পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন

নিউজনাউ ডেস্ক: রূপগঞ্জের ভুলতায় সেজান জুসের কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের কারণ অনুসন্ধানে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্তের পরই জানা যাবে আসল কারণ। আগুন লাগার পর কারখানার মূল গেট বন্ধ করে রেখেছিল কর্তৃপক্ষ। এ কারণে শ্রমিকরা বাইরে বের হতে পারেনি। মৃতের সংখ্যা বেড়ে গেছে। গাফিলতির বিষয়টিও তদন্ত করে দেখার দাবি জানিয়েছেন নিহতের স্বজনরা।

ভবনটির সপ্তম তলায় কেমিক্যাল গোডাউন ছিল বলে আগুন বেশি ছড়িয়েছে। নিহতের সংখ্যা বেড়েছে। বিষয়টি নিয়েও স্বজনরা ক্ষোভ জানিয়েছেন।

ভুলতায় সেজান জুসের কারখানায় আগুনে পুড়ে অন্তত ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এতোটাই পুড়ে গেছে অনেকের চেহারা চেনা যাচ্ছে না। এ কারণে মৃতদেহগুলোর ডিএন পরীক্ষার জন্য ৪৯টি মৃতদেহ নিয়ে যাওয়া হয়েছে ঢাকা মেডিকেলের ফরেনসিক বিভাগে। শনাক্ত করার পর হস্তান্তর করা হবে স্বজনদের কাছে।

এদিকে, কারখানার ধ্বংসস্তূপের ভেতর থেকে বের করা হচ্ছে আরো মৃতদেহ। আর বাইরে স্বজনহারাদের কান্না ভারি হচ্ছে বাতাস। প্রশাসন ও ফায়ার সার্ভিস সব ধরণের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।

ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক দেবাশীশ বর্ধন জানান, এখন পর্যন্ত কারখানার ভেতর থেকে ৫০ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে। সেখানে ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, নিহতদের বেশিরভাগই শিশু। পরিচয় শনাক্তের জন্য মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হবে। সেখানে ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। আগুনের ঘটনায় পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (০৮ জুলাই) বিকেলে হাসেম ফুড অ্যান্ড বেভারেজের কারখানার দ্বিতীয় তলায় আগুন লাগে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, তৃতীয় তলা থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। পরে তা খুব দ্রুতই আগুন ছড়িয়ে পড়ে ৬ তলা ভবনজুড়ে। কারখানাটির সপ্তম তলায় একটি কেমিক্যাল গোডাউন ছিল বলেও জানা গেছে।

নিউজনাউ/আরবি/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: