একই পণ্যের ভিন্ন দাম, ক্রেতা হারাচ্ছে সুপারশপ

নিউজনাউ ডেস্ক: বেসরকারি খাতে আধুনিক, উন্নত ও স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশে পণ্য বেচাকেনার উদ্যোগ ব্যর্থ হতে বসেছে। একই পণ্যের ভিন্ন ভিন্ন দামের কারণে সুপারশপবিমুখ হচ্ছেন ক্রেতারা। বাড়তি ভ্যাটের জন্য পণ্যের এমন বাহারি দাম হচ্ছে বলে মন্তব্য ব্যবসায়ীদের।

সরেজমিন দেখা যায়, মহল্লার দোকান কিংবা জেনারেল স্টোর থেকে পণ্য কিনলে ক্রেতাকে বাড়তি কোনও ভ্যাট দিতে হচ্ছে না। অথচ পুরোপুরি স্বাস্থ্যবিধি মেনে বেচাবিক্রি করা সুপার শপ থেকে কিছু কিনতে গেলেই গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত ৫ শতাংশ ভ্যাট। এভাবেই বছরের পর বছর পরোক্ষ করের মাধ্যমে সুপার শপের ক্রেতাদের কাছ থেকে রাজস্ব আদায় করা হচ্ছে।

আইন অনুযায়ী, বড়, মাঝারি ও ছোট সব ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেই ইসিআর মেশিন থাকা বাধ্যতামূলক। কিন্তু বাস্তবতা হলো, ইলেকট্রনিক ফিসকেল ডিভাইস (ইএফডি) বা ইসিআর মেশিনের বালাই নেই অধিকাংশ জেনারেল স্টোরগুলোতে। গুরুত্বপূর্ণ এই মেশিন না থাকার কারণে জানা যাচ্ছে না দোকানগুলোতে প্রতিদিন কত টাকার লেনদেন হচ্ছে। আর তাই সরকার ওসব দোকান থেকে কোনও রাজস্বও পাচ্ছে না।

এ প্রসঙ্গে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘ভ্যাটের মাধ্যমে পক্ষান্তরে সুপার শপগুলোকেই চেপে ধরা হচ্ছে। এটা ঠিক নয়। এই পলিসি বদলানো উচিত।’

নিউজনাউ/এসএ/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: