ইউএনও যখন বিদায়ের গাড়িতে, প্রতিবন্ধী মেয়েটি তখন হুইলচেয়ারে

চট্টগ্রাম ব্যুরো: রবিবার (১২ জুলাই) বিকেল তখন সাড়ে ৫টা। হাটহাজারী উপজেলা অফিসে তখন নিপপতন নিরবতা। সরকারি চাকরির নিয়ম মাফিক পরিবর্তনের অংশ হিসেবে প্রমোশন পেয়ে বদলির গাড়িতে উঠছেন উপজেলার সফল ইউএনও রুহুল আমিন। বিদায়ের মুহূর্তেও তিনি রেখে গেলেন মানবিকতার উদাহরণ।

তারর গাড়িতে উঠার কিছুক্ষণ আগে ইউএনও অফিসে আসলেন এক ভদ্রলোক। তিনি শুনালে গুলতাজ খাতুন নামে এক প্রতিবন্ধী মেয়ের দুরবস্থার কথা। সেই মেয়ে চলাফেরা করতে অক্ষম। মেয়েটির জন্য একটা হুইলচেয়ার ব্যবস্থা করলে খুব ভাল হয়। সাথে সাথেই ইউএনও তার নিজস্ব অর্থায়নে বিশেষভাবে সক্ষম মেয়েটির জন্য ব্যবস্থা করলেন একটি হুইল চেয়ার। সাথে নগদ ৫ হাজার টাকা।

হাটহাজারী পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা গুলতাজ। ২৫ বছরের এই মেয়েটির বাবা জালাল আহাম্মদ বেঁচে নেই। জন্ম থেকেই সে নিজে হাঁটাচলা করতে পারেন না। চলাচলে অক্ষম মেয়েটিকে ঘরের মেঝেতে রেখেই কাজ যেতে হয় তার মায়ের।

হুইলচেয়ার পেয়ে গুলতাজের মা বলেন, ‘টিনো (ইউএনও) রুহুল আমিন সাব চলে যাবেন। আমার মেয়েটার একটা হুইলচেয়ার দরকার ছিল। এ খবর শুনে আমার মেয়ের জন্য হুইলচেয়ারের ব্যবস্থা করেন। ৫ হাজার টাকাও দিয়েছেন। আমি তার কাছে কৃতজ্ঞ।

হাটহাজারী উপজেলার সদ্যবিদায়ী ইউএনও রুহুল আমিন বলেন, আমি সবার থেকে বিদায় নেব এমন সময় এক ভদ্রলোক আমার সঙ্গে দেখা করতে চান এমন খবর আসে। আমি নিশ্চিত কোনো বিপদ হয়েছে। লোকটির সঙ্গে কথা বলি। তিনি সব খুলে বলার পর মেয়েটির জন্য একটি হুইলচেয়ার ও ৫ হাজার টাকার অর্থসহায়তা দেওয়ার ব্যবস্থা করি।

নিউজনাউ/পিপিএন/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: