সীমান্তবর্তী জেলায় উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে করোনা সংক্রমন

নিউজনাউ ডেস্ক: ভারত সীমান্তবর্তী দেশের সাত জেলায় উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে করোনা রোগী। একইসঙ্গে জেলা সদর হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসা ব্যবস্থাপনায় নানা সংকটের কারণে বাড়তে শুরু করেছে মৃতের সংখ্যাও। এছাড়া বাজার-ঘাট ও বিপণিবিতানে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। ঈদের আগে বিভিন্ন জেলায় ঘরেফেরা মানুষ ও ভারত ফেরতরা সাতক্ষীরায় আসার পরই সংক্রমণ বাড়ছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

তাছাড়া সীমান্ত জেলার স্থলবন্দরে স্বাস্থ্যবিধির নিয়ম না মেনেই অবাধে ঢুকছে ভারতীয় পণ্যবাহী ট্রাক। আবার বাজার ও মার্কেটগুলোতে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্যমতে, সীমান্তবর্তী জেলাগুলোর মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ, নাটোর, সাতক্ষীরা, যশোর, রাজশাহী ও চুয়াডাঙ্গায় ভারতীয় ধরনে অধিক সংখ্যক মানুষ সংক্রমিত হচ্ছে। তবে এসব জেলার অধিকাংশ হাসপাতালেই নেই করোনা চিকিত্সার পূর্ণাঙ্গ ব্যবস্থা।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) উপদেষ্টা মুশতাক হোসেন বলেন, ‘ঈদকে কেন্দ্র করে যেভাবে মানুষ কেনাকাটা ও গ্রামের বাড়িতে যাওয়া শুরু করেছিল, সংক্রমণ তো বাড়বেই। আমরা আগেই বলেছিলাম ঈদের ১০ থেকে ১৪ দিন পরেই এর প্রভাব দেখা যাবে। এখন তা-ই দেখা যাচ্ছে। সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতেও সংক্রমণ বাড়ছে, এক্ষেত্রে করোনার ভারতীয় ধরনও কাজ করছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।’

এদিকে করোনা মোকাবিলায় গঠিত জাতীয় টেকনিক্যাল পরামর্শক কমিটি সম্প্রতি অধিক সংক্রমিত সীমান্তবর্তী সাত জেলায় সর্বাত্মক লকডাউন দেওয়ার সুপারিশ করেছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রীও এ ব্যাপারে একমত পোষণ করেছেন।

করোনা সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি দেখা দেওয়ায় সীমান্তবর্তী সাত জেলায় বিশেষ লকডাউন বাস্তবায়ন চায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এ লক্ষ্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের কাছে একটি সুপারিশ পাঠানো হয়েছে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে। গতকাল (সোমবার) রাতে এ নিয়ে বৈঠক করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। মন্ত্রিপরিষদ সচিবের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকের সিদ্ধান্ত আজ নির্দেশনা আকারে মাঠ প্রশাসনে পাঠানো হতে পারে।

নিউজনাউ/আরবি/২০২১

+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
আপনার মতামত জানান
%d bloggers like this: