মৌলবাদ রুখতে বাজেটে সংস্কৃতি খাতের বরাদ্দে প্রতিফলন নেই: চারণ

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চারণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের কেন্দ্রীয় ইনচার্জ নিখিল দাস বলেন, সংসদে পেশ করা বিশাল বাজেটে সংস্কৃতি খাতে বরাদ্দ মাত্র দশমিক শূণ্য ৯৭ শতাংশ। সরকারের উচ্চ মহল বলছে মৌলবাদকে প্রতিহত করতে সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড বাড়াতে হবে। অথচ সংস্কৃতিতে এত কম বরাদ্দের সাথে তাদের বক্তব্য অসঙ্গতিপূর্ণ। এতে সারাদেশের সংস্কৃতি কর্মকান্ডের সাথে যুক্ত সব মহল হতাশ হয়েছে।

বুধবার (৯ জুন) বাজেট প্রতিক্রিয়ায় এক বিবৃতিতে এইসব জানায় চারণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র।

বিবৃতিতে বলা হয়, এক সময় দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে যাত্রা-কবিগান-নাটক-জারি গান-সারি গান ইত্যাদির ব্যাপক প্রচলন ছিল। আজ মৌলবাদী তৎপরতায় এবং সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা না পাওয়ার এইগুলো হারিয়ে যাচ্ছে। শুধু তাই নয়, বাউলরা প্রতি পদে পদে আক্রান্ত হচ্ছেন। শরীয়ত বাউল কে জেলে যেতে হয়েছে। এক সময় বাংলার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে লোক কবিদের ব্যাপক আধিপত্য ছিল। লোকসংস্কৃতির প্রাধান্যই মৌলবাদী সংস্কৃতিকে বাড়তে দেয় নি। আজ সরকারের উচ্চপর্যায় থেকে মৌলবাদের পৃষ্ঠপোষকতা ও লোকজ বাংলা সংস্কৃতির সাথে বিমাতাসুলভ আচরণ মৌলবাদের উত্থান এর জমিন তৈরি হয়েছে।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, সরকারি নির্দেশে দেশে ৫৬০টি মডেল মসজিদ হচ্ছে অথচ সংস্কৃতিজনদের দাবি প্রতি উপজেলায় সাংস্কৃতিক কমপ্লেক্স অনুমোদন হয় না। এই করোনাকালে প্রচুর বাউলসহ প্রান্তিক সাংস্কৃতিক কর্মীরা বেকার হয়ে গিয়েছে। অনেকে বাদ্যযন্ত্র বিক্রি করে মানবেতর জীবনযাপন করছে। এদের প্রতি সরকারের কোন প্রণোদনা নেই। মৌলবাদী সংস্কৃতি ও আকাশ সংস্কৃতির বদৌলতে নারী শিশু নির্যাতন, মাদকাসক্তি, অপসংস্কৃতির বিস্তার ঘটছে, সমাজে তৈরি হচ্ছে বিশৃঙ্খলা।

তাই আজ দেশজ অসাম্প্রদায়িক সংস্কৃতি বিকাশের স্বার্থে জাতীয় বাজেটের কমপক্ষে ১ শতাংশ বরাদ্দ সময়ের দাবি। নামমাত্র অনুদান দিয়ে সর্বগ্রাসী সংকট থেকে জাতিকে রক্ষা করা যাবে না বলেও জানান চারণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র।

নিউজনাউ/পিপিএন//২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: