা পাচার করেছেন বলে তদন্তে উঠে এসেছে। পিকে হালদার কানাডার টরেন্টোতে মার্কেট কিনেছেন। সেখানে তিনি বিলাসবহুল বাড়ি গাড়ি ক্রয় করেছেন। তবে দেশি বিদেশি সংবাদমাধ্যমে তাকে নিয়ে নিউজ হওয়ায় এবং তদন্তকারী সংস্থার বিভিন্ন তৎপরতায় পিকে হালদার গা ঢাকা দিয়ে থাকার চেষ্টা করছেন।

দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান শনিবার দুপুরে জানান, পি কে হালদার সিন্ডিকেট কাগুজে প্রতিষ্ঠান করে মানুষের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলাগুলো করা হবে। তদন্তে দুদক ইন্টারন্যাশনাল লিজিং ও এফএএস ফাইন্যান্সের প্রায় ৩০টি কাগুজে প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে মর্টগেজ ছাড়াই প্রায় দুই হাজার কোটি টাকা জালিয়াতি পূর্ণ ঋণ প্রদানের রেকর্ড পেয়েছে।

কাগুজে এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে আছে কনিকা এন্টারপ্রাইজ, আরবি এন্টারপ্রাইজ, মুন এন্টারপ্রাইজ, জে কে ইন্টারন্যাশনাল, ফ্যাশন প্লাস লিমিটেড, জিএন্ডজি এন্টারপ্রাইজ, তামিম অ্যান্ড তালহা এন্টারপ্রাইজ, ক্রসরোড করপোরেশন, মেরিন ট্রাস্ট, নিউটেক, নিউটেক এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড, ন্যাচার এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড, দেয়া শিপিং লিমিটেড ও এমটিবি মেরিন লিমিটেড, আনান কেমিক্যাল ইন্টাষ্ট্রিজ লিমিটেড, কোলাসিন লিমিটেড, আর্থস্কোপ লিমিটেড, এমটিবি মেরিন, সুখাদা প্রোপ্রার্টিজ, সন্দীপ কর্পোরেশন, গ্রীন লাইন ডেভেলমেন্ট ও মেসার্স বর্ণ নামের অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠান।

এদিকে হাইকোর্ট ইতোমধ্যে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং এবং পিপলস লিজিংয়ের বোর্ড পূণর্গঠন করে দিয়েছে। বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এক্সচেঞ্জ কমিশন এফএএস ফাইন্যান্সের বোর্ড পূনর্গঠন করে দিয়েছে। নতুন বোর্ড কাজ করার পাশাপাশি ঋণ খেলাপিদের কাছ থেকে টাকা উদ্ধারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: